রবিবার, ২৫ আগস্ট ২০১৯
Monday, 10 Jun, 2019 12:20:37 am
No icon No icon No icon

ব্যাটে, বলে অস্ট্রেলিয়াকে মাত করে বিশ্বকাপে দুইয়ে দুই ভারতের

//

ব্যাটে, বলে অস্ট্রেলিয়াকে মাত করে বিশ্বকাপে দুইয়ে দুই ভারতের


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ম্যাচেও সহজ জয় পেল টিম ইন্ডিয়া। ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে ৩৬ রানে হারাল বিরাট অ্যান্ড কোং। প্রথমে ব্যাট করে ভারতের ৩৫২ রান তাড়া করে জিতলে বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে জেতার নজির গড়তেই পারত ফিঞ্চ বাহিনী। কিন্তু ভারতের ব্যাটে, বলে অলরাউন্ড পারফরম্যান্সের জেরে সেই রেকর্ড অধরাই থেকে গেল অস্ট্রেলিয়ার কাছে।
প্রথম ম্যাচে টস ভাগ্য সঙ্গ দেয়নি কোহলির। কিন্তু এদিন টসে জিতে ব্যাট ধরেন অধিনায়ক। গত ম্যাচের মতো এ ম্যাচেও দল অপরিবর্তিত রেখেছিলেন কোহলি। প্রোটিয়াদের সঙ্গে শতরান করে মাঠ ছেড়েছিলেন রোহিত। তুলনায় ধাওয়ান হতাশ করেছিলেন। এদিন ক্যাঙ্গারুদের সামনে জ্বলে ওঠে ওপেনিং জুটি। রোহিত ও ধাওয়ান মিলে ১০০ রানের পার্টনারশিপ করার পরই বোঝা যায়। বড় লক্ষ্যের দিকে এগোচ্ছে ভারত। রোহিত ৫৭ রানের স্কোরে সাজঘরে ফিরলেন ১১৭ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন ধাওয়ান। যদিও আঙুলে চোট পাওয়ায় ফিল্ডিং করতে নামতে পারেননি তিনি। তবে দ্বিতীয় উইকেট পড়ার পর এদিন রাহুলের জায়গায় হার্দিক পান্ডিয়াকে নামিয়ে ফাটকা খেলেন কোহলি। সৌভাগ্যবশত সেটা কাজেও লেগে যায়।
চার নম্বরে ব্যাট করতে নেমে ওভালে কার্যত ঝড় তোলেন হার্দিক। মাত্র ২৭ বলে ৪৮ রান করে নিজের কাজটা ভালভাবে করে দেন তিনি। তবে এদিনের ইনিংসে আলাদা করে কথা বলতে হচ্ছে ক্যাপ্টেন কোহলিকে নিয়ে। ক্রিজে আসার পর থেকে এদিন খুব একটা স্বচ্ছন্দ ছিলেন না তিনি। ব্যাট করছিলেন ধাওয়ানের ছায়াতেই। কিন্তু ধাওয়ান ফিরতেই কামান নিজের হাতে তুলে নেন কোহলি। হার্দিকের সঙ্গে জুটি বেঁধে একধাক্কায় ৬ ওভার প্রতি রানরেট পার করে দেন। ইনিংস শেষ হওয়ার মাত্র ১ বল বাকি থাকতে ৮২ রানে আউট হন অধিনায়ক। তৃতীয় উইকেট পড়ার পর ব্যাট হাঁতে ক্রিজে আসেন ধোনি। প্রায় ২০০-র স্ট্রাইকরেটে মাত্র ১৪ বলে ২৭ রান করে আউট হন ধোনি। ৫০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৫২ রান তোলে ভারত। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে দুটি উইকেট নেন মার্কাস স্টয়নিস। একটি করে উইকেট কামিন্স, স্টার্ক ও কুল্টার-নাইলের।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ভারতের মতই ধীর অথচ নির্ভরযোগ্য ওপেনিং পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন দুই অজি ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ ও ডেভিড ওয়ার্নার। দুজনে মিলে ৬১ রানের পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন। ব্যক্তিগত ৩৬ রানে ফিঞ্চ ফিরে গেলেও টিকে থাকেন ওয়ার্নার। কিন্তু আজকে তাঁর ইনিংস একেবারেই ঝাঁজহীন। ৮৪ বলে ৫৬ রানের টেস্টসুলভ ইনিংস খেলেন ডেভিড। ফলে হু-হু করে বাড়তে থাকে আস্কিং রেট। চাপ বাড়তে থাকে অজি ব্যাটিং লাইন আপে। একটা সময় ৬০ বলে জেতার জন্য ১১৫ রান দরকার ছিল ফিঞ্চ বাহিনীর। পাহাড় প্রমাণ আস্কিং রেটের চাপ সামলাতে না পেরে ফিরে যান স্মিথ (৬৯), খোয়াজা (৪২), ম্যাক্সওয়েল (২৮), স্টয়নিসরা (০)। এমনটা নয় যে রানের নিরিখে ভারতের থেকে খুব একটা পিছিয়ে ছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু ভারতের হয়ে যে কাজটা ধোনি বা পান্ডিয়া করেছিলেন, সেই পিঞ্চ হিটিং করার লোকের অভাব বড্ড বোধ করছিল অজি ব্যাটিং লাইন আপ। পাশাপাশি, ওভালের উইকেট খুব বেশি বোলিং সহায়ক না হলেও বুমরাহ, ভুবিদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং কখনই ম্যাচের রাশ আলগা হতে দেয়নি ভারতের হাত থেকে। যদিও ২৫ বলে চলতি বিশ্বকাপের দ্রুততম হাফসেঞ্চুরি করে একটা চেষ্টা করেছিলেন অ্যালেক্স ক্যারি (৫৫*), কিন্তু তাতেও শেষরক্ষা হয়নি। শেষমেশ ৩১৬ রান করেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় ক্যাঙ্গারু বাহিনীকে। তিনটি করে উইকেট নেন ভুবি ও বুমরাহ। দুটি উইকেট চাহালের।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK