শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Wednesday, 21 Aug, 2019 06:58:22 pm
No icon No icon No icon

র‌্যাবের অভিযানে উত্তর বাড্ডা হতে জেএমবি’র ৪ সদস্যকে গ্রেফতার

//

র‌্যাবের অভিযানে উত্তর বাড্ডা হতে জেএমবি’র ৪ সদস্যকে গ্রেফতার


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। র‌্যাবের তৎপরতার কারনেই সারাদেশে একযোগে বোমা বিস্ফোরণসহ বিভিন্ন সময়ে নাশকতা সৃষ্টিকারী জঙ্গি সংগঠন সমূহের শীর্ষ নেতা থেকে বিভিন্ন স্তরের সদস্যদেরকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা সম্ভবপর হয়েছে। এছাড়াও হলি আর্টিজান জঙ্গি হামলার ঘটনায় দ্রুততম সময়ে সাড়া দিয়ে প্রাথমিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের মাধ্যমে মূল অভিযানের ক্ষেত্র তৈরীতে বিশেষ ভূমিকা রেখে র‌্যাব সর্বমহলে প্রসংশীত হয়েছে। পরবর্তীতে র‌্যাব অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে সমন্বয় রেখে ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং জড়িত জঙ্গি সদস্যদের আইনের আওতায় আনতে কার্যকরী উদ্যোগ অব্যাহত রাখে। উল্লে¬খ্য যে, র‌্যাবসহ সকল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জঙ্গি বিরোধী সাঁড়াশী অভিযানের ফলে জঙ্গি সংগঠন গুলো পূর্বের মতো নাশকতা সৃষ্টি করার সক্ষমতা না থাকলেও, বিভিন্ন সময়ে বিচ্ছিন্নভাবে নাশকতা সৃষ্টি করতে গিয়ে অনেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিকট নিহত ও গ্রেফতার হয় এবং অনেক জঙ্গি সদস্য আত্মগোপনে চলে যায়। 
র‌্যাব-১ এর বিভিন্ন সময়ে গ্রেফতারকৃত জঙ্গিদের প্রদত্ত তথ্য উপাত্ত ও বিভিন্ন অভিযানে প্রাপ্ত আলামত বিশ্লেষণ এবং সাইবার পেট্রোলিং এর মাধ্যমে র‌্যাব ছায়াতদন্ত ও গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করে। 
এরই ধারাবাহিকতায় অদ্য ২১ আগস্ট ২০১৯ ইং তারিখ আনুমানিক ০০৩০ ঘটিকায় র‌্যাব-১ এর একটি আভিযানিক দল গোয়েন্দা সূত্রে জানতে পারে যে, রাজধানীর বাড্ডা থানাধীন উত্তর বাড্ডা এলাকায় সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহেদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) এর কতিপয় সক্রিয় সদস্য নাশকতা পরিকল্পনার উদ্দেশ্যে একত্রিত হয়েছে। প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে আভিযানিক দলটি বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালানা করে জেএমবি‘র সক্রিয় সদস্য ১) মোঃ রফিকুল ইসলাম @ ইউসুফ (২৮), পিতা- মৃত আইনউদ্দীন মাতুব্বর, জেলা- ফরিদপুর, ২) মোঃ আলমগীর হোসেন (৩০), পিতা- মোঃ রুহুল আমিন, জেলা- কুমিল্লা, ৩) মোঃ মহিদুল ইসলাম @ সাইফুল্লাহ (২২), পিতা- আবদুল্লাহ, জেলা- বাগেরহাট এবং ৪) মোঃ হারুন-অর-রশিদ (২৮), পিতা- মোঃ আব্দুস সালাম, জেলা- ঢাকা’দেরকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় ধৃত আসামীদের নিকট হতে জঙ্গি কার্যক্রমে উদ্বুদ্ধ করনের ০৭ টি বই, ০১ টি ম্যাগাজিন, ০১ টি নোটবুক, ০২ টি ল্যাপটপ, ০১ টি কি বোর্ড, ০৭ টি মোবাইল ফোন, ১৫ টি সিমকার্ড এবং নগদ ২,৯০০/- টাকা উদ্ধার করা হয়।
ধৃত আসামী রফিকুল ইসলাম @ ইউসুফ’কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে ১৯৯২ সালে ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করে। সে ২০০৭ সালে হাফেজী পাশ করে। এরপর সে ২০০৯ সালে দাশেরহাটি কওমী মাদ্রাসা হতে শুনানী শেষ করে। সে ২০১১ সাল হতে বিভিন্ন মাদ্রাসায় হেফজ শিক্ষক হিসেবে চাকুরী করেছে। রাজীব নামের একজন জেএমবি সদস্যের সাথে তার ঘনিষ্ঠতার সূত্রে জঙ্গিবাদের সাথে জড়িত হয়। তারা নাশকতা পরিকল্পনার উদ্দেশ্যে নাঈম, রাসেল, ইমন, রায়হান, জহিরসহ আরও ২/৩ জন জঙ্গি সদস্য একত্রে টঙ্গী কলেজ গেইট এলাকায় একটি বাসা ভাড়া নেয়। মাসখানেক সেখানে অবস্থান করার পর নিরাপত্তার স্বার্থে বাসা পরিবর্তন করে সাইনবোর্ড এলাকায় নতুন বাসা নেয়। তার মাধ্যমে বেশ কয়েকজন জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হয়েছে।
ধৃত আসামী মোঃ আলমগীর হোসেন’কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে ১৯৯০ সালে কুমিল্লা জেলার লাঙ্গলকোট থানাধীন মাঝিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করে। সে ২০০৩ সালে হাফেজি পাশ করে এবং ২০১০ সালে মুফতি পাশ করে। এরপর ২০১১ সালে দাওয়ারা হাদিস পাশ করে। তারপর সে বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসায় ইমাম ও খতিব হিসেবে কিছুদিন দায়িত্ব পালন করে। ২০১১-১২ সালে মুফতি জসিম উদ্দিন রহমানির মাদ্রাসায় পড়াশুনা ও চাকুরীকালীন সময়ে উগ্রবাদীতায় আকৃষ্ট হয়। পরবর্তীতে মুফতি জসিম উদ্দিন রহমানি গ্রেফতার হলে ধৃত আসামী আলমগীর হোসেন আত্মগোপনে চলে যায়। এরপর ২০১৪ সালে আসামী রফিকুল ইসলাম @ ইউসুফ এর সাথে পরিচয়ের সূত্রে জেএমবিতে অর্ন্তভূক্ত হয়। অতঃপর অপরাপর সদস্যদের সাথে সংগঠনের বিভিন্ন বিষয়ে পরিকল্পনা এবং দাওয়াতের কাজ পরিচালনা করত। 
ধৃত আসামী মহিদুল ইসলাম @ সাইফুল্লাহ’কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে ১৯৯৬ সালে বাগেরহাট জেলায় জন্মগ্রহণ করে। সে ৫ম শ্রেণীর পর আর পড়াশুনা করেনি। ধৃত আসামী আলমগীর ও রফিকুলের সাথে পরিচয় ও সখ্যতার মাধ্যমে সে জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পরে এবং সংগঠনের কার্যক্রমে নিয়মিতভাবে অংশগ্রহণ করে।
ধৃত আসামী হারুন-অর-রশিদ’কে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে ১৯৯১ সালে ঢাকা জেলায় জন্মগ্রহণ করে। সে ২০০৮ সালে হাফেজী পাশ করে। এরপর সে ২০১৭ সালে মাওলানা পাশ করে। সে ২০১৮ সালের শেষের দিকে ঢাকায় একটি আর্য়ুবেদিক ঔষধ কোম্পানীতে চাকুরী নেয়। পরবর্তীতে ২০১৯ সালে আলমগীর ও রফিকুলের সাথে তার পরিচয় হয়। তাদের মাধ্যমে সে জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পরে এবং সংগঠনের কার্যক্রমে নিয়মিতভাবে অংশগ্রহণ করে।

 

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK