রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮
Saturday, 03 Nov, 2018 12:22:41 pm
No icon No icon No icon

যে দেশে বিচারে ধর্ষিতার হয় জেল!


যে দেশে বিচারে ধর্ষিতার হয় জেল!


টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: শুনে অবাক হবেন যে, পৃথিবীতে এমন একটি দেশ আছে যেখানে ধর্ষণের শিকার নারী বিচার চাইলে জেলে যেতে হয়। দেশটির একটি শহরে ২০১৬ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যেই অন্তত ৫০ জন নারীর কারাদণ্ড হয়েছে৷ তাদের বেশিরভাগ নারীই ধর্ষণের শিকার৷ এই ঘটনা ঘটছে আফ্রিকার দেশ মৌরিতানিয়ায়। উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকার মরুভূমির মাঝে অবস্থিত দেশ মৌরিতানিয়া শরিয়া আইনে চলা একটি ইসলামী প্রজাতন্ত্র৷ অনেক ইসলামি রাষ্ট্রের মতো ধর্ষণের শাস্তি সেখানে মৃত্যুদণ্ড না হলেও সেখানকার আইন এখনো নারীবান্ধব নয় ৷ সেদেশে বিবাহবহির্ভূত যৌন সম্পর্ক অবৈধ ৷ ফলে ধর্ষণের শিকার হলে নারীকে সবার আগে প্রমাণ করতে হয় যে যৌন সম্পর্কটি অনিচ্ছাকৃত ছিল৷ তা প্রমাণ করা সব সময়ই কঠিন৷ এ কারণে ধর্ষকের শাস্তি হোক না হোক বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কের কারণে ধর্ষিতার শাস্তি অবধারিত৷
ফলে, বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ধর্ষিত নারীকেই কারাভোগ করতে দেখা যায়৷ যেসব ক্ষেত্রে তাঁরা প্রমাণ করতে পারেন যে, তাঁদের সাথে জোর খাটানো হয়েছে, কেবল সেখানেই রেহাই পান নারীরা৷
পরিসংখ্যান বলছে, মৌরিতানিয়ার নারী কয়েদিদের ৪০ শতাংশেরও বেশি কয়েদির মূল অপরাধ বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্ক বা ‘জিনা`৷ নোয়াকচোট শহরে ২০১৬ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যেই অন্তত ৫০ জন নারীর কারাদণ্ড হয়েছে৷ আশ্চর্যের বিষয়, বেশিরভাগ নারীই ধর্ষণের শিকার৷
আইনে ফাঁক রয়ে যাওয়ার কারণে খুব সহজেই ধর্ষনকে ‘জিনা` বলে চালিয়ে দেওয়া যায় বলে মনে করে মৌরিতানিয়ার বিভিন্ন নারী অধিকার সংগঠন৷
২৬ বছর বয়সি খাদি একজন ভুক্তভোগী৷ ধর্ষণের পর তিনি লোকলজ্জার ভয়ে কাউকে বলতে পারেননি৷ কিন্তু অন্ত:স্বত্ত্বা হওয়ার পর বিষয়টা জানাজানি হয়ে যায়৷ একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন তিনি৷
বিবাহ বহির্ভূত যৌন সম্পর্কের দায়ে হাজতবাস করতে হলেও প্রগতিশীল আইনজীবীদের সহায়তায় ছাড়া পান খাদি৷ কিন্তু সবার ভাগ্য এক রকম হয় না৷ মৌরিতানিয়ায় পুরুষদেরও ‘জিনা`-র দায়ে কারাদণ্ড হয়৷ কিন্তু তাদের ক্ষেত্রে কারাবাসের সময় হয় মেয়েদের তুলনায় কম৷

সূত্র: ডয়েচে ভেলে।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK