শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮
Wednesday, 23 May, 2018 11:36:38 am
No icon No icon No icon

‘তুই চলে গেলে আমি আরেকটি বিয়ে করতে পারব’ শেষমেষ খুনই হলো গৃহবধূ!


‘তুই চলে গেলে আমি আরেকটি বিয়ে করতে পারব’ শেষমেষ খুনই হলো গৃহবধূ!


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: ‘তুই চলে গেলে আমি আরেকটি বিয়ে করতে পারব’ শেষমেষ খুনই হলো গৃহবধূ!  ‘তুই চলে গেলে আমি আরেকটি বিয়ে করতে পারব’ শেষমেষ খুনই হলো গৃহবধূ! তুই চলে গেলে – কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার কন্ঠনগর গ্রামে তিন সন্তানের জননী আয়েশা আক্তার (৩০) কে হত্যা করে ঘরের তীরের সাথে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে।  লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন বুড়িচং থানার পুলিশ।
মঙ্গলবার ভোর রাতে জেলার বুড়িচং উপজেলার ষোলনল ইউনিয়নের পয়াত গ্রামের আবদুল মান্নানের মেয়ে আয়েশা আক্তার কে স্বামীর বাড়িতে হত্যা করে ঘরের তীরের সাথে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ উঠেছে।
নিহতের বাবা আবদুল মান্নান অভিযোগ করে বলেন, ১৫ বছর পূর্বে আয়েশা আক্তার কে একই উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়নের কন্ঠনগর গ্রামের শরাফত আলীর ছেলে আমিনুল ইসলামের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করেন। বিবাহের পর তাদের কোল জুড়ে তিনটি ছেলে সন্তান জন্ম নেয়। এরপর থেকে স্বামী আমিনুল ইসলাম (৪০) ও শাশুড়ি মনু বেগম প্রায় সময়ই আয়েশা খাতুন কে শারীরিক নির্যাতন করতেন।
নির্যাতন করার সময় আমিনুল ইসলাম বলতেন ‘বাবার বাড়িতে চলে যা, তুই চলে গেলে আমি আরেকটি বিয়ে করতে পারব, তবুও তকে নিয়ে ঘর করতে চাই না।’ এ্ইভাবে হাউমাউ কান্না করে মেয়ের স্মৃতি কথন তুলে ধরে লাশের পাশে বসে বলছেন আবদুল মান্নান।
নিহতের চাচা জয়নাল আবেদীন বলেন, আমরা দুই গ্রামের সাহেব সর্দারকে নিয়ে কয়েকবার সমাধান করলেও তারা শান্ত হয়নি তাদের নির্যাতনের মাত্রা দিন দিন বেড়ে যাওয়াতে কুমিল্লা কোর্টে এবং থানাতে দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছিল। আয়েশা আক্তার তিন সন্তান ইসরাফিল, আকরাম, আতিকের মায়া শত নির্যাতন সহ্য করেও স্বামীর বাড়িতে থেকে যান। হঠাৎ মঙ্গলবার রাত আড়াইটার দিকে কল দিয়ে শ^শুড় বাড়ির লোকজন আবদুল মান্নানকে বলেন আপনার মেয়ে মারা গেছে লাশ নিয়ে যান। পরে স্থানীয় মেম্বার বাদল খাঁ কে অবগত করলে তিনি পুলিশ কে খবর দিলে এসআই পুষ্প বরণ চাকমা সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে একটি সুরত হাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
স্থানীয় মেম্বার বাহারুল ইসলাম জহির বলেন, ছেলেটা ইলেক্ট্রিক্যাল কাজ করে এ ঘটনাটি পত্রিকায় প্রকাশ করে তাকে বিপদে না ফেলার জন্য সাংবাদিক’কে মুঠোফোনে বারণ করেন।
বুড়িচং থানার ওসি মনোজ কুমার দে বলেন, আমরা লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেছি এবং ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত আমরা সঠিক বলতে পারছিনা। তবে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK