demo
Times24.net
ইতিহাস গড়ে শিরোপা জিতল বাংলাদেশের মেয়েরা
Sunday, 10 Jun 2018 19:49 pm
Times24.net

Times24.net


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: প্রথমবারের মতো শিরোপার লড়াইয়ে মাঠে নামা। বাংলাদেশের মেয়েরা বোধহয় এমন স্বপ্ন দীর্ঘদিন ধরে দেখছিল। সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। একই সঙ্গে পূরণ হয়েছে শিরোপা জয়েরও। নানান জটিলতা, অবহেলা পেতে থাকা বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলই এবার প্রমাণ করল, প্রয়োজন ছিল কেবল একটুখানি পরিচর্যার। তাতেই সফলতা আজলা ভরে এলো। মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে শক্তিশালী ভারতকে হারাল ৩ উইকেটে। জিতল এশিয়া কাপের শিরোপা। এই বাংলাদেশকেই অতীতে একাধিকবার হেসে-খেলে হারিয়েছে মিতালি রাজের ভারত দল। কিন্তু এশিয়া কাপের এবারের আসরে মুদ্রার ওপিঠ দেখলো ভারত। পাকিস্তান, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডকে হারানোর পাশাপাশি ভারতকেও হারিয়েছে তারা। যদিও আসরের শুরুতেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হারে বাংলাদেশের মেয়েরা। ফাইনালে ওঠা স্বাগতিক মালয়েশিয়াকে হারানোর মধ্য দিয়ে।
প্রথম ফাইনাল। আসরের শুরুতে হয়তো বাড়তি প্রত্যাশা ছিল না দলটির বিপক্ষে। কারণ কদিন আগেই দক্ষিণ আফ্রিকায় পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়ে ফিরেছেন সালমা-রুমানারা। কিন্তু নিজেদের মধ্যেই হয়তো ঘুরে দাঁড়ানোর শক্তিটা তৈরি করেছিল মেয়েরা। যার ফলাফল মিলল এশিয়া কাপের শিরোপা জয়ের মধ্যে দিয়ে।
রবিবার কুয়ালালামপুরে নির্ধারিত ২০ ওভারে বাংলাদেশকে ১১৩ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় ভারত। জবাবে শুরু থেকেই সতর্ক বাংলাদেশ। দুই ওপেনার শামিমা সুলতানা ও আয়শা রহমানের ব্যাটে আসে ৩৫ রান। একই রানে আউট হন দুই ওপেনার। দ্বিতীয় উইকেট বাংলাদেশ হারায় ৫৫ রানের মাথায়। সেখান থেকে ১১০ রান তুলতে গিয়ে সবমিলিয়ে ৬ উইকেট হারিয়ে বসে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।


শেষ ২ বলে যখন প্রয়োজন ৩ রান তখনই কৃষ্ণামূর্তির বলে আউট হন সানদিজা ইসলাম। পরের বলে ডাবল নিতে গিয়ে রান আউটের কবলে পড়েন রুমানা আহমেদ। শেষ ১ বলে ২ রান প্রয়োজন ছিল। কৃষ্ণামূর্তির বলটি লেগসাইডে ঠেলে দিয়ে ২ রানই পূর্ণ করেন নতুন ব্যাটসম্যান জাহানারা ইসলাম। শেষ বলের এই জয় দিয়ে বাংলাদেশ ৩ উইকেটে ভারতকে হারায়। দলের পক্ষে ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ ২৭ রান করেন নিগার সুলতানা। বল হাতে ৪ উইকেট নিয়েছেন পুনম যাদব।
এর আগে টস জিতে ভারতকে আগে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানায় বাংলাদেশ। ব্যাটে নেমে ইনিংসের শুরুটা দেখে-শুনেই করেছিলেন ভারতের দুই ওপেনার মিতালি রাজ ও স্মৃতি মান্ধানা। তবে ইনিংসের চতুর্থ ওভারে ঘটে ছন্দপতন। শামিমা সুলতানার দুর্দান্ত থ্রোতে রান আউটের শিকার হন স্মৃতি। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে ভারত।
একে একে ফিরে যান দীপ্তি শর্মা (৪), অধিনায়ক মিতালি রাজ (১১)। ইনিংসের নবম ওভারে ‘অবস্ট্রাক্টিং ফিল্ডে’র দায়ে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন অনুজা পাতিলও। এরপর অবশ্য কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করেন ভেদা কৃষ্ণমূর্তি ও হারমানপ্রিত কৌর। অবশ্য ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার আগেই ভেদাকে (১১) ফিরিয়ে দেন সালমা। পরের ওভারে পরপর দুই বলে তানিয়া ভাটিয়া ও শিকা পান্ডেকে সাজঘরে ফেরান লেগস্পিনার রুমানা। তবে এক প্রান্তে নিয়মিত উইকেট হারালেও আরেক প্রান্ত ঠিকই আগলে রেখেছিলেন হারমানপ্রিত। সাত চারে মাত্র ৩৯ বলেই হারমানপ্রিত তুলে নেন হাফ সেঞ্চুরি।
ইনিংসের শেষ বলে খাদিজার বলে জাহানারার হাতে ধরা পড়েন ৫৬ রান করা হারমানপ্রিত। এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের ব্যাটে ভর করেই নির্ধারিত ২০ ওভারে নয় উইকেট হারিয়ে ১১২ রানের সংগ্রহ দাঁড় করায় ভারত। বাংলাদেশের হয়ে রুমানা ও খাদিজা নেন দুটি উইকেট। এ ছাড়া সালমা, জাহানারা ও ফাহিমা নেন একটি করে উইকেট।
কদিন আগেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়ে দেশে ফেরে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। ওই বিভীষিকাময় সিরিজের কথা ভুলে প্রস্তুতি নেয় নারী এশিয়া কাপের। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের এই টুর্নামেন্ট খেলতে দেশ ছাড়ার আগে অবশ্য বাংলাদেশ অধিনায় সালমা খাতুন জানিয়েছিলেন, ফাইনাল খেলার লক্ষ্য নিয়েই মালয়েশিয়া যাচ্ছেন তারা।
যদিও বাংলাদেশের এশিয়া কাপ শুরু হয়েছিল শ্রীলংকার বিপক্ষে বিব্রতকর এক হার দিয়ে। তবে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে পাকিস্তানকে সাত উইকেটে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। পরের ম্যাচে শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে ইতিহাস গড়া জয় পায় বাংলাদেশ। নিজেদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ ১৪২ রান করে ভারতীয় নারীদের সাত উইকেটে হারান সালমা-রুমানারা।চতুর্থ ম্যাচেও তুলনামূলক দুর্বল থাইল্যান্ডের বিপক্ষে নয় উইকেটের জয় তুলে নিলে ফাইনালের পথে অনেকটাই এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। আর গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে মালয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।
সূত্র: প্রিয় ডটকম।