মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯

         কথা চরিত্র          নষ্ট কালবেলায় হাতের মুঠোয় জীবনবোধের ইঙ্গিত           সেই লেখাটার মন খারাপ হলে আমিও ডুবি এই ভাবেই           এটা

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) নুপুরের ঐ তালে তালে মন যে আমার নাচে রে কালবৈশাখী ঝড় ঐ বুঝি এলোরে।

তোর ঐ নৃত্য নাচন সদ্য হাসন উল্লাস মনে যেন আনে রে বৈশাখের ঐ রৌদ্র ঝরে আকাশ

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) চঞ্চলও মন আনমনা হয় থাকনা তুমি পাশে যখন সারাক্ষণ কেন পাইনা তোমায় মন, করে কেন এমন।

ভালইতো ছিলাম, একা যখন ছিলাম পাশে কেন এলে তুমি পাশে যখন এলে, হাতটি

যাকে নিয়ে আমার কলম ধরা , তিনি এই মুহূর্তে বেঁচে থেকেও কিংবদন্তী আখ্যা পেয়ে গেছেন ! আজ্ঞে হ্যাঁ , আমি কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর সম্পর্কে কথা বলছি । ২০১৫ কলকাতা বইমেলা-য় এসে

হাসনা হেনা রানু তোমাকে ডেকেছি অরণ্য,এক অবাধ্য হলুদ বিকেলের অচেনা মায়ায় ---- তুমি আসবে তো ? কথা বলো মেঘ অরণ‍্য .. তুমি অনেকট রবিঠাকুরের " শেষের কবিতার " অমিতের মতো  আমার কবিতায় তুমি বারবার চলে

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) বৈশাখের ওই রুদ্র দুপুরে  যাক না উড়ে দুঃখ উরে  মোহন বাতাস দিক না সুভাষ  আম কাঁঠালের গন্ধ ভরে ।

জরাজীর্ণ আর কুটিলতা  হটিয়ে আনুক না সরলতা  মোহন সুরে আকুল

লেখক: মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) ও মাঝি তুমি নাও বাইওনা তোমার ঐ বৈঠার ফুরে মন যে আমার কেমন করে।

তোমার ঐ বাদাম তোলা পালে কাতাস খেলা করে মন আমার কেমনে থাকে ঘরে।

মাঝি ঐ ভাটিয়ালি

এমএবি সুজন অসম‌য়ে সুজন চেনা যায় সুসম‌য়ে চেনা দায় অসম‌য়ে সুজন চেনা যায়। ম‌রি একুল ওকুল সকল হারায় ভাব নমুনা উতলায় অসম‌য়ে সুজন চেনা যায়।

মরার আপদ জ্ব‌রে বিপ‌দে বা‌ড়ে বাঘ ম‌রে পিঁপড়ায় ক‌াম‌ড়ে রক্ত‌চো‌খে ল্যাংড়া কুকুর রাত পোহা‌লে কুড়ান

মোহিত চৌধূরী  তেল নেবেন তেল? সয়াবিন, নারকেল,  তিসি, বাদাম, ভূট্রা, সূর্যমূখী, জলপাই?  হরেক রকম মাল্টিকালার তেল। সঙ্গে রয়েছে খাঁটি মাঘী সর্ষের তেল।

তেল বিহনে বুদ্ধিজীবীর এলোকেশ, মন্ত্রী মহাশয়ের বক্ররেখায় ঋজু বেশ! পুরোহিতের সান্ধ্য প্রদ্বীপ মর্মমূলে, তেল চক্রধাম আমরি নৃত্য করে।  মোল্লাতন্ত্রের

কবি~ বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর একগুচ্ছ কবিতা-পট     

আমার কথা                                             

হাসনাহেনা রানু আমি আকাশকে বলে দেব তুমি ভালবাস কেন এত নীল মেঘেদের গল্প... দু'চোখে মাখ কান্নার রোদ ছুঁয়ে দাও শুভ্র জ‍্যোৎস্নাদের ছায়া রোজ....!

আমি নীল গোলাপকে বলে দেব তুমি ভালবাস কেন এত নীড়ে ফেরা শিশির গল্প... ছুঁয়ে থাক গহীন

তাহমিনা শারমিন বর্ষার আগমন হলো যে ভাই চলো সবাই গায়ে যাই, আমাদের গ্রামটা বিশাল আকার নদী আর জলেতে হয় একাকার।

বর্ষার আগমনে বৃষ্টির দিনে মন যে সহসাই থাকে আনমনে, বৃষ্টির রিমঝিম রিমঝিম শব্দে হারিয়ে যেতে চায় মন দূর






Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK