বুধবার, ১৪ আগস্ট ২০১৯
Friday, 02 Aug, 2019 11:15:03 am
No icon No icon No icon

মনে যতক্ষণ না ঝড় ওঠে , কবিতার জন্ম হয় না

//

মনে যতক্ষণ না ঝড় ওঠে , কবিতার জন্ম হয় না


বিদ্যুৎ ভৌমিক: একসময় একটা বিশেষ প্রশ্ন মনের মধ্যে ভীষণ ভাবে যন্ত্রণা দিতো, 
ঘুরতো - ফিরতো, আসতো - যেতো । প্রশ্নটা আত্মজীজ্ঞাসার মতো 
আমার মধ্যে বহুদিন ধরে থেকেছে ! এবার ব'লছি প্রশ্নটা কি এবং 
কেন ! কবি কেন কবিতা লেখেন ? কবিতা লেখেন এমন অনেক--
কেও এ প্রশ্ন আমি বারবার জিজ্ঞাসা করে দেখেছি । কেউ কেউ —
বলেছেন , মনের ভেতরের অনেক গোপন কথা ও ইচ্ছা কবিতার 
রূপ নিয়ে বেরিয়ে আসে । আবার অনেকে আমাকে বলেছেন  যে, -
মনের যৌন আকাঙ্খা ঘুরপথে বেশ পালটে কবিতা হয়ে  বেরিয়ে 
আসে । কেউ কেউ আবার বলেছেন , কবিতা আমার চারপাশের 
সঙ্গে আমার প্রতিক্রিয়ার প্রকাশ । যাঁরা কবিতা লেখেন না , এমন-
কি কবিতা লেখাকে কোনো বিশেষ কৃতিত্বের কাজ বলে মনে করা-
টা বিশেষ মু্র্খামির নামাঙ্ক মাত্র ! বরং একটু ঠাট্টার , একটু ঘৃণ্য —
একটু তাচ্ছিল্যের চোখেই দেখেন । তাঁরা কবিকে কোনো  বিশেষ 
গুণের অধিকারী বলে মানতে চান না । কবিকে কোনো ছাড়ও —
দিতে চান না তাঁরা ।                                                                                                                                                                                                                                                                             
এখানে প্রশ্ন হল , কবিতা লেখা যদি কোনো বিশেষ মানসিক  গুণ 
বা মস্তিষ্কজাত কোনো বিশেষ অবস্থা না হতো , তা হলে যে কেউ 
চাইলেই কবিতা লিখতে পারত । তা কিন্তু হয় না । যিনি বহুদিন 
কবিতা লিখছেন , তিনিও অনেক সময়ে মাথাকুটে মরলেও দু’তিন-
টে মৌলিক পংক্তি লিখে উঠতে পারেন না । তখন তাঁর নিজেরই 
আগের লেখা দেখে মনে হয় , এসব কি আমার মত মানুষের লেখা 
হতে পারে ? বা আমি এসব লিখেছি ? কী করে লিখেছি !  অথবা 
অন্যের ভাল কবিতা পড়ে অনেক সময়ে মনে হয় , কী করে লিখল 
এমন কবিতা ? 
                        ঝিলিক রোদ 
                        শঙ্খ তোমার শঙ্খীনি কই 
                        প্রেম যেন সঙ্গত সঙ্গী সাগরে ছায়া চোখ 
                        মেশানো অসীম অনুভবে , নূপুর নাচিয়ে পায়ে স্বাতী 
                        নক্ষত্র অপলক আভূমি স্বপ্ন - বাসরে 
                        দোলে পথ মায়াবী লণ্ঠন । জগৎ দোলে শূন্যে 
                        আচ্ছন্ন মৈথুনে  !                                                                                                                                                                                                                                     
                         
                        এই যে দৃশ্য থেকে মৃত্যুকে বরণ করে 
                        প্রতিদিনকার জীবন্মুক্ত রাত 
                        বয়স বিবর্ণ মহুয়া মাতাল নটরাজ , কই আমিতো 
                        পথ ভিখারী ; অবিমিশ্র স্মৃতির বনজ ব্যথায় মৃত্যু - 
                        জন্ম পার করি সহজ কৌশলে । তবুও কারখানায় 
                        গড়তে পারিনি স্মৃতিমত্ত লক্ষ উপমার 
                        নিরেট মসনদ !                                                                                                                                                                                                                                                                            
                         
                        এমন দুঃস্বপ্ন রোজ যেন দেখি ওগো রোদ রঙা 
                        প্রজাপতি ! রক্তাক্ত ত্রিশূল বুকে বিঁধে প্রেম তুলে 
                        নেই কবিতার পাতায় **** 
                        শঙ্খ তোমার বাবর লুকিয়েছে সত্ত্বার কবরে, —>
                        চিনি সেই ছটফটে যুবতীর যোনিপথ দিয়ে শহর - 
                        বন্দরের চুড়ো দেখা যায় । ওদের চিনি ভয়াল 
                        বারুদের তাপোষ্ণ পীড়ায়, গোপন ক্ষয়ের 
                        অগুন্তি ধমনী - শিরায়  !!                                                                                                                                                                                                                         
[ কবি শঙ্খ ঘোষকে পরম শ্রদ্ধার সাথে নিবেদন করে এই কবিতা
  লিখেছিলাম । কবিতার নাম - মহুয়া মাতাল নটরাজ । প্রকাশিত 
  হয়েছিল একটি বিখ্যাত পত্রিকায় - আরণ্যক - এ ১৯৯৮ সালের 
  ডিসেম্বর মাসে — বিদ্যুৎ ভৌমিক ]                                                                                                                                                                                                                                
আমি বিশ্বাস করি , মনে যদি না ঝড় ওঠে , সমস্ত মন যদি ঝড়ে 
ভেঙে না যায়, সেই মনে কবিতা কখনোই আসেনা ! অনেকটাই 
রূপকথার ম্যাজিক রিয়ালিটি , যা পৃথিবীর সব দেশেই  কবিতার 
সাথে খুবই ঘনিষ্ঠ । গভীরের ব্যাকুলতা, আবেগ, ইচ্ছে, এমনকী 
জীবনবোধ থেকেই কবিতা আমার কলমে ছন্দের মাধুরী মিশিয়ে 
বর্ণিত হয় । আমি চেষ্টা করি একটা পংক্তি অন্তত ঠিকঠাক লেখা-
র ! পাঠকের সাথে আমার ঘনিষ্ঠতা দীর্ঘদিনের । তারা তাদের এই 
বিদ্যুৎ ভৌমিকের কবিতার লাইন ধরে ধরে পড়েন, এবং বিভিন্ন 
জায়গায় আলোচনা করেন , এমনকি আমাকে আমার মোবাইল - 
এ কিম্বা মেইল করে অনেক অনেক মতামত জানান । এক সময় 
আমার কবিতার চরিত্র নবনীতাকে নিয়ে একটা প্রথম শ্রেণীর বহু 
প্রচারিত কাগজে বেশ মুখরোচক লেখা প্রকাশ হয়েছিল, তাতে —
পাঠকের প্রতিক্রিয়া দেখে আমি সত্যি সত্যি মুগ্ধ হয়ে হয়েছিলাম ।
যে কোন লেখার শেষ কথা হলো পাঠক । আমার দুই বাংলাতেই 
পাঠক তৈরি হয়ে গেছে । পাঠকই আমার ঈশ্বর এবং ভগবান, এটা 
মনে - প্রাণে অন্তরের অন্তস্থল দিয়ে বিশ্বাস করি । এমন এক দিন 
ছিল যখন সমালোচকদের স্থান ছিল সাহিত্যকারদের উপরে । —
রাজতন্ত্রে পুরোহিতরা যেমন রাজাকে নির্দেশ দিতেন ; সুপরামর্শ - 
দিতেন ; গণতন্ত্রে বিরোধীদল যেমন শাসকশ্রেণীকে সমালোচনার 
আড়ালে প্রগতিশীল, গতিশীল রাখে, সাহিত্য সমালোচকরাও সেই 
লেখকদের নির্দেশ দিতেন ; লেখকদের নিয়ন্ত্রণ করতেন ; পাঠক -
দের রুচিকে শাসন করতেন ; তৈরি করতেন মূল সৃষ্টির স্বপক্ষে 
ইতিবাচক মননধর্মীতা । সমালোচকদের তাই মূল্যবোধের সঠিক 
বিচারক বলা হয় ।                                                                                                                                                                                                                                                                 
                              চোখের ভেতর সেই নদীটা লুকিয়ে ছিল 
                               মনের মধ্যে না-বলা কথার ঝড় থেমেছে 
                               হঠাৎ কেন স্বপ্নঘুমে সেই পাখিটা , 
                               ভিন্ন সুরে আকাশ দেখে গান গেয়েছে ***
                               কী লিখব , কি লিখেছি , থাক এখনি 
                               ভেতর থেকে বেরিয়ে এলো হাজার কথা , —
                               ভাসছি আমি সেই নদীতে বহতা স্রোতে 
                               বুকের মাঝে থাকছে না আর নীরবতা  !!                                                                                                                                                                                                                               
[ আমার সম্প্রতি প্রকাশিত ২০১৬ কলকাতা বইমেলায়  কাব্যগ্রন্থ 
  নির্বাচিত কবিতা থেকে এই কবিতাটি এখানে উত্থাপন করলাম ।
  কবিতাটি অর্থাৎ আমার কাব্যগ্রন্থটি উৎসর্গ করেছি এই সময়ের 
  বিখ্যাত কবি জয় গোস্বামীকে — বিদ্যুৎ ভৌমিক ] 
  **************************
যাই হোক অনেক অনেক প্রশ্ন মনের মধ্যে 
আসে যায় , এটা  থামে 
না । চলতেই থাকে !      

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK