শনিবার, ১৬ মার্চ ২০১৯
Thursday, 14 Feb, 2019 01:24:26 am
No icon No icon No icon

ভালাবাসা দিবস নিয়ে যত কথা


ভালাবাসা দিবস নিয়ে যত কথা


জিয়াউদ্দীন চৌধুরী (জেড সেলিম), বিশেষ প্রতিনিধি, টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা :গোটা বাঙালি জাতি একটা ভয়ঙ্কর মহামারি ব্যাধিতে ভুগছে। রোগটা একটা মানসিক ব্যাধি, নাম যার ‘হীনম্মন্যতা’। এই রোগে বেশি আক্রান্ত এদেশের আঁতেল সমাজ অর্থাৎ তথাকথিত বুদ্ধিজীবী ও সুশীল সমাজ তথা মসিজীবীরা। বাংলাদেশে বিজাতীয় অপসংস্কৃতি কথিত ভালবাসা দিবসের আমদানিকারক হচ্ছে শফিক রেহমান ম্যাগাজিন যায়যায়দিন পত্রিকার মাধ্যমে এর প্রচার চালান। বাঙালি সমাজে প্রচলিত এরূপ বহু অপসংস্কৃতির সাথে একটি সাম্প্রতিক সংযোজন হচেছ "ভ্যালেন্টাইন’স ডে”, যা "ভালবাসা দিবস” নামে বাঙালী সমাজের যুবক-যুবতীদের মাঝে ঢুকে পড়েছে এবং ক্রমে জনপ্রিয়তা লাভ করছে,বাংলাদেশে এ দিবসটি পালন করা শুরু হয় ১৯৯৩ইং সালে। কিছু ব্যবসায়ীর মদদে এটি প্রথম চালু হয়। অপরিণামদর্শী মিডিয়া কর্মীরা এর ব্যাপক কভারেজ দেয়। আর যায় কোথায় ! লুফে নেয় বাংলার তরুণ-তরুণীরা। আমরা কেন পশ্চীমাদের অপসংস্কৃতি দ্বারা প্রভাবিত হবো?আমাদের সমাজের কৃষ্টি ও রীতিনীতি আজো পশ্চিমা বিশ্বের তুলনায় অনেক উন্নত। আমাদের সমাজে রয়েছে পারিবারিক বন্ধন ও সুসম্পর্ক। আমরা তো তা হারাতে পারি না। ১৮ বছর বয়সে পশ্চীমাদের ছেলেমেয়েরা পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, ওদের মা দিবস বা বাবা দিবস প্রয়োজন, ওরা অপরিষ্কার থাকে তাদের ওযু গোসল নেই; টিস্যুই পরিচ্ছন্নতার একমাত্র ভরসা আর দুর্গন্ধ এড়াতে কৃত্রিম পারফিউম ব্যবহার করা। ওদের বিশ্ব হাত ধোয়া দিবসের প্রয়োজন থাকতে পারে, আমাদের প্রয়োজন নেই। ওদের কাছ থেকে আমাদের শেখার কিছু নেই। আমাদের প্রয়োজন আমাদের ইতিহাস অধ্যয়ন করা। আমাদের ইতিহাস গৌরবের ইতিহাস। ইতিহাসের জ্ঞানই পারে হীনম্মন্যতা নামক মানসিক ব্যাধি থেকে মুক্তি দিতে। আমাদের পূর্বপুরুষরা যখন মসলিন, রেশমী ও সুতি কাপড় পরতো, তখনও ওরা গাছের ছাল বাকল দিয়ে তৈরি পোশাক পরতো। সুতরাং বাঙালীদের হীনম্মন্যতার কোনো কারণ নেই ।
প্রথমেই জেনে নিব ভালোবাসা কি? :ভালোবাসাকে সংজ্ঞায়িত করা কঠিন।একে কিভাবে মোহ ও যৌনকামনা থেকে পৃথক করা যায় ? দার্শনিক ও মনোবিজ্ঞানীগণ ভালোবাসাকে সংজ্ঞায়িত করার চেষ্টা করেছেন অথবা ন্যূনতম মোহ ও যৌন কামনা থেকে ভালোবাসাকে পৃথক করেছেন । যদি তুমি ভালোবাসার সংজ্ঞা খুঁজতে চাও, তবে নিচের অনুচ্ছেদটি তোমাকে সাহায্য করবে ।
১ভালোবাসার আভিধানিক অর্থ । বিভিন্ন ভাবে অভিধানে ভালোবাসাকে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে ।ভালোবাসা হলো :ক)একটি জোরালো আবেগ, অনুরাগ বা সুখানুভব। যেমন, কাজের প্রতি ভালোবাসা। খ)কোন বস্তুর প্রতি উষ্ণ আবেগ বা মনোনিবেশ করা বা পছন্দ করা।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK