বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯

রফিক ভুঁইয়া তোমার মাঝে সব খুঁজে পাই স্বর্গ নরক মর্ত্য, তোমায় ছাড়া আর যা পেলাম সবই তো অসত্য। তোমার কাছে চাইনা কিছু সেজদা এবং প্রার্থনায়, দেখা দিলেই বর্তে যাবো  থাকবোনা আর যন্ত্রণায়। তুমি আদি তুমি অনন্ত অতলান্তের শেষ প্রান্ত, আমি তুমি

এমএবি সুজন উড়ন্ত পা‌খি দূরন্ত ধায় এই ব‌নে খায় ঐ ব‌নে যায় প্র‌য়োজ‌নে ঠাঁই চাই বেলা শে‌ষে নাই অ‌তি‌থি পা‌খিরা যে স্বার্থপর সাঁই মানুষ পা‌খি ও মন ভোমরা ‌বি‌বেকব‌র্জিত জন অনন্ত গোমড়া মহাশু‌ণ্যে সার আকাশটা নীল অসীম সীমা‌ন্তে

এমএবি সুজন মন এমন ব্যবহার ক‌রোনা খুউব খেয়াল দোকানদারী মন এমন ব্যবসায় ম‌রোনা খুব ‌খেয়াল মজুদদারী ভিতর বা‌হির সমান ক‌রো সামান্য অসমা‌নে বারাবা‌রি বরাবর লা‌ভে‌লো‌ভে কারবা‌রি ছ‌াড়ো খেয়াল দোকানদারী বন্ধু ব‌লে ডাকো কা‌ছে বন্ধুহীন এ জীবন মি‌ছে সু‌খে বন্ধু দুঃ‌খে বন্ধু প্রা‌ণের

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) পান্তা ভাতে ভাজা শুকনা মরিচ সাথে পিয়াজ, ভাজা ইলিশ। কি স্বাদ, কি সুস্বাদু বৈশাখের পহেলা দিনে, এ যে বড়ই মধু। পায়ে আলতা, ঠোটে লিপিস্টিক সাদা লাল শাড়িতে, লাগে

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) অভাব, দারিদ্রতা, তুমি ভালই শিখিয়েছো মোদের শিখিয়েছো তুমি, মুখ বন্ধ করে, অত্যাচারিত হবার অঙ্গিকার অভাব, দারিদ্রতা, তুমিতো মোদের ভালই শিখিয়েছ শিখিয়েছ, কিভাবে পেটের ক্ষুধাকে করতে হয়

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) ভোর হয়েছে. শিশির পড়েছে, সূর্য কিরনের আলো ঘুম ভেঙ্গে কি তর্জনে গর্জনে ব্যস্ত ভীষণ প্রভাতকে করছোনাতো আবার কালো।

সাবধানে তুমি পা ফেল পথে শাখা-প্রশাখা, লতা গুল্ম, শিশির

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা) ধুলায় গড়ানো শৈশব আমার ধানের শীষের শিশির বিন্দুর সনে লুটোপুটি প্রজাপতির অঙ্গে কত যে রং এই দেশের তরেই যেন ভিত্তি, প্রস্তর, খুঁটি।

খুঁটিতে আমার দেশপ্রেম সম বাংলা মায়ের

কোহিনূর আক্তার বাবা বললো সন্ধ্যা মালতী  আমি বললাম না বাবা আমি সন্ধ্যা মালতী হবো না । আমি হবো শিউলি বেলি  বাবা তাই হও  না বাবা না আমি শিমুল হবো  বাবা তাই হও

আমি শিমুল হলাম  গাছ থেকে নামতে

সেলিম রেজা সাগর সৃজিয়া স্রষ্টা মানব তরী, শ্রীময় ধরার পরে, শত সহস্র নিয়ামত রাজী, দিয়েছেন উহাতে ভরে ।

মানব তরী বহিছে সহসা, অবনী ন্যায় নীলাম্বু জলে, নিজ বাঞ্চা মেটাতে সবাই, ঘুড়িছে ব্যোমের তলে। 

কেউ বা

সেলিম রেজা সাগর একদা আমি বসিয়া ভাবি,বৃদ্ধকালে তুই কি করে খাবি? থাকবে না শরীরে শক্তি, নাহি অর্থনৈতিক মুক্তি । পূরাবো আমি কিভাবে প্রয়োজন,যা হবে দরকারি? করি নাতো আমি গর্বিত কোন, চাকুরী সরকারি।

দিন হাজিরা কর্মী

কোহিনূর আক্তার রাখাল তুমি কই যাও ,এদিক ওদিক না চাও আমি যাবো মধু বনের মাঠে  প্রিয় গরুটি উঠবে যে আজ হাঁটে । চোখ দুটো কাজল কালো সিং দুটো বাঁকা  তারই জন্য হৃদয়ে মোর কষ্ট আছে

লেখক : মো: জাহাঙ্গীর হোসেন (সাবেক সেনা কর্মকর্তা)

উড়াল পঙ্খি মন যে আমার পেখম, মনের – সারা অঙ্গের গায় যখন তখন উড়তে যে মন চায় কি করি উপায়।

পাঙ্খায় আমার সোনার শিকল নাই পায়ে পরানো নাই






Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK