মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯
Monday, 29 Apr, 2019 01:17:29 am
No icon No icon No icon
চতুর্থ দফার নির্বাচন আজ

বিজেপির ভোটভাণ্ডারে মোদির ভাগ্য পরীক্ষা

//

বিজেপির ভোটভাণ্ডারে মোদির ভাগ্য পরীক্ষা


টাইমস ২৪ ডটনেট, ভারত: ভারতের শাসক দল বিজেপির ‘ওয়ান ম্যান আর্মি’ নরেন্দ্র মোদির ভোটভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত রাজ্যগুলোতে ভোট আজ। গোদুর্গ-খ্যাত রাজ্য উত্তরপ্রদেশ, বিহার, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, মহারাষ্ট্র ও ঝাড়খণ্ডে ‘মোদি ঝড়ের’ তাণ্ডব প্রায় শতভাগ সফল ছিল গতবার। ‘ভোট ঝড়ে’ নাকানিচুবানি খেয়েছিল বিরোধী শিবির। ২০১৪ সালের নির্বাচনে এসব রাজ্যের ৯০ শতাংশ আসন ছিল বিজেপির দখলে। সোমবার পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িষ্যায়ও ভোট। এ দুই রাজ্যে ধরাশয়ী বিজেপির সামনে এবার ঘুরে দাঁড়ানোর চ্যালেঞ্জ। বাংলায় মমতা ব্যানার্জির তৃণমূল কংগ্রেস ও ওড়িষ্যায় বিজু জনতা দলের (বিজেডি) অবস্থা রমরমা। চতুর্থ পর্বের এ ভোটে কংগ্রেস তো নামেমাত্র। অনেকটা, চূড়ান্ত দল থেকে বাদ পড়ে দর্শক হয়ে খেলা দেখার মতো। তবুও ক্ষমতাসীন বিজেপির কাছে এ পর্ব বেশ চ্যালেঞ্জের। কারণ, উত্তরপ্রদেশ, বিহার ও ঝাড়খণ্ডে বিরোধী জোট এবার গতবারের চেয়ে বেশি তাগড়া। হিন্দুবলয়ে নিজেদের আসন দখলে রাখার ভাগ্য পরীক্ষায় মোদি-অমিত সেনানীর চোখ থাকবে তাই ভোটের মাঠে।
চতুর্থ দফায় ভোট ৯ রাজ্যের ৭২ আসনে। প্রায় ১২ কোটি ৭৯ লাখ ভোটার ৯৬১ জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারণ করবেন। এ পর্বে ভোট হবে রাজস্থানের ১৩, মহারাষ্ট্রের ১৭, বিহারের ৫ ও ঝাড়খণ্ডের তিনটি আসনে। এই ৩৮ আসনের প্রতিটিই রয়েছে বিজেপি ও তার শরিক দলের কব্জায়। মধ্যপ্রদেশের ছয় আসনের মধ্যে একটি আসন (ছিন্দওয়ারা) কংগ্রেসের দখলে। বাকিগুলো বিজেপির হাতে।
উত্তরপ্রদেশের ১৩টি আসনের মধ্যে ১২টি বিজেপির দখলে। শুধু কানৌজ আসন সমাজবাদী পার্টির (সপা), যেটি দলটির পারিবারিক দুর্গ। পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িষ্যায় বিজেপির ভরাডুবি হয়েছিল গতবার। এ পর্বে ভোট হতে যাওয়া পশ্চিমবঙ্গের আট আসনের একটিতে সেবার জিতেছিল বিজেপি। পুরো বাংলায় ৪২ আসনের মধ্যে মাত্র দুটিতে ‘মোদি হাওয়া’ বয়েছিল। আর ওড়িষ্যার ছয় আসনের সবক’টি বিজেডির দখলে। এ ছাড়া জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির অন্তনাগ আসনেও ভোট হবে। একই সঙ্গে ওড়িষ্যার ৪২টি বিধানসভা আসন হবে ভোটগ্রহণ। এছাড়াও পশ্চিমবঙ্গের কৃষ্ণনগর বিধানসভা আসন, মধ্যপ্রদেশের ছিন্দওয়ারা বিধানসভা আসন এবং উত্তরপ্রদেশের নিগাসনা বিধানসভা আসনে হবে উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। চতুর্থ দফাতেও একঝাঁক তারকা প্রার্থীর হবে ভাগ্য নির্ধারণ। উত্তরপ্রদেশের কানৌজ আসনে সপার নেতা অখিলেশ যাদবের স্ত্রী ডিম্পল যাদব লড়ছেন। এ আসনটি সপার দুর্গ। ১৯৯৯ সাল থেকে কানৌজ শাসন করে আসছে পরিবারতান্ত্রিক এ দলটি।
ওই বছর সপার সাবেক প্রধান মুলায়ম সিং যাদব সেখানে এমপি হয়েছিলেন। ২০০০ সালের অন্তর্র্বর্তীকালীন, ২০০৪ ও ২০০৯ সালের নির্বাচনে টানা জয় পান মুলায়মপুত্র অখিলেশ যাদব। ২০১২ সালের অন্তর্র্বর্তীকালীন ও ২০১৪ সালের ভোটে নিজের বউকে দাঁড় করান সপা প্রধান অখিলেশ। এবার জয়ী হলে হ্যাটট্রিক করবেন ডিম্পল।
টানা তিনবারের ভোটে হারলেও এবার সেই সুবরাত পাঠকেই ভরসা রাখছে বিজেপি। গতবারের মতো এবারও এখানে হাড্ডাহাডি লড়াই হবে বলে আভাস। উত্তরপ্রদেশের বাকি আসনগুলোতেও নজর রেখেছেন মোদি-অমিতরা। শেষদিন পর্যন্তও রাজ্যের প্রান্তে প্রান্তে চষে বেড়িয়েছেন। মহারাষ্ট্রের ১৭ আসনের মধ্যে সাতটিতে বিজেপি ও ১০টিতে শরিক শিবসেনার এমপি। তবে মুম্বাই উত্তর আসন নিয়েও একটু ভাবতে হচ্ছে বিজেপিকে। সেখানে কংগ্রেস প্রার্থী করেছেন বলিউড নায়িকা ঊর্মিলা মাতন্ডকরকে।
তাকে টক্কর দিচ্ছেন গতবারের বিজেপি এমপি গোপাল শেঠি। এছাড়া প্রয়াত কংগ্রেস নেতা সুনীল দত্তের মেয়ে প্রিয়া দত্ত লড়ছেন মুম্বাই উত্তর সদর থেকে। তার প্রতিপক্ষ হয়েছেন প্রয়াত বিজেপি নেতা প্রমোদ মহাজনের মেয়ে পুনম মহাজন। দুই মেরুর প্রয়াত দুই নেতার দুই মেয়ের মধ্যে লড়াই ভালোই জমবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।
রাজস্থানে বিজেপিকে টক্কর দেয়ার মতো উল্লেখযোগ্য কেউ নেই। বরাবরের মতো কংগ্রেস ও বিজেপির প্রার্থীর মধ্যে হবে লড়াই। এ রাজ্যের ২৫ আসনের মধ্যে বিজেপির আধিপত্য একচেটিয়া। মোদি জোয়ারে ভর করে ২০১৪ সালে সব আসনে একক জয় পেয়েছিল দলটি। বিহারের বেগুসরাই কেন্দ্র থেকে প্রথম ভোটের ময়দানে সাবেক জেএনইউ ছাত্রনেতা কানাইয়া কুমার। এজন্য কিছুটা হলেও কপালে ভাঁজ বিজেপির। জওয়াহেরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের সাবেক এ সভাপতি সরকারবিরোধী আন্দোলন করেই জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। এখানে বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন গ্রিরাজ সিং। বেগুসরাইয়ের গতবারের প্রার্থী ড. ভোলা সিং প্রয়াত হওয়ায় নাওয়াদা আসনের এমপি গ্রিরাজকে সরিয়ে এখানে আনা হয়েছে। তবে তরুণ নেতা কানাইয়ার জন্মভূমিতে কতটুকু সুবিধা করতে পারবেন গ্রিরাজ, সেটাই বড় প্রশ্ন।
মধ্যপ্রদেশের ছিন্দওয়ারা আসনটাই শুধু কংগ্রেসের দখলে রয়েছে। সেই ১৯৮০ সাল থেকে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথ টানা নয়বার এমপি হয়েছেন। ১৯৯৬ সালে তার স্ত্রী আলকা নাথ কুমার ছিন্দওয়ারা থেকে জিতেছিলেন। এবার প্রার্থী হয়েছেন তাদের ছেলে নকুল নাথ। তার বিরুদ্ধে লড়ছেন সাবেক এমএলএ নাথান শাহ। মধ্যপ্রদেশের সিধি আসনে রাজ্যের প্রয়াত কংগ্রেস মুখ্যমন্ত্রীর ছেলে অজয় অর্জুন সিং এই আসনের প্রার্থী। রাহুল ভাইয়া নামে পরিচিত এ নেতাকে টক্কর দিচ্ছেন বিজেপির এমপি রিতি পাঠক। এ ছাড়া এ রাজ্যের জাবালপুরেও হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দিচ্ছে বিশ্লেষণী মহল। ১৯৯৬ সাল থেকে এখানে একবারও হারেনি বিজেপি। এমপি রাকেশ সিংয়ের বিরুদ্ধে এবারও লড়ছেন কংগ্রেসের বিবেক কৃষ্ণা থানখা। ত্রিমুখী লড়াইয়ে যোগ হয়েছে মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টির রামরাজ রাম।
পশ্চিমবঙ্গের আসানসোল থেকে তৃণমূলের তারকা প্রার্থী মুনমুন সেন এ দফার প্রার্থী। আসনটি বর্তমানে বিজেপির কব্জায়। আরেক তারকা শিল্পী-সুরকার বাবুল সুপ্রিয় এখানে গতবার এমপি হন। বীরভূম থেকে তৃণমূলের আরেক নায়িকা শতাব্দী রায় হ্যাটট্রিক করতে মঞ্চে নেমেছেন। ২০০৯ ও ২০১৪ সালে দুইবারের এমপি তিনি। বিজেপিও এখানে তারকা প্রার্থী দিয়ে জয়ের চেষ্টা করছে।
বীরভূমে দলটি প্রার্থী করেছে বাংলার অভিনেতা জয় ব্যানার্জিকে। পশ্চিমবঙ্গকে বেশ গুরুত্ব দিয়েই মাঠে নেমেছেন মোদি-অমিত শাহ। দলের এ দুই সেনা পশ্চিমবঙ্গের আসনগুলোতে গিয়ে সভা-রোডশো করেছেন। মমতার বিরুদ্ধে আক্রমণ শানিয়েছেন। তৃণমূল নেত্রী মমতাও দমে যাননি। পাল্টা বাণ ছুটিয়েছেন। বলেছেন, ‘এবার বাংলায় তৃণমূল বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ আর বিজেপি রসগোল্লা।’
এছাড়া ওড়িষ্যার ছয়টি আসনে বিজু জনতা দলের বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়েছে বিজেপি। রয়েছে কংগ্রেসের প্রার্থীও। এ আসনগুলোর মধ্য থেকে নিজেদের বাগে আনার চেষ্টা করবে বিজেপি।
এ পর্বে জম্মু-কাশ্মীরের অনন্তনাগ থেকে লড়ছেন রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি। পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির এ নেত্রীর সামনে ত্রিমুখী লড়াই অপেক্ষা করছে। স্থানীয় জম্মু-কাশ্মীর ন্যাশনাল কংগ্রেস মির্জা মাহবুব বেগ ও বিজেপি মুশতাক আহমেদ মালিককে প্রার্থী করেছে। ভোটের আগে বিশ্লেষকরা নানা অংক কষছেন। বিশ্লেষকদের সব হিসাব-নিকাশের কূলকিনারা মিলবে আগামী ২৩ মে’র চূড়ান্ত ফলাফলে।

সূত্র: যুগান্তর ও এএফপি।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK