রবিবার, ২৫ আগস্ট ২০১৯
Wednesday, 16 Jan, 2019 06:44:05 pm
No icon No icon No icon

কলাবাগানে কিলিং মিশনে অংশ নেয়া আসাদুল্লাহ গ্রেফতার

//

কলাবাগানে কিলিং মিশনে অংশ  নেয়া আসাদুল্লাহ গ্রেফতার


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা : রাজধানীর কলাবাগানে সমকামী অধিকারকর্মী জুলহাস মান্নান ও তার বন্ধু মাহবুব তনয়কে হত্যার ঘটনার মূল সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গাজীপুরের টঙ্গী থেকে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাউম ইউনিট (সিটিটিসি)।সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার দিন টঙ্গী থেকে বাসে করে ঢাকায় আসেন আসাদুল্লাহ। ঘটনাস্থলে এসে নামাজ আদায় করে কিলিং মিশনে অংশ নেন তিনি। গ্রেফতার ব্যক্তির নাম আসাদুল্লাহ ওরফে ফখরুল ওরফে ফয়সাল জাকির ওরফে সাদিক। তিনি আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সামরিক শাখার গুরুত্বপূর্ণ একজন সদস্য। গতকাল বুধবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাউম ইউনিট (সিটিটিসি) এর প্রধান মনিরুল ইসলাম।
মনিরুল ইসলাম বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর এই ঘটনা তদন্তের দায়িত্ব পায় সিটিটিসি। জুলহাস ও তনয় হত্যাকাণ্ড ১৩ জনের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। তারা সবাই আনসুরাল্লাহ বাংলা টিমের বিভিন্ন সময়ের নেতা ও সদস্য। ঘটনার পর সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পাঁচজনকে শনাক্ত করা হয়। তবে হত্যাকাণ্ড সাতজন অংশ নেন। এদের মধ্যে দুজন বাইরে দাঁড়িয়ে ছিলেন। বাসার ভেতরে ঢোকেন পাঁচজন। ভুয়া কুরিয়ারের আইডি ও পার্সেল নিয়ে তারা ভেতরে ঢোকেন। আসাদুল্লাহসহ দুজন গেটের কাছে দাঁড়িয়ে থাকা দারোয়ানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে আটকে রাখেন।
প্রাথমিক জিজ্ঞসাবাদে গ্রেফতারকৃত জানায়, তিনি আনসার আল ইসলামের সামরিক শাখার দাওরা প্রশিক্ষক হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করতেন। তিনি বাড্ডা, আশকোনা, গাজীপুরের বিভিন্ন আস্তানায় মারকাজে বাসা ভাড়া নেয়ার পদ্ধতি, নিরাপত্তার বিষয়, ডে-এ্যাম্বুশ, সম্মানজনক মৃত্যু, চাপাতি চালানো, পিস্তল চালানো, টার্গেট ব্যক্তিকে হত্যা করার এলাকায় রেকি করা এবং হত্যার সময় ও স্থান নির্ধারণ করার পদ্ধতি সম্পর্কে সামরিক ট্রেনিং গ্রহণ করেছেন।
এ ঘটনায় গ্রেফতার অন্য তিনজন হলেন-আরাফাত ওরফে শামস ওরফে সিয়াম ওরফে সাজ্জাদ, সায়মন ওরফে শাহরিয়ার এবং আবদুল্লাহ ওরফে জুবায়ের ওরফে জায়েদ ওরফে জাবেদ ওরফে আবু ওমায়ের। এই তিনজনই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জুলহাস ও তনয়ের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করেন সায়মন ও জাবেদ। আরাফাত সরাসরি দুজনকে হত্যায় অংশ নেন।
২০১৬ সালের ২৫ এপ্রিল রাজধানীর কলাবাগানের লেক সার্কাস রোডের বাড়িতে প্রবেশ করে ইউএসএইড কর্মকর্তা এবং সমকামী অধিকারকর্মী জুলহাজ মান্নান ও তার বন্ধু থিয়েটারকর্মী মাহবুব তনয়কে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। ওই ঘটনায় কলাবাগান থানায় জুলহাজের বড় ভাই মিনহাজ মান্নান ইমন হত্যা মামলা এবং সংশ্লিষ্ট থানার এসআই মোহাম্মদ শামীম অস্ত্র মামলাটি দায়ের করেন।
নিহত জুলহাজ বাংলাদেশে নিযুক্ত প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনার প্রটোকল কর্মকর্তা ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের আগে ‘রূপবান’ সম্পাদনার পাশাপাশি জুলহাজ উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডিতে কাজ করতেন।

 

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK