বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯
Saturday, 27 Jul, 2019 12:02:32 am
No icon No icon No icon

দুই বাংলার জনপ্রিয় কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক এর এই সময়কার একটি শ্রেষ্ঠ নির্মিত কবিতা

//

দুই বাংলার জনপ্রিয়  কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক এর এই সময়কার একটি শ্রেষ্ঠ নির্মিত কবিতা

  অন্য এক নীরবতা এবং মৃত্যু স্বপ্ন
      ~বিদ্যুৎ ভৌমিক~     

  [ "সমর্পণ"-- এই শব্দটা আক্ষরিক অর্থে কতটা নিজের কাছে আত্মনির্ভর হ'তে সাহায্য করে , সেটা আমার কাছে প্রশ্ন চিহ্ন-ই থেকে যাবে ! তবে আমি  কবিতার কাছে 

প্রথম থেকেই নিজেকে শোপে দিয়েছি ! তাইতো কবিতা লেখার পাগলামিটা দিনে দিনে আমার চিন্তায় , চেতনায় , শরীরে ও মননে ভীষণ ভাবে বটবৃক্ষের আঁকার  নিয়েছে ! --                         

আমি অহর্নিশ কবিতা যাপনে থাকি । এটা আমার অনেক দিনের অভ্যাস ব'লতে পারি । এই বিষয়ে আমার পাঠকরা সবটাই অবগত আছেন । কি ভাবে আমার মননে সৃষ্টি                         

 হয় কবিতা ? এটা এখন বলার দরকার নেই , এসব কথা নিয়ে অনেকবার সময় অসময়ে প্রচুর কথা বলেছি । তবে একটা কথা না বলে এড়িয়ে যাওয়া ভালো হবে না । সেটা ,                           

কবিতার প্রতি সময় দান করাটা সমস্ত কবিদের মূল লক্ষ হওয়া প্রয়োজন । তবেই কবিতা ; কবিতা হয়ে উঠবে । ---  বিদ্যুত ভৌমিক ২৬/০৭/১৯ ]                                                                                                                                                                                                                                             
                 হাতঘড়ি ঠিক ছিল পঁচিশটা জন্মের পর 
                 তবুও মুছে নিতে হয় স্মৃতি সময়ের ছায়াবহ মুখ 
                 এই ভাবে ছেনে নিতে পারি অন্যমনস্ক অসুখ —
                 আমিতো সঠিক তিন হাত মাটির ভেতর, সেখানে নির্ঘুম 
                 আমার কেনা একটা পারভাঙা আকাশ  ! 
                 দেওয়ালে কথার দাগ কেটে বাতিল হয়ে ছিল এক থালা 
                 কবিতার লাইন ****
                 ভেতর গুণিনের বাণে ক্ষত হতে - হতে উষ্ণ হই নরম 
                 দেহের চারপাশে । 
                 এ কী কথা, কাল গুনে স্বরান্তরে মৃত্যুর দিনাঙ্ক হিসেবে 
                 এ কী মন, হাত পেতে সাড়ে দশটায় পাই প্রথাগত 
                 ভাসমান পট ! 
                 অথচ সমস্ত ভেতরে চুপ হয়ে জেগে থাকে 
                 অন্য কোন নীরবতা ।                                                                                                                                                                                                                                   
                 
                শেষ বেলায় যজ্ঞে বসে সোজা রাস্তায় মুক্তিমূল্য পাইনি 
                বেমালুম নির্ঘুম ক্ষণকাল, বুক বেঁধে চলেছে ঈশ্বর —
                এমনই ভাসমান ; তবু উচ্চারণে অনেক জ্বালা 
                কি হবে অন্য কোনো প্রার্থনা ! 
                পায়ে - পায়ে ঘুরে আসা জমিন ~ আসমান 
                ছুঁয়েছি আদী সত্য স্পষ্টতর আঁকাবাঁকা সিঁড়ির উপমা **                                                                                                                                                                                     
                
                তবুও মৃত্যু, ছুঁয়ে নাও শীর্ণ নদী একবার 
                এপার ওপার কৃতজ্ঞতা ফিরিয়ে দিয়েছি 
                দর্পণে তোমায়  ! 
                কাল যেন আদর করেছি ; তরঙ্গ তবু চিনতে পারিনি 
                এই চুপ নিঃশ্চুপ চোখে তুমিতো স্নান করেছো 
                জমিন ~ আসমান ছেড়ে *****
                কাল স্বপ্ন ছিল সঙ্ঘ হয়ে 
                ভেতর কেড়ে খায় চিন্তার জট —
                এভাবে মৃত্যু কী শরীরহীন দূরে চলে যায় 
                মুক্তিফল পেকেছে জন্মদুয়ারে 
                কিছু চোখ অবিকল ভাসে অলৌকিক যের - যার 
                সমস্তক্ষণ প্রশ্বাস শব্দে ভ্রাম্যমাণ স্মৃতিরা 
                নদীকে প্রাচীন নামে ডাকেনি একবারও  !                                                                                                                                                                                                    
                
                সুড়ঙ্গ ডোবে, সব কথা পোড়ানো তেষট্টিবার 
                একলা প্রদক্ষিণ করে নিজের শেষ দেহ ছাই হতে দেখি - 
                তবুও নিশ্চিত মরি, মরে যেতে - যেতে 
                নতুন জন্মের চিঠি গৃহস্থের ঘরে শঙ্খধ্বনি 
                তবুও বন্ধ ঘড়ির কাঁটা নড়ে — টিক - টিক - টিক 
               অসম একক !                                                                                                                                                                                                                                                                
                
               সাতাশটা বছর শুধু যোগভ্রষ্ট একা নির্নিমেষ একান্ত একক 
               তিন হাত মাটি ছুঁতেই স্মৃতি পলাতক 
               রাস্তার প্রবেশ পথে চৌখুপ্পি আমিও একজন 
               ঘুমহীন নির্ঘুমে অথই নির্জন ****
               বেশ ভালো সঞ্জীবনী অস্ফুট আঁধার 
               সেখানে পুড়িয়ে ফিরি নিজের আঁকার 
               কোথাকার পায়ের ধুলো আশির্বাদ ফিরিয়েছে 
               ত্রিপাদ ভূমিতে, —                                                                                                                                                                                                                                         
               সমস্তক্ষণ নির্বাসনে মন ওড়ে বিড়ল আকাশে 
               ও কি মৃত্যু ?  না কি স্বপ্নের প্রত্যন্ত শিহরণ 
              নবীন দর্পণে দোলে একুশ ভাগ সর্বনাশ এবং 
              যোগভ্রষ্ট বিনাশ !                                                                                                                                                                                                                                                  
                
               কোথায় নিয়েছো ডেকে, চিনবো না অক্ষয় বিকেল —
               মাটির প্রণাম আঁকা চোখ ঢাকা নিভৃত সময় 
               আজ কি সময় হবে অঞ্জলি দিতে 
               ঘুমোচ্ছে ভেতরের শত শত কবিতার লাইন । ঘুমোচ্ছি 
               আমি **** 
              শুধু জাগরণে চেয়ে আছে বিমূর্ত শয়তান  !! 
              *************************

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK