শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০১৯
Thursday, 11 Jul, 2019 11:58:03 pm
No icon No icon No icon

এই সময়ের কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক এর ৩ টি অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবিতা সঙ্গে কবির "কবিতাকথা"

//

 এই সময়ের  কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক এর ৩ টি অন্যতম  শ্রেষ্ঠ কবিতা সঙ্গে কবির

 "আমার কবিতা যাপনের ইতিহাস"-বিদ্যুৎ ভৌমিক                                                                                                                                                                                                                                         
এখানে একটা কথা বলা উচিত , আমি যখন একেবারে প্রথম দিকে সিরিয়াস কবিতা লেখার চেষ্টা করেছিলাম তখন কিন্তু আমার ভুল-ভ্রান্তি গুলো ধরিয়ে দেবার মতো কেউ ছিলেন না ! তখন আমার বয়স ১৫ কি ১৬ হবে । ওই সময়টা আমার খরের গাদায় সূচ খোঁজার মতো কঠিন ও কঠোর অবস্থা ছিল , বলা যেতে পারে ! বাড়িতে আমার  বয়স্ক অর্থাৎ গুরুজন যারা সেই সময় ছিলেন , তাঁদের-কে সাহস করে কখনো আমার লেখা "না-কবিতা" গুলো আমি দেখাতাম না । ভিতরে-গভীরে একটা চাপা ভয় ও লজ্জা অহর্নিশ কাজ করতো ! নিজে আবার আবেগের তাড়নায়  উপযাযোক হয়ে পত্রিকা অফিসের  সম্পাদকীও দপ্তরে পাঠাতাম না , যদি বিপরীত দিক থেকে নেগেটিভ উত্তর --  আসে ! কি যে একটা বিশ্রী  সময় চলছিলো , কী বলবো ! সেই সব পাণ্ডুলিপি গুলো আজও অক্ষত আছে ! প্রথম দিকে ছন্দবধ্য লেখা অর্থাৎ ছড়া-টরা লিখতাম । এদিক ওদিক  প্রকাশিত হয়েছিলো । কেউ এসে হাত বাড়িয়ে --দেয় নি এবং বলেনি ; এসো এইখানে কবিতা লেখো ! এখন ভাবছি , এই আগের  আমি বিদ্যুৎ ভৌমিক কি করে কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক হয়ে উঠলাম ! এসব মনে করলে বিস্ময়ে নীরব হয়ে যাই ! ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার ঐতিহাসিক শহর শ্রীরামপুরে আমার ১৬-জুন ১৯৬৪ আমার জন্ম । এখান থেকেই বর্তমান সময়ের সন্ধিক্ষণে  আমার সাহিত্য সাধনা ও  কবিতা লেখার চর্চা । "প্রখ্যাত ও  জনপ্রিয়" এই দুটি শব্দ আমার নামের আগে এই সময় ব্যাবহার করছেন মিডিয়ার লোকজন । কিন্তু সত্যি অর্থে , এই জনপ্রিয়তার পিছনে কতো কঠিন শ্রম , নিষ্ঠা , একাগ্রতা , আমাকে দিতে হয়েছে , সেটা কিন্তু বাঙালী পাঠক বন্ধুরা জানেন না ! সে যাই হোক , প্রতিমার  পিছনে কি আছে সেটা নিয়ে কি প্রয়োজন ! যেটা দরকার , সেটা হল উৎসবে নিজেকে সামিল করা ; তাই না ? এবার একটা কথা ব'লি , আমার কবিতা আপনাদের কেমন লাগছে ? যদি খারাপ মনে হয় , সেটাও জানাবেন । ----  বিদ্যুত ভৌমিক ১১/০৭/১৯        


¤¤ কবি~ বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর তিনটি শ্রেষ্ঠ  কবিতা ¤
               
      ~একমাত্র তোমাকেই~                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                               
              
                   দুহাতের রেখায় জোড়বদ্ধ করমর্দন ছাপ ;
                   বন্ধু, তুমি চলে যাবে — ? 
                   অনেককালের জন্মঋণ ছিঁড়ে দেওয়ালের ক্যালেন্ডার 
                   ভাসমান স্মৃতির ভেতর কোথাকার ৯-টা থেকে সন্ধ্যা 
                   ৬-টায় অতলান্ত দুঃখ বোধের বোঝা নিয়ে দুলে চলে  !                                                                                                                                                                                                         
                     
                   হাতের কাছে সেই গ্লাস, সেই এ্যাস্ট্রে, টুকরো টুকরো 
                   সিগারেট, পেপার ওয়েট, টেলিফোন রিসিভারে বাম - 
                  - হাতের পাঁচ আঙুলের স্পর্শ ; এসব যেন তোমাকে 
                   ভুলতেই দিচ্ছে না  ! বন্ধু ***
                   এভাবে পেছনে যেতে - যেতে - যেতে প্রত্যন্তে ফুরিয়ে 
                   যায় হাসি মুখের একান্নবর্তী বহুমুখী মানুষের শরীর —
                   নীল ফুল, টক - ঝাল স্বপ্ন, ছদ্ম আদর্শ, কিম্বা 
                   রূঢ় অস্বীকারে বিমুখ প্রেম, এসব নিয়ে কথা হয় কিম্বা 
                   না হয় কবিতার ! 
                   তাই মনের ক্যানভাসে দাগ কাটি বহতা নিঃশব্দে ****                                                                                                                                                                                                                              
                    
                   বন্ধু আমার বুকের মধ্যে হাত রেখে দেখো ; শুনতে 
                   পাবে জল নূপুরের ধ্বনি ****
                   চলে যাবে তুমি, কিন্তু গল্প তো শেষ করে গেলে না ! 
                   এই যে শিমূল শাখার ভেতর ভেতর কত কান্নার ভেজা 
                  পাতারা ওই আকাশটায় তোমার নামে উড়িয়ে দিয়েছে 
                  বিদায় সংগীত   ! তুমিকি আজও আমাদের পাশে চুপ 
                  বসে আছো   !!                                                                                                                                                                                                                                                                                                  
                                   
                ~তুলনা না করে~                                                                                                                                                                                                                                              
        
                শেষ ঘুম অরণ্য জেনে গেছে 
                স্বপ্ন ফের চালু হলে ; মহা প্রলয়ের মেঘ কথা মন খুলে 
                বৃষ্টি নামায় চোখের পাতায় ! 
                এই ছবিটাই ক্যানভাসের ভেতর পাপ পাপ ব্যথায় 
                ভীষণ আরক্ত ও হীম ****
                তবুও গুপ্ত লজ্জায় নির্ঘুম ছিলনা জ্যোৎস্নার আবেগ , —
                এইখানে মন পাতে হৃদয়ের সমস্ত কথা 
                এইখানে আজন্মের ঋণ পুড়ে ছাই হয় 
                অথচ শেষ পর্যন্ত ঘুমন্ত ঘুমে সজাগ থাকে নিরীহ বয়স  !                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                             
                 
                এই দিনটার নামে আমি সুতো বেঁধে রাখলাম 
                পরবর্তী জন্মের পর থেকেই এর দিন গোনা সুরু হবে ;
                একথা আত্মার প্রত্যন্তে থাকা প্রাণী জেনে গেছে ***
                এই দেখ শেষ পর্যন্ত আমি মৃত্যুর মত নীরব হয়ে গেছি —
                এখানে নামহীন পৃথিবীর কত লোকজন 
                এখানে স্পষ্ট না হওয়া দৃশ্য গুলো আমার বিভিন্ন 
               মুহুর্তের ছবি এঁকে আমাকেই দেখাবে বলে উদগ্রীব  ! 
                মোহনার মাটি ভিজে না থাকলে 
                কবিতার হৃদয়                                                                                                                                                                                                                                                                                            

      
             ~পরবাস্তব  এবং  হৃদয়তান্ত্রিক  পদ্য~                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                  
                                 চোখের কাছে অচেনা সর্বনাশ 
                                 ভেতর থেকে দৃশ্যের বিচ্ছেদ 
                                 মনের মধ্যে যন্ত্রণার অলিগলি 
                                 নামহীন যত কান্নার নির্দেশ !                                                                                                                                                                                                         
এখন থেকে অন্তরে তুমি থাক ; কিম্বা অতলে হৃদয় মেলে রাখ 
এইবেলা যদি স্পর্শে ওঠো কেঁপে, আকাশ থেকে বৃষ্টি 
বৃষ্টি আসুক ঝেঁপে ****
গভীরের সুখ সময়ের পথ ধরে, 
চলতে - চলতে কোন অতলান্ত ভোরে 
স্বপ্নের কথা নিজেকে বলতে - বলতে ঘুম ভেঙে যায় 
নিজের অজান্তে  ! 
                                 
                                কোথায় যেন পুড়ছে অচেনা স্মৃতি 
                                মিথ্যে - মিথ্যে বিষণ্ণ দুটি চোখ 
                                কোথায় যেন নামহীন পৃথিবীতে 
                                ভরে আছে যত মৃত্যুর প্রতিশোধ  !                                                                                                                                                                                                                                                                                                                     
হঠাৎ যদি ফুল - পাখি - চাঁদ দেখে ;
সময়ের সাথে একা একা পথ চলি ****
কবিতার কাছে আশ্রয় খুঁজে নিয়ে তিন প্রহরের যন্ত্রণা তাকে বলি ! 
এসব কথা আত্মায় ঘোরে - ফেরে  ;
তবুও কেন মন বোঝে না তাকে , —
চতুর্দিকের অগণন স্মৃতিগুলো আদিগন্ত ভালোবাসা হয়ে থাকে  !                                                                                                                                                                                                                                                                                     
                                
                               চোখে যাব ব'লে চোখ ভিজে আসে জলে 
                               চুপচাপ শুধু নীরবতা নিয়ে থাকি —
                               চেনা - অচেনায় অনেকেই কাছে থাকে 
                               মৃত্যুর পাখি করে যায় ডাকাডাকি  !  
নতুন ক'রে আসব আবার ফিরে ; ডাকবে কাছে নতুন নামে যখন  
সেই পুরাতন স্মৃতির ফাঁকে ফাঁকে 
আগের আমিকে পড়বে কি মনে তখন  !!   

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK