demo
Times24.net
আমাজান
Monday, 09 Sep 2019 16:32 pm
Times24.net

Times24.net

মুহাম্মদ শামসুল হক বাবু 
বিবেকের আদালত থেকে বলছি শুনে যাও -
জঙ্গলের মঙ্গলে শত্রুতা করে অরণ্যের কশাই,
কীটপতঙ্গের স্বর্গরাজ্যে কখনো অজানা আতংক 
অবুঝ প্রকৃতির মাঝেও চলে সতিদাহ বিসর্জন।
মনে পড়ে কি আদিম যুগের সেই আজানা কাহিনী 
অসাধু গুপ্তচর খুঁজে বেড়ায় শতশত গুপ্তধন 
লুকিয়ে আছে হাজারো মিথ গল্প কবিতা গান,
স্প্যানিশ এক্সপ্লোরার ফ্রান্সিসকো অরেল্লানা
তাকে আক্রমণ করেন এক নিনজা নারী যোদ্ধা, 
গ্রীক পুরাণের মুকুটহীন সম্রাজী সে-তো আমাজান
তুমি আমার মতো শান্তিকামীদের আম্মাজান। 
আমাজান তুমি বিশ্বের প্রধান প্রাকৃতিক সপ্তাশ্চর্য
তোমার রূপ-লাবণ্যে আকৃষ্ট হয়ে যাই আশ্চর্য। 
বহমান পৃথিবীর ফুসফুস আমার দেহের অভ্যন্তর 
তোমাকে আমার স্বদেশ থেকেও অনুভব করি। 

কে সে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বোলসোনারো
তোর নিচু মানসিকতার ভয়ংকর অভিশপ্ত পাণি
ভক্ষন করে প্রকৃতির ক্ষতবিক্ষত রক্তে ভেজা রোস্ট 
আজ তুমিই বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আছো
ওর মৃত্যুর সময় রেইন ফরেস্ট অট্টহাসিতে হাসবে,
উড়ন্ত সাহারা মরুভূমি-বালির হাওয়ায় যুক্ত কফিন
তোমাকে কবর দিয়ে যায় নিত্যদিন যা দেখনি, 
আবার বিন্দু বিন্দু করে আছড়ে পড়ে আমাজানে। 
জগতের বিরলতম টেরা পেটা কালো মাটির রাজ্য 
তুমি কি এই আদম সৃষ্টির অন্যতম উপাদান বটে ! 
ঐ যে ফড়ফড় চড়চড় চিড়চিড় শোশো করে -
সর্বদিকে হাহাকার- পরিবেশবাদিরা গেলে কোথায়
মাতাল আগুনে পুড়ে ছাই হচ্ছে প্রাণের আম্মাজান।
অগ্নিদগ্ধ কান্নার শব্দ প্রতিশব্দে কর্ণকুহরে বাজে,
বিশুদ্ধ বাতাসে ঘনকালো ধোয়ার বেসামাল কুন্ডলী 

মেঘের রাজ্যে শুধুই শূন্যতার এক করুণ মরুভূমি, 
বড়ই নিদারুণ সুবজ শান্ত প্রকৃতি করে আকুতি। 
লেলিহান বিভীশিখায় ভয়ংকর আর্তচিৎকার শুনি
অবাক সুন্দর পৃথিবীর প্রাণ হবে হতবাক নিষ্প্রাণ। 
নিঃশেষ হচ্ছে সুমিষ্ট পানির বিশাল স্বচ্ছ জলাধার, 
কোথায় যাবে সরল বন্য যাযাবর আদি মানবজাতি 
এদিক সেদিক ছুটাছুটি করে হাজারো পশুপ্রাণী। 
অভয়ারণ্য কে দিবে অভয়বানী কাঁদে  অভয়াশ্রম 
কোথায় অক্সিজেন সেই বিশ আমায় এনে দিস ! 
শ্বাসরুদ্ধকর আমার শ্বাসপ্রশ্বাসে নেই কো আশ্বাস 
দাবানলে অনলবর্ষী অণুগল্প কবিতায় রক্তঝরে 
কবি'র প্রতিটি কল্পনা আঘাতে আঘাতে ঝর্ঝরিত, 
চিত্রশিল্পীর সামনে এক বিশাল নাট্য ও চিত্রশালা।
চিড়ধরা ঐ পোড়া মাটির গন্ধ চারিদিকে ছড়ায় 
প্রিয়ার রূপকথার সৌন্দর্য নিমিষেই জ্বলছে যায়। 

ওহে কুন্ডলী পাকানো ধোঁয়া কেয়ামতের আলামত
সুবিশাল জীবন্ত সূর্যের জলন্ত মুখ ঢাকা পড়ে যায়। 
থেমে গেছে পাহাড়ী ও গহীন জঙ্গলের মিষ্টি কলরব
প্রাণীর ভুবন ফলের পাহাড় মাছের দেশ কি শেষ? 
প্রাকৃতিক যৌনসঙ্গীর ক্ষতবিক্ষত মৃত দেহখানি,
নৈসর্গিক পশুপ্রানীর রাজ্যে এখন শুধুই নৈরাজ্য 
বৃক্ষ তরুলতার জলাঞ্জলীর দিবসের উৎসব চলে
সৃষ্টিকর্তা বসে দেখে যাচ্ছে কি অবিরত দুখ ও সুখ।
একেরপর এক আত্নহুতির বলিদান পর্ব করে খর্ব,
আমার অরণ্য ও বণ্যের প্রান্তর হচ্ছে ভিটা শূন্য। 
লোভের আগুনে লাল কালো সাদার উলঙ্গ উল্লাস 
ভালোবাসার শান্তির গৃহে বৃহৎ চিতার নরক যন্ত্রনা 
হরিৎ পৃথিবীর বুকে ভর করে জ্বলে ভূতুড়ে শ্বশান,
থাম তোরা থাম- তোদের আর নাই কোনো কাম -
ওহে পন্ডিত মশাই দাবার ঘুটি চালে বনের কসাই।

বিদ্র : অপ্রকাশিত আমাজান কাব্যগ্রন্থের পান্ডুলিপির অংশ বিশেষ রচনাকাল ১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং, প্রকাশকাল ৮ সেপ্টেম্বর রবিবার ২০১৯