demo
Times24.net
ফুলবাড়ীয়ায় কালভার্টের মুখ বন্ধ করে ২০একর জমির বোরো ফসল বিনষ্টের আশংকা
Sunday, 17 Mar 2019 17:38 pm
Times24.net

Times24.net

মোঃ আঃ জব্বার, টাইমস ২৪ ডটনেট, ফুলবাড়ীয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ফুলবাড়ীয়া উপজেলার বাক্তা ইউনিয়নের বাক্তা তালতলী টু শ্রীপুর রাস্তায় মিন্টু মাস্টারের ফিসারীর স্থানে পানি নিষ্কাশনের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের রাস্তার নিচ দিয়ে বয়ে যাওয়া সরকারি কালভার্টের উভয় মুখ বালির বস্তা দিয়ে বন্ধ করে দেয়ায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। সৃষ্ট জলাবদ্ধতার কারণে প্রায় ২০একর জমির উঠতি বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতির আশংকা দেখা দিয়েছে। জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য গত ১৪ মার্চ উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট লিখিত অভিযোগ করেছেন এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকগণ। লিখিত অভিযোগ প্রেক্ষিতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তালতলী টু শ্রীপুর রাস্তার মিন্টু মাস্টারের ফিসারী সংলগ্ন কালভার্টটি মুখ বন্ধ রয়েছে। পানি নিষ্কাশনের জন্য একমাত্র কালভার্টের মুখ বন্ধ করায় সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় কৃষকের প্রায় ২০ একর জমির বোরো ধান পানিতে ডুবে বিনিষ্ট হওয়ার উপক্রম। 
ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক আঃ খালেক বলেন, এ ব্যাপারে ইতিপূর্বেও একাধিকবার স্থানীয় চেয়ারম্যান সাহেবের নিকট অভিযোগ দিলে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং পানি নিষ্কাশনের জন্য কালভার্টের মুখটি মিন্টু মাস্টারকে খুলে দিতে বলেন। কিন্ত কারো কোন কথায় কর্ণপাত করেননি স্থানীয় প্রভাবশালী মোফাজ্জল হোসেন ওরফে মিন্টু মাস্টার। অপর ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক হাবিবুর রহমান বলেন, পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় আমার ৬কাঠা জমির বোরো ফসলসহ গ্রামের বহু কৃষকের জমির ফসল তলিয়ে যাচ্ছে। আমরা নিরুপায় হয়ে প্রশাসনের নিকট অভিযোগ দাখিল করেছি, প্রশাসন যদি এ বিষয়ে দ্রæত ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে আমাদের ফসল নষ্ট হয়ে যাবে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা না খেয়ে থাকবে।
উপস্থিত এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রভাবশালী এই মিন্টু মাস্টার প্রতি বছরই এভাবে পানি নিষ্কাশন একমাত্র কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দিয়ে সে মৎস চাষ করে।  
অভিযুক্ত মোফাজ্জল হোসেন মিন্টু মাস্টার বলেন, সাময়িক সময়ের জন্য আমি কালভার্টির মুখ বন্ধ করেছি। আজ-কালের মধ্যেই খুলে দিব। এ ব্যাপারে পত্র-পত্রিকায় লেখা-লেখির দরকার নাই।   
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ফজলুল হক মাখনের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তাঁর মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার লীরা তরফদার বলেন, অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।