শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Monday, 19 Aug, 2019 12:34:27 am
No icon No icon No icon

কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক এর সম্পূর্ণ দর্শনধর্মী একটি অন্তর ও বাহিরের পরিপূর্ণ শ্রেষ্ঠ কবিতা

//

কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক এর  সম্পূর্ণ দর্শনধর্মী একটি অন্তর ও বাহিরের পরিপূর্ণ শ্রেষ্ঠ কবিতা

অন্য কোন নীরবতা 

~বিদ্যুৎ ভৌমিক~                                                                                                                                                                                                                                                                         [  লজ্জা সহেছি , কখন অকাল মৃত্যুর সহজ সত্য কিছু কিছু মুখ ! এভাবেই কতো রাত চোখের পাতা খুলে রেখছি একান্ত রাত্রি যাপনে ! সময় দেখিনি ; অথচ স্মৃতির  প্রত্যন্ত                     

গভীর থেকে কবেকার প্রিয় মুখ গুলো ফিরে এসে ছিল সকাল হবার আগে । এদের নিয়ে আমার আজীবনের কবিতা ! বেলা বাড়লে ফিরে আসি নানাবিধ রঙিন স্বপ্নের খোলস                         

ছেড়ে । বাবার উপহার দেওয়া হাত ঘড়িটা পঁচিশ বছর ধরে একই ভাবে  বন্ধ আছে ! কবেকার স্বপ্ন গুলো ঘুম পাড়ানী গানের কথা ভুলে গিয়ে আর আসেনা মধ্যরাতে । তবুও                         

মন ভীষণ বেহায়া পথ ছারে না ! বৃষ্টির শব্দ শুনি হাজার কথা ভুলে গিয়ে । একটা কবিতার নির্মাণের গল্প ; সে কথা  জানিয়ে দিয়েছি রাতের সমস্ত তারাদের ! একজন মৃত                       

  মানুষকে স্পর্শ করেছিলাম ; উনি সত্যি মৃত কিনা তাই ছুঁয়ে দেখে  ছিলাম তাঁকে ! সে কথা কতবার কতভাবে কবিতায় ফিরে ফিরে  এসেছে । সে যাই হোক , 'সময়ের কলম'-এর                       

পাতায় সেই অতীত নিয়ে হঠাৎ লিখে ফেল্লাম ! কেন লিখলাম ,-- সেটা না হয় নাইবা বোল্লাম । আজ যে কবিতাটা আমার প্রিয় পাঠকদের জন্য উপহার দিলাম  , সেটা লেখা                       

হয়ে ছিল প্রায় পঁচিশ বছর আগে । যাই হোক , আপনাদের অনুপ্রেরণায় এই বিদ্যুৎ আজ কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক হয়ে উঠেছে ! এটা আমার শত জনমের  সৌভাগ্য , এবং কৃত                       

কর্মের সুফল । সবাই ভালো থাকুন , এবং নিরাপদে থাকুন -----------  বিদ্যুৎ ভৌমিক ১৬/০৮/১৯ ,  পশ্চিমবঙ্গ , ভারত , শ্রীরামপুর , হুগলী  ]   

 

                                   
                 হাতঘড়ি ঠিক ছিল পঁচিশটা জন্মের পর 
                 তবুও মুছে নিতে হয় স্মৃতি সময়ের ছায়াবহ মুখ 
                 এই ভাবে ছেনে নিতে পারি অন্যমনস্ক অসুখ —
                 আমিতো সঠিক তিন হাত মাটির ভেতর, সেখানে নির্ঘুম 
                 আমার কেনা একটা পারভাঙা আকাশ  ! 
                 দেওয়ালে কথার দাগ কেটে বাতিল হয়ে ছিল এক থালা 
                 কবিতার লাইন ****
                 ভেতর গুণিনের বাণে ক্ষত হতে - হতে উষ্ণ হই নরম 
                 দেহের চারপাশে । 
                 এ কী কথা, কাল গুনে স্বরান্তরে মৃত্যুর দিনাঙ্ক হিসেবে 
                 এ কী মন, হাত পেতে সাড়ে দশটায় পাই প্রথাগত 
                 ভাসমান পট ! 
                 অথচ সমস্ত ভেতরে চুপ হয়ে জেগে থাকে 
                 অন্য কোন নীরবতা ।
                 
                শেষ বেলায় যজ্ঞে বসে সোজা রাস্তায় মুক্তিমূল্য পাইনি 
                বেমালুম নির্ঘুম ক্ষণকাল, বুক বেঁধে চলেছে ঈশ্বর —
                এমনই ভাসমান ; তবু উচ্চারণে অনেক জ্বালা 
                কি হবে অন্য কোনো প্রার্থনা ! 
                পায়ে - পায়ে ঘুরে আসা জমিন ~ আসমান 
                ছুঁয়েছি আদী সত্য স্পষ্টতর আঁকাবাঁকা সিঁড়ির উপমা **
                
                তবুও মৃত্যু, ছুঁয়ে নাও শীর্ণ নদী একবার 
                এপার ওপার কৃতজ্ঞতা ফিরিয়ে দিয়েছি 
                দর্পণে তোমায়  ! 
                কাল যেন আদর করেছি ; তরঙ্গ তবু চিনতে পারিনি 
                এই চুপ নিঃশ্চুপ চোখে তুমিতো স্নান করেছো 
                জমিন ~ আসমান ছেড়ে *****
                কাল স্বপ্ন ছিল সঙ্ঘ হয়ে 
                ভেতর কেড়ে খায় চিন্তার জট —
                এভাবে মৃত্যু কী শরীরহীন দূরে চলে যায় 
                মুক্তিফল পেকেছে জন্মদুয়ারে 
                কিছু চোখ অবিকল ভাসে অলৌকিক যের - যার 
                সমস্তক্ষণ প্রশ্বাস শব্দে ভ্রাম্যমাণ স্মৃতিরা 
                নদীকে প্রাচীন নামে ডাকেনি একবারও  ! 
                
                সুড়ঙ্গ ডোবে, সব কথা পোড়ানো তেষট্টিবার 
                একলা প্রদক্ষিণ করে নিজের শেষ দেহ ছাই হতে দেখি - 
                তবুও নিশ্চিত মরি, মরে যেতে - যেতে 
                নতুন জন্মের চিঠি গৃহস্থের ঘরে শঙ্খধ্বনি 
                তবুও বন্ধ ঘড়ির কাঁটা নড়ে — টিক - টিক - টিক 
               অসম একক ! 
                 
               সাতাশটা বছর শুধু যোগভ্রষ্ট একা নির্নিমেষ 
               তিন হাত মাটি ছুঁতেই স্মৃতি পলাতক 
               রাস্তার প্রবেশ পথে চৌখুপ্পি আমিও একজন 
               ঘুমহীন নির্ঘুমে অথই নির্জন ****
               বেশ ভালো সঞ্জীবনী অস্ফুট আঁধার 
               সেখানে পুড়িয়ে ফিরি নিজের আঁকার 
               কোথাকার পায়ের ধুলো আশির্বাদ ফিরিয়েছে 
               ত্রিপাদ ভূমিতে, —
               সমস্তক্ষণ নির্বাসনে মন ওড়ে বিড়ল আকাশে 
               ও কি মৃত্যু ?  না কি স্বপ্নের প্রত্যন্ত শিহরণ 
              নবীন দর্পণে দোলে একুশ ভাগ সর্বনাশ এবং 
              যোগভ্রষ্ট বিনাশ ! 
                
               কোথায় নিয়েছো ডেকে, চিনবো না অক্ষয় বিকেল —
               মাটির প্রণাম আঁকা চোখ ঢাকা নিভৃত সময় 
               আজ কি সময় হবে অঞ্জলি দিতে 
               ঘুমোচ্ছে ভেতরের শত শত কবিতার লাইন । ঘুমোচ্ছি 
               আমি **** 
              শুধু জাগরণে চেয়ে আছে বিমূর্ত শয়তান  !! 
              ***********

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK