সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮
Tuesday, 09 Oct, 2018 09:12:32 pm
No icon No icon No icon

ভিমরুলের পরিচয় বিপদ ও উপকার


ভিমরুলের পরিচয় বিপদ ও উপকার

 কাওসার সাদিক, স্টাফ রিপোর্টার, টাইমস২৪ ডটনেট, ঢাকা: ভীমরুল হলো বোলতার মতো এক প্রকারের পতঙ্গ। কিছু কিছু প্রজাতির ভীমরুল দৈর্ঘ্যে ৫৫ মিমি. পর্যন্ত হতে পারে। ভীমরুল জাতীয় পতঙ্গরা Vespa গণের অন্তর্গত। শ্রেণীবিভাগের ব্যাপারে স্পষ্ট আলাদা হলেও ভীমরুল ও বোলতার মধ্যে পার্থক্য করা অনেক সময় মুশ্কিল হতে পারে। সাধারণত বোলতারা হলুদ ও ছোট হয়। ভীমরুল বড় ও এর অনেকটাই কালো তবে পিঠে হুলুদ সাগ থাকতে পারে।বোলতা দেখতে অনেকটা মৌমাছির মতো দেখতে হলেও বোলতা চরিত্র বৈশিষ্টে মৌমাছির থেকে অনেকটাই আলাদা। প্রকৃতির সৌন্দর্যবর্ধনকারী ভিমরুল চলে গেছে বিলুপ্তির তালিকায়। লোকচক্ষুর আড়ালে থাকা ভিমরুল বাসা থেকে বের হয়ে দলবেঁধে ভোঁ ভোঁ শব্দ করে উড়ে বেড়ায়। আবার কোথা থেকে উড়ে এসে নিজের তৈরি বাসার ছিদ্র দিয়ে ভেতরে নিরাপদ আশ্রয়ে ঢোকে। অন্য প্রাণিকুল ভিমরুলের আস্তানায় হামলা করার সাহস না পেলেও দিনে দিনে এটির দেখা মেলা ভার । ভিমরুল কামড়ালে তাত্ক্ষণিক ব্যথা উপসমের জন্য কি ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে, চলুন তা জেনে নেই। ভিমরুল কামড়ালে আক্রান্ত জায়গা ফুলে যায় স্বাভাবিক এর তুলনায় অনেকগুনে (কীট কর্তৃক বিষ প্রবেশ করানোর উপর নির্ভর করে) এবং ব্যথা হয় অসহনীয়। অনেকই কেরোসিন, তেল, পিয়াজের রস, শিম পাতার রস ব্যবহার করে থাকেন যদিও এটা ততটা ফলপ্রসূ হয় না। তবে উপায় একটা আছে। চলুন জেনে নেই কিভাবে সহজে ব্যাথা তাড়ানো সম্ভব: মৌমাছি, বোলতা অথবা ভিমরুল কামড়েছে আর তার স্মৃতি ভুলে গেছে এমন মানুষ বিরল। এর এরকম তিক্ত অভিজ্ঞতা যদি কেউ পেয়ে থাকেন তা থেকে মধু ব্যবহারে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। দ্রুত কামড়ের জায়গা কাপড় কাচা সাবান (খার জাতীয়) দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। এবার মধু লাগিয়ে হালকা মালিশ করুন, তার পর কিছু অ্যান্টিহিস্টামিনিক (Antihistaminic) ঔষধ ব্যবহার করুন। যেমন: এলাট্রল, নাপা, হিস্টাসিন ইত্যাদি। মৌমাছি কামড়ালে সাথে সাথে সেই জায়গায় পেঁয়াজের রস ঘষে দিন। চিমটাজাতীয় জিনিস দিয়ে মৌমাছির হুলটা তুলে ফেলে দিন এবং সার্জিকাল স্পিরিট লাগিয়ে নিন। বোলতা কামড় দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে জায়গাটা বেশ জ্বালা করে এবং ফুলে যায়। তাই প্রচুর পরিমাণে পানি দিয়ে আক্রান্ত জায়গা ধুয়ে ফেলতে হবে। বরফ ঘষে দিন। এরপর ক্যালামাইন লোশন লাগান। বেকিং পাউডার পানি দিয়ে পেস্ট করে লাগালেও আরাম পাবেন। ব্যথা কমে যাবে তবে ফোলা কমতে ২-৩ দিন সময় লাগবে। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ইনফ্লামেশন কমানোর জন্য শিরাপথে ডেক্সামিথাসন বা হাইড্রোকর্টিসন ব্যাবহার করতে পারেন ।এনাফাইল্যাটিক রিয়াকসান বা হাইপারসেনসিটিভিটির কথা মাথায় রেখে পেশীতে এন্টিহিস্টামিন ইনজেকসন ব্যাবহার করতে পারেন । আশা করি মনে রেখে সময় মত কাজে লাগাবেন।

বোলতা নিয়ে যতই মজার কাহিনী থাক না কেন আসলে এই বোলতা কিন্তু অত্যন্ত ভয়ানক একটি কীট। একবার হুল ফোঁটালে যে যন্ত্রণা সহ্য় করা মুখের কথা নয়। এছাড়াও চরম পর্যায়ের অ্য়ালার্জির সমস্যাও দেখা যায়।  আর সেই কারণেই বাড়ি বোলতা বা ভীমরূল মুক্ত করা একান্ত আবশ্যক। বোলতা দেখতে অনেকটা মৌমাছির মতো দেখতে হলেও বোলতা চরিত্র বৈশিষ্টে মৌমাছির থেকে অনেকটাই আলাদা। বোলতা তাড়ানোর জন্য কিছু সহজ ঘরোয়া টোটকা রয়েছে। যা সহজেই আপনার বাড়ি থেকে বোলতাদের দুর করবে।  পেপার স্প্রে : এক কাপ জলে ৬ টেবিলচামচ মরিচগুঁড়ো এবং ৩ টেবিলচামচ গুঁড়ো লঙ্কা মিশিয়ে কম করে ১৫ মিনিট ফুটতে দিন। এরপর এই জল স্প্রে বোতলে ভরে ভীমরুলের গায়ে স্প্রে করুন। পেঁয়াজের রস: পেঁয়াজের রসের সঙ্গে বেশি পরিমানে নুন মেশান। এই মিশ্রণটি বোলতার বাসায় ছড়িয়ে দিন। দ্রুত কাজ করবে।  লেবু ও বেকিং: সোডা লেবুর রস ও খাবার সোডা মিশিয়ে একটি মিশিরণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণ বোলতার বাসায় স্প্রে করে দিন। এতে বোলতা বাসার মধ্যেই মারা যাবে। ভিনিগার, চিনি ও সোডা: একটি বাটিতে ভিনিগার এবং চিনি একসঙ্গে মেশান। ভাল করে মেশান যতক্ষণ না চিনি ভিনিগারে পুরোপুরি মিশে যাচ্ছে। এবার এই মিশ্রণ স্প্রে বোতলে ভরে তাতে সোডা যোগ করুন। এই মিশ্রণটি বোলতার বাসায় ভাল করে ছিটিয়ে দিন। লেবুর রস ও ভিনিগার: লেবুর রস এবং ভিনিগার কোনওটাই বোলতার জন্য সুখকর নয়, আর যদি এই দুই উপকরণ একসঙ্গে মেলানো যায় তাহলে তো কথাই নেই।

ভিমরুলের এর ছবির ফলাফল

ভিমরুলের বাসা ভাঙ্গার বা ভিমরুল তাড়ানোর উপায়:
ভিমরুলের বাসা ভাঙ্গার সহজ উপায় হচ্ছে একটা বাঁশ এর মাথায় খড়কুটো বা অন্য কিছু বেঁধে তার মধ্যে আগুন দিয়ে ধোঁয়া সৃষ্টি করা
ধোঁয়ায় ভিমরুল বাসা  ছেড়ে পালাতে থাকে অচেতন হয়ে এইদিক সেইদিক ছোটাছুটি করে আর তাতে বাসা ভাঙ্গা সহজ হয়ে যায়।
বাজার থেকে ভিমরুল এর জন্য একটি স্পে নিয়ে যেতে পারেন। সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি হল দিনের আলোয় ভালোভাবে দেখে নিন বাসাটির কয়টা ছিদ্রি আছে এবং কোথায় কোথায় ।তারপর সন্ধা কালে একটা লাঠির মাথায় সুতি ন্যাকড়া পেঁচিয়ে তাতে কেরোসিন তেল দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে নিন ।কিন্তূ সাবধান অন্য কোথাও যেন আগুন না লাগে ।ভিমরুলের  বাসাটির ছিদ্রি বরাবর আগুন লাগান ।ভয় পাবেন না ।কোন সমস্যা হবে না । আগুনে পোড়ার পর কোন ভিমরুল আপনাকে আর কামরাতে পারবে না । তারপর ভিমরুল গুলোকে একত্র করে পুড়িয়ে ফেলুন । এদেরকে মায়া দেখাতে যাবেন না ,এরা ভয়ংকর পতঙ্গ । 

ক্যান্সার কোষ ধ্বংসে কার্যকর ভিমরুলের বিষ। ক্যান্সার কোষ ধ্বংসে কেমোথেরাপি সুপরিচিত চিকিত্সা পদ্ধতি। তবে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া প্রবলভাবে দেখা দেয়। এ সমস্যা নিরসনে ব্রাজিলের স্থানীয় একটি প্রজাতির ভিমরুলের বিষ কার্যকর উপায় হতে পারে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

দি ইউনিভার্সিটি অব ব্রাজিলের গবেষক দল বলছে, গবেষণাগারের পরীক্ষায় দেখা গেছে, ভিমরুলের বিষ ব্যবহারে টিউমার আক্রান্ত কোষ ধ্বংস হয়েছে, তবে সাধারণ কোষ কোনোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি। তবে এ গবেষণা প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে উল্লেখ করে তারা বলেছেন, মানবদেহে ব্যবহারের জন্য এ বিষয়ে আরো অনেক খতিয়ে দেখতে হবে।

ব্রাজিলের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে পলিবিয়া পাওলিস্টা নামের অত্যন্ত আক্রমণাত্মক ভিমরুল ব্যাপকভাবে দেখা যায়। এর কামড়ে শরীরে প্রচুর যন্ত্রণা হয় এবং স্থানীয় অধিবাসীরা এটিকে এড়িয়ে চলতেই পছন্দ করেন। তবে এ প্রাণীকে ইতিবাচক কাজে লাগানো সম্ভব হবে বলে বিজ্ঞানীরা আশা করছেন।

ভিমরুলটির বিষে রয়েছে এমপি১ নামের বিষাক্ত পদার্থ, যা অন্য প্রাণী শিকার করতে বা আত্মরক্ষায় ব্যবহার হয়। সাম্প্রতিক গবেষণায় ইঁদুরের ওপর ভিমরুলের বিষ প্রয়োগ করা হয় এবং তা ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করতে সমর্থ হয়।

ইউনিভার্সিটি অব লিডসের গবেষক ড. পল বেলস বলেন, এ গবেষণায় দেখা গেছে, ক্যান্সার থেরাপিতে কোষ ঝিল্লির লিপিড কম্পোজিশনকে আক্রমণ করে, যা সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধী ওষুধ। বর্তমানে ক্যান্সার চিকিত্সায় বহুমাত্রিক ওষুধ ব্যবহার হয়, যা শরীরের অন্যান্য অংশে প্রভাব ফেলে। তবে গবেষণার তথ্য নতুন ওষুধ উদ্ভাবনের পথ দেখাচ্ছে।

 

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK