শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Friday, 16 Aug, 2019 12:00:52 am
No icon No icon No icon

কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর ভূমিকা পট ও একগুচ্ছ শ্রেষ্ঠ কবিতা

//

কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর  ভূমিকা পট ও একগুচ্ছ শ্রেষ্ঠ কবিতা

 প্রতিদিনের ইচ্ছা গুলো আবেগে আঁকা কথামালার মতো । আমি তো প্রায় ৩০-৩৫                     

বছর একটানা লিখে আসছি কবিতা । এই কবিতাই আমাকে এনে দিয়েছে গোটা বিশ্বে                   

আন্তর্জাতিক সুনাম । এর পেছনে অনেক অনেক কঠিন ও কঠোর অনুশীলন । আমার                 

এতো কালের কবিতারা আমার সঙ্গে আড়ি ও ভাবের সাথে জড়িয়ে আছে । কি ভাবে--                   

এই কবিতা আসে , কিম্বা কবিতার জন্ম হয় ; এটা বলা ভীষণ কষ্টকর । আমি-- তো                 

রবীন্দ্রনাথ পড়ে বড় হয়েছি । পড়েছি জীবনানন্দ , বিষ্ণু দে , সুনীল , শক্তি , জয় ,                   

এবং আরও কত কবির কবিতা । ওঁদের লেখার ভেতর আমি সেই ছোট বেলা থেকে ডুবে               

 আছি । বাংলাদেশের বেশ কিছু কবির কবিতা আমার ভালোলাগে । সব মিলিয়ে আমার                 

 গভীরে একটু একটু করে কবিতা যাপনের স্বভাব তৈরি হয়ে গেছে । আমি যে জায়গা--                 

থেকে বড় হয়েছি , এবং লেখালিখি করে চলেছি , সেটা- তো আমার জন্মভূমি অর্থাৎ                 

ভারতের পশ্চিম বঙ্গের হুগলী জেলার শ্রীরামপুর । এখানের মানুষ- জন সব- সময়                     

তাদের ঘরের কবি বিদ্যুৎ ভৌমিককে অনুপ্রেরণা দিয়ে আসছেন । যাই হোক , যারা                 

আমার কবিতা এতদিন ধরে পড়ে আসছেন , তাদেরকে আমার অনেক অনেক প্রেম ও                 

ভালোবাসা দিলাম । সবাই ভালো থাকুন এবং সুন্দর থাকুন-- বিদ্যুৎ ভৌমিক ৩০/০৪/২০১৯ ভারত , পশ্চিমবঙ্গ ( শ্রীরামপুর , হুগলী )                                 
¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤¤                                                                                                                                                                                                   

 কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর একগুচ্ছ  বাছাই করা শ্রেষ্ঠ কবিতা                                                                                                                                                                           *********************************   
                  
১ )     ~নতুন কিশোর  ও  আকাশ সুন্দরী~                                                                                                                                                                                                                          

এই পাতাটি থাকনা সাদা তোমার মত 
এই কলমের কথা ও প্রাণ সবটুকু থাক 
বুকের মধ্যে নীল জ্যোৎস্না তবুও কেন দুঃখে থাকে ? 
আবেক আঁকা সন্ধ্যা প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখে ****
একটা রাতের অন্ধকারে আমিও যেন ভূত - ভূতুড়ে 
মন মানেনা তুমি শূন্য বিছানা খালি 
আকাশ নীচে সমুদ্রনীল শুকনো বালি   ! 
এবার আমি সবটুকু প্রেম লুকিয়ে রেখে 
সংক্ষেপে বলি ভা-লো-বা-সি তুই রাক্ষস 
প্রতিটা রাতের নিদ্রা নিয়ে চলছে খেলা 
অবুঝ হয়ে তাকিয়ে আছে নতুন কিশোর !                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                            
২ )     ~নবনীতার জন্য প্রেমনির্ভর কবিতা~                                                                                                                                                                                                                  
        
কাছের নদীকে বলি দূরে যাও, রক্ত হ'য়ে ভেসেছো কোথায় 
একবার ব'লে যাও — এ হেন লজ্জায় পারিজাত লালে লাল 
কদম্ব কোরক ; ধ্যানেতে জড়িয়ে আছে বিমূর্ত আঁধার  ! 
ওই দিকে হলুদ হাসির চোখ ছুঁয়ে নেয় আমাকে লাজুক নির্জন 
মেঘ - মেঘ বৃত্ত থেকে দেখা দেয় প্রিয়ার যত্নে গড়া চুলের বাহার ।
দুঃখটুকু সমগ্র আকাশে বিস্ময়ে অনন্তে ভাসে 
কবিতার গভীরে যেন প্রেতগুলো মুখটিপে হাসে ***
সমস্ত শয্যাপ্রান্তে থেমে গেছে শেষলগ্নের ভেঙে পড়া স্রোত —
যন্ত্রণার শার্সি ভেঙে নিজেকে দেখাই গত জন্মের নিজের কঙ্কাল  ! 
এসো নবনীতা একটা গল্প শুনে যাও 
ভ্রষ্ট নিঃশ্বাসগুলি টিকে থাক তবে 
হয়ত তন্ত্তুজাল ছিঁড়ে লজ্জাবস্ত্র হয়েছে নাজেহাল 
তবুও সুবিন্যস্ত ঢঙে মেরুদন্ড সোজা ক'রে প্রেমনির্ভর হই 
যদি তুমি এই শরতে সাড়া দাও   !!                                                                                                                                                                                                                                                   

৩  )     ~একমেব  এবং  শূন্যগর্ভ~                                                                                                                                                                                                                                 
     
দেহজ মিল নেই বলে ব্যক্তিত্ব একান্ত সংযম শব্দহীনতায় 
সমস্ত শিকড় একমেব মাটির ঘনিষ্টতায় উৎরাই সজীব —
দিকপাল নটরাজ অন্য আগুনে নিঃসংকোচে নামিয়ে রাখে 
শরীরী শয়ম্ভু ******
প্রবল নেকড়ের চোখে দেবী অঙ্গ মন্থন 
প্রবৃত্তির স্বার্থপর নিবিষ্ট খেয়ালে কাব্যের অপেক্ষা করা শূন্যগর্ভ 
অনন্ত ধ্যানে মৃত্যুর নিতান্ত নিয়মে প্রজন্মের চোখ দর্পণ দৃশ্যতে 
আমাকে অমোঘ করে বায়োবিও নির্জন স্বাক্ষরে ।
নিপাট নির্জনতায় মেরুদন্ড মেরামত হয় পৃথিবীর 
শ্রেষ্ঠতম ক্ষমার সুস্থতা  !!                                                                                                                                                                                                                                                                 

৪  )     ~অবৈধ  ক্যানভাস~                                                                                                                                                                                                                                               
      
আলপটকা বৃষ্টি হতেই চোখ ভাসে অন্তর্গত শোকে 
স্বপ্নের সার্কাসে উপরোক্ত ব্রক্ষ্মনন্দ ছন্দ অমিত্রাক্ষরে পশ্চাদপদ 
তুলে দাঁড়িয়ে দ্যাখে ; বাস্তব ডুবেছে 
শিক্ষাপদ্ধতির স্বতন্ত্র চরিত্রে  ! 
একদিন এই মাটিতে উত্তাপ ছিল প্রচুর 
মেরুদন্ড আন্দোলন করতে জানতো 
অতলের অমোঘ আনন্দ উঠতো নেচে নক্ষত্রের পশ্চিম আকাশে, - 
অথচ এদেশের আমিরা পরিচিত আমিদের কাছে অনর্গল 
মিথ্যা কথা বলে   ! 
একটা ছবিকে অপ্রাসঙ্গিক ভাবে বৃষ্টির গোপন ব্যথা 
বোঝাতে চাওয়া অহেতুক দাদুগিরি *****
সবাই যেভাবে রঙ মেলাতে চেয়েছে অনিশ্চিত যৌবন 
সেভাবেই নগ্ন জ্যোৎস্না নিয়ে চাঁদ ঈশ্বরীও লাবণ্য দেখেছে 
নিঝুম নদীর জলে  !

এদের সকলকে একসাথে নিয়েছে অবৈধ ক্যানভাস  !!                                                                                                                                                                                                          

৫  )     ~গর্ভগৃহের  কবিতা~                                                                                                                                                                                                                                   
     
রাতদিন এই আমার অর্ধডুবন্ত স্বপ্ন মন্ত্রঃপুত চোখের 
মধ্যে অকৃত্রিম ছন্নমতি, —
সেই দ্যাখাটার গভীর জুড়ে একঘেয়েমি নীরব সাঁতার 
রাতের পাশে রাত *** দিনের পাশে দিন 
খামখেয়ালি শ্বাসের সঙ্গে শুধুই অন্তমিল 
থাকার মধ্যে অন্ধকারে একাকীত্বের নির্জনতা 
গর্ভগৃহের কালচে আলোয় ব্যাকুল মনের অধীর কথা ****
বৃষ্টি নাচে জলসাঘরের ফরাস পাতা খিরকিতে 
মনের ভেতর চিন্তা পাখির উড়ান ডানার চড়কিতে 
চাঁদ ভাসিয়ে দিতাম যদি সেই মেয়েটার দর্পণে 
স্বপ্ন দ্যাখার নদরটাকে সুখে রাখার অর্পণে ; জীবনবীমায়  ! 
ইচ্ছা করে হাত বাড়িয়ে তার কথাকে প্রথম ছোঁব 
অসম্ভবের কপালটাকে চোখ পাকিয়ে বুঝিয়ে দেব 
( মনবাসী  — এখানে কোনো বস্তু শুইয়া আছেন ) 
ডুবতে ডুবতে অন্যমনস্ক বিশ্বভূবন 
রাতের পাশে রাত — দিনের পাশে দিন 
খামখেয়ালি শ্বাসের সঙ্গে শুধুই অন্তমিল 
সবটুকু আজ চোখের এবং শুধু অবিনশ্বর  !!  

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK