শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮
Monday, 04 Jun, 2018 10:13:19 am
No icon No icon No icon

আফগান শাসনে তটস্থ বাংলাদেশ


আফগান শাসনে তটস্থ বাংলাদেশ


 টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকাধ এই আফগানিস্তান টি-টোয়েন্টিতে ভয়ঙ্কর-ক্রিকেটপাড়ার সবখানেই এমন আলোচনা ছিল। বিশেষ করে তাদের দুই স্পিনার রশিদ খান-মুজিব উর রহমানকে নিয়ে আলোচনা ছিল তুঙ্গে। এই দুই বোলারের ব্যাপারে অতি সাবধানী না থেকে বাংলাদেশের উপায়ও ছিল না। শেষ পর্যন্ত এই দুজনই কাল হলো। বল হাতে শুরু করে দিলেন মুজিব, মাঝে ম্যাচসেরা রশিদের ম্যাজিক। সাথে থাকলেন মোহাম্মদ নবী-শাপুর জাদরানরাও। তাতে দিক হারিয়ে বাংলাদেশ ম্যাচ হারল ৪৫ রানে। টি-টোয়েন্টিতে আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রথম হারের স্বাদ নিল বাংলাদেশ। এর আগের একমাত্র সাক্ষাতে জয় মিললেও এবার আফগানদের শাসন মেনে নিতে হলো বাংলাদেশকে।
রবিবার রাতে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে দেরাদুনের রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে আফগানিস্তানকে ব্যাটিংয়ে পাঠান বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। মোহাম্মদ শাহজাদ, সামিউল্লাহ শেনওয়ারি ও শফিকুল্লাহর ব্যাটিংয়ে আট উইকেটে ১৬৭ রান তোলে আফগানিস্তান। জবাবে ১২২ রানেই থেমে যায় বাংলাদেশের ইনিংস।১৬৮ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুতেই হোঁচট। প্রথম বলেই সাজঘরে ওপেনার তামিম ইকবাল। তরুণ আফগান স্পিনার মুজিব উর রহমানের ডেলিভারি বুঝতেই পারেননি তামিম। এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে বিদায় নেন বাংলাদেশ ওপেনার।শুরুর ধকল কাটিয়ে তুলতে লিটন কুমার দাসের সঙ্গে যোগ দেন সাকিব। যদিও উইকেটে নিজেকে বেশি সময়ের জন্য স্থির রাখতে পারেননি তিনি।

১৫ বলে ১৫ রান করে থামেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। লিটনের সঙ্গে জুটি বেঁধে মুশফিকুর রহিম ভালো কিছুর ইঙ্গিতই দিচ্ছিলেন। কিন্তু ৩০ রান করা লিটনকে থামিয়ে সেটা হতে দেননি মোহাম্মদ নবী। আর ১১তম ওভারে গিয়ে তাণ্ডব চালান টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ের সেরা বোলার রশিদ খান। পরপর দুই বলে ফিরিয়ে দেন মুশফিক ও সাব্বির রহমানকে। ৭৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে তখনই হারের শঙ্কায় পড়ে যায় বাংলাদেশ।   

এরপর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে সঙ্গে চেষ্টা চালিয়েছেন অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। কিন্তু জয়ের কাছেও পৌঁছাতে পারেননি তারা। মোসাদ্দেক ১৪ ও মাহমুদউল্লাহ ২৯ রান করেন। শেষের দিকে গিয়ে আফগানদের রাজত্ব আরও ভালোভাবে ফুটিয়ে তোলে পেসার শাপুর জাদরান। বোল্ড করে রুবেল হোসেনকে সাজঘরে পাঠানো শাপুর স্টাম্প দেুই টুকরো করে ফেলেন।

রশিদ ১৩ রান খরচায় তিনটি উইকেট নেন। এ ছাড়া শাপুর তিনটি ও নবী দুটি উইকেট নেন। মুজিব পান একটি উইকেট।

এর আগে বল হাতে শুরুতেই আফগানদের ওপর চড়ে বসতে চেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। এ জন্য প্রথম ছয় ওভারের মধ্যে চারজন বোলার ব্যবহার করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের এই চেষ্টা অবশ্য কাজে আসেনি। আফগানিস্তানের দুই ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ ও উসমান গনি প্রথম ছয় ওভারে দলের স্কোরকার্ডে ৪৪ রান যোগ করে নেন।

নবম ওভারে গিয়ে এই জুটি ভাঙেন পেসার রুবেল হোসেন। উপড়ে নেন উসমান গনির স্টাম্প। এরপরই যেন পথ খুঁজে পান বাংলাদেশের বোলাররা।

১২তম ওভারের শেষ বলে ৪০ রান করা শাহজাদকে ফিরিয়ে দেন সাকিব। ১৪তম ওভারে আফগানদের আরও ভালোভাবে চেপে ধরেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। দুই বলের ব্যবধানে নাজিবুল্লাহ জাদরান ও মোহাম্মদ নবীকে সাজঘর দেখিয়ে দেন ডানহাতি এই অলরাউন্ডার।

ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশের হাতেই। তখন মনে হচ্ছিল, ১৩০ রানও হয়তো পেরোতে পারতে পারবে না আফগানিস্তান। কিন্তু ম্যাচের আসল পর্ব তখনো বাকি। ১৮তম ওভারে টর্নেডো বইয়ে দেন সামিউল্লাহ শেনওয়ারি। আবু জায়েদ রাহির করা ওভার থেকে ২০ রান তুলে নেন ডানহাতি এই অলরাউন্ডার। ১৮ বলে তিনটি চার ও তিনটি ছক্কায় ৩৬ রান করেন সামিউল্লাহ।

১৯তম ওভারটি রুবেল ১৩ রানের মধ্যে শেষ করলেও ইনিংসের শেষ ছয় বলে আবারও আফগানদের ঝড়। শেষ ওভারে আবুল হাসান রাজু দুটি উইকেট পেলেও তাকে ১৯ রান গুনতে হয়। মাত্র আট বলে একটি চার ও তিনটি ছক্কায় ২৪ রান করেন উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান।

সাকিব, মাহমুদউল্লাহ ও মোসাদ্দেক ছাড়া বাকিরা খরুচে ছিলেন। আবুল হাসান তিন ওভারেই ৪০ রান খরচ করেছেন। চার ওভারে রাহির খরচ ৪৩ রান। নাজমুল অপু ও রুবেলও রান খরচা করেছেন ৮ ইকোনমিতে।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK