শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯
Tuesday, 19 Mar, 2019 11:17:33 am
No icon No icon No icon

গ্রাহকের কোটি কোটি টাকা নিয়ে উধাও ব্যাংক কর্মকর্তা


গ্রাহকের কোটি কোটি টাকা নিয়ে উধাও ব্যাংক কর্মকর্তা


টাইমস ২৪ ডটনেট, ফেনী থেকে: ঢাকা ব্যাংক ফেনী শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার গোলাম সাঈদ রাশেব গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে কোটি কোটি টাকা নিয়ে আত্মগোপনে চলে গেছেন। ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকরা টাকার জন্য ব্যাংকে ভিড় করছেন। টানা তিন দিন ব্যাংক বন্ধ থাকার পর বিষয়টি জানাজানি হলে সোমবার ব্যাংকে ভিড় করেন গ্রাহকরা। রাশেবের বাড়ি ফেনী সদর উপজেলার মৌটবী ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামে। তারা বাবার নাম আজিজুল হক ভূঞা। ক্ষতিগ্রস্তদের ধারণা, রাশেব প্রায় ১০ কোটি টাকা নিয়ে পালিয়েছেন। ঢাকা ব্যাংকের ওই শাখার ম্যানেজার মো. আকতার হোসাইন সরকার জানান, এখনো টাকার পরিমাণ সুনির্দিষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না। অ্যাকাউন্ট লেনদেনের বিপরীতে ২-৩ কোটি টাকা হতে পারে। তবে অনেকের সঙ্গে রাশেবের ব্যক্তিগত লেনদেনও ছিল। রাশেব দীর্ঘদিন ধরে ফেনী শাখার গ্রাহকদের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন।
সে সম্পর্কের সুবাদে গ্রাহকের চেকবই, এমনকি পিন নম্বরও তার কাছে থাকত। লেনদেন করতে করতে গ্রাহকের দারুণ আস্থা অর্জন করেছিলেন তিনি। সব মিলিয়ে আনুমানিক ১০ কোটি টাকা হতে পারে। প্রধান কার্যালয়ের সঙ্গে সার্বক্ষণিক কথা বলে বিষয়টি দ্রুত নিষ্পত্তির চেষ্টা চলছে বলেও জানান শাখা ম্যানেজার আকতার হোসাইন সরকার।
তিনি বলেন, ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কোনো গ্রাহকের টাকা বেহাত হবে না। তাদের টাকা ফেরত দেওয়া হবে। গ্রাহকরা আরও জানান, বিশ্বস্ততার সুযোগ নিয়ে চতুর ব্যাংক কর্মকর্তা গোলাম সাঈদ রাশেব অনেক গ্রাহকের কাছ থেকে ঋণ সমন্বয়ের কথা বলে নিজে এবং ব্যাংকের অন্য অফিসারদের দিয়ে ব্লাংক চেকও সংগ্রহ করেছিলেন। তার গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে ১২ মার্চ মঙ্গলবার ব্যাংকের শাখা ম্যানেজার আকতার হোসাইন সরকার তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি লিখিতভাবে জানান। পরদিন যথারীতি অফিসে আসেন রাশেব। সকাল সাড়ে দশটার পর বাইরে বের হন। এর পর থেকেই তিনি উধাও।
কিছু গ্রাহক তাদের চেকের বিপরীতে অর্থ উত্তোলনের বার্তা পেয়ে গত বৃহস্পতিবার ব্যাংকে অভিযোগ করলে বিষয়টি স্পষ্ট হয়। ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার সিন্দুরপুর গ্রামের মাহবুবুল হক রিপনের অ্যাকাউন্ট থেকে উত্তোলন হয়ে গেছে ৩৪ লাখ টাকা। তিনি অভিযোগ করেন, তার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আরাধনা এন্টারপ্রাইজের অধীনে ব্যাংকের এ শাখায় ৫ কোটি টাকার ঋণ চলমান রয়েছে। ঋণ সমন্বয়ের কথা বলে তার কাছ থেকে দুটি ব্লাংক চেক নেন চতুর গোলাম সাঈদ রাশেব।
পরে অ্যাকাউন্ট চেক করে দেখা যায়, এ দুটি চেক ব্যবহার করে টাকাগুলো উত্তোলন করা হয়ে গেছে। ঠিকাদার রিপনেরই ছোট ভাই ফজলুল হক পলাশের মুনতাসির এন্টারপ্রাইজ নামের অ্যাকাউন্ট থেকে ৪২ লাখ টাকা রাশেব একই কায়দায় তুলে নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। রিপন বলেন, সরলতার সুযোগ নিয়ে অসংখ্য মানুষের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন ব্যাংক কর্মকর্তা গোলাম সাঈদ রাশেব। ঠিক কতজন গ্রাহকের টাকা রাশেব আত্মসাৎ করেছেন, এর সঠিক তথ্য রিপন বা ব্যাংকে উপস্থিত অন্যান্য গ্রাহক দিতে পারেননি।
তবে তারা ধারণা করছেন, ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকা হবে। শাখাটির ম্যানেজার জানান, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এসব অর্থ আত্মসাতের সঙ্গে জড়িত রাশেব। গত ১৩ মার্চ তিনি ব্যাংক থেকে গা-ঢাকা দেওয়ায় গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের বিষয়টি নজরে আসে। তিনি তিন উপায়ে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন- এক. গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে; দুই. ব্যক্তিগতভাবে হাওলাদের মাধ্যমে এবং তিন. গ্রাহকদের অনুমতি নিয়ে। ঠিক কতটি অ্যাকাউন্ট থেকে কত টাকা উত্তোলন হয়েছে এটি বলা মুশকিল বলে জানান শাখাটির ম্যানেজার। বলেন, গ্রাহকরা মৌখিক ও লিখিতভাবে জানাচ্ছেন। তিনি যোগ করেন, ঢাকা থেকে ব্যাংকটির আইটি এক্সপার্টরা আসছেন। তাদের মাধ্যমে চিহ্নিত করা সম্ভব হবে, ঠিক কী পরিমাণ অর্থ রাশেব হাতিয়ে নিয়েছেন।

সূত্র: দৈনিক আমাদের সময়।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK