শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮
Wednesday, 10 Oct, 2018 12:54:39 am
No icon No icon No icon

পদ্মা ও গঙ্গার প্রাণের কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর একগুচ্ছ কবিতা


পদ্মা ও গঙ্গার প্রাণের কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর  একগুচ্ছ কবিতা

       ভুতুড়ে জলায় কাহিনী ডোবাব                                                                                                                                                                                                                                                         
         এবার মাটির কাছে ব'সে শোনাব অক্ষরবৃত্তের গপ্পো, - 
         তারপর মরুদেশে একটানা কেঁদে 
         হৃদয় ঢালব অদৃশ্য যন্ত্রণা —
         সসের শিশিতে মুগ্ধ রক্তের তাজা রক্ত দেখে 
         বনকলমির ঝোপে প্রতাঘ্নে ছুঁড়ে দেব অশরীরি অভিসন্ধি  ! 
         আবহাওয়া আগেই চিনেছে আমার ছেনালী 
         নির্বাক রাতেও দেখে যাযাবরী প্রেত 
         গহ্বরে কিম্বা ভুতুড়ে জলায় কাহিনী ডোবার অনচ্ছ মুঠোয় **
         মাথায় জ্বলে ওঠা চাঁদ ; দেখেনি আমাকে, —
         শস্যক্ষেত বোঝেনি হিংস্রতা 
         নিপাট আকাশ সন্দেহ ঢালেনি ঝুমুর শব্দে গোটা মনে , 
         নিজেকে লুকিয়ে এনেছি ভিখারী ভোজনে  ! 
         এখানে একার গভীরে যদি ওড়ে ভ্যান গখ 
         ভয়ের ভিতর হিমসিম আড়ষ্ট শ্মশান, —
         কালপ্যাঁচা অতল যামিনী নিয়ে নিথর স্তব্ধে আমাকে দেখে 
         তবু ছদ্মবেশে ভাঙব জটিল হাতকড়া  ! 
         রীতিনীতি এড়াই স্তোক বাক্যে 
         এভাবে আবডালে বাজবে কি মৃত্যুর ঘড়ি *****
         পিঠের গেঞ্জি তুলে প্রেমিকার আঘাত কামড় দেখাই 
         একমাত্র দর্পণ মনে —
         এরপর সারারাত কবরের পাশে ব'সে একান্ত চেয়ে নেই 
         কুসুমিত ক্ষমা   !!                                                                                                                                                                                                                                                                              
                     
              ~ধ্রুপদী  কবিতা~                                                                                                                                                                                                                                                                           
                 
        তোমার জন্য ঠোঁট কেঁপে কেঁপে স্থির হোলো অবশেষে 
        বিশ্বাস কর ; জীবনানন্দ জোগাড় করে জলার গভীরে 
        বেলকুঁড়ি ভাসিয়েছি নিঃশব্দে — শুধু তোমার জন্য 
        ওটাই আমার টেমস্ নদী, যাকে নিয়ে তুমি - আমি এক 
        ডুবেতে, —
        এরপর ওপাড় আশ্চর্য সাঁতার কাটেছি   ! 
        কথা বলতে বলতে সরস্বতী প্রতিমার স্তন এবং 
        তোমার বুকের ওঠা - নামা ; প্রশ্বাসের স্পন্দন গুনে চলা —
        পদ্মাবতী সতী ; তুমি যেন ছোটাও  আমার হাজার মাইল 
        সংসার তুচ্ছ করে  ! সামাল - সামাল, বেতের চেয়ারে বসে 
        উথাল - পাথাল হই *****
        হঠাৎ চোখে পড়ে সাতজন্মের প্রসিদ্ধ ঘসা কাঁচের দর্পণে 
       বহু জন্মের আমি  !  পুড়ছি নিঃসঙ্গ নিঃশব্দে, 
       অথচ তুমি ; পরাণে ঢাকাই শাড়ি কপালে সিদুঁর   !!                                                                                                                                                                                                                                       
  
            ~হৃদয়তান্ত্রিক উচ্চারণ~                                                                                                                                                                                                                                                               
               
      আলপটকা বৃষ্টি হ'তেই চোখ ভাসে অন্তর্ভুক্ত শোকে 
      স্বপ্নের সার্কাসে উপরোক্ত ব্রহ্মানন্দ ছন্দ অমিত্রাক্ষরে 
      পশ্চাদপদ তুলে দাঁড়িয়ে দ্যাখে ; বাস্তব ডুবেছে 
      শিক্ষাপদ্ধতির স্বতন্ত্র চরিত্রে  ! 
      একদিন এই মাটির অমোঘ উত্তাপ ছিল উৎসাহে বিভোর 
     মেরুদন্ড আন্দোলন করতে জানতো 
      অতলের তরুণ আনন্দ উঠতো নেচে নক্ষত্রের পশ্চিম আকাশে,
     অথচ এদেশের আমিরা পরিচিত আমিদের কাছে 
     অহর্নিশ মিথ্যা কথা বলে  ! 
     একটা ছবিকে অপ্রাসঙ্গিকভাবে বৃষ্টির গোপন ব্যথা 
     বোঝাতে চাওয়া অহেতুক দাদাগিরি ****
     সবাই যেভাবে রঙ মেলাতে চেয়েছে অনিশ্চিত যৌবনে 
     যেভাবেই নগ্ন জ্যোৎস্না নিয়ে চাঁদ ঈশ্বরীর লাবণ্য দেখেছে 
    নিঝুম নদীর জলে ।
    এদের সকলের এক সাথে নিয়েছে অবৈধ ক্যানভাস  !!                                                                                                                                                                                                                                        
         
          ~সৌরকুসুম এবং দীর্ঘটানা কাজল~                                                                                                                                                                                                                                                     
            
      অপেক্ষায় থাকে না যুবতি যৌবনে আদ্যন্ত বিচ্ছুরক হ'তে 
      বিশ্বাস যেন মনের অসুখ ; নিবিড়তা ছড়ায় চোখের দীর্ঘটানা 
      কাজলে  ! বিষফল ঠোঁটে তুলে নেয় বৃষ্টি পাখি হরীতকীর 
      জঙ্গলে লজ্জায় আহত পুরুষ প্রজাপতি, 
      ও যেন সাঁওতাল ছেলে *****
     নাতিশীতোষ্ণ স্তনের প্রাচীর নীল সন্ধ্যায় নিটোল মাংসল 
     আকাশ খোঁজে শুক্লা তিথিতে  ! এই নদীর বিষাদনত জলে 
     সময় অঙ্কের জটিল অন্ধকার প্রহর — তার কাছাকাছি শব 
     সাধনার তামসী পিঠ , এখানে আবলুস পাতার ফিসফিস কথা 
     হয় ভূত - প্রেত এবং ঈশ্বরীর সাথে  ! 
     কতদূর এই বিশ্বাস আছে ; আজন্ম ওষ্ঠের গভীরে নিঃশব্দ 
     বোবা হয়ে থাকে সৌরকুসুম *****
     প্রত্যন্ত জলপাই বনে সারাদিন - সারারাত প্রসাধনহীন এক 
     নারী নিজের শরীর থেকে পোশাক খুলে চাঁদ আর সূর্যকে 
     মাংসভুক করে তোলে একাকী কায়দায়  ! এই রাতে ঈষৎ 
     আনন্দ হলে শরৎকুসুমের গন্ধে শুভার্থী তারারা জেগে 
     ওঠে নির্জনে । অনেক দিন পর একটা কবিতার জন্মদিনে  ! 
     বৃষ্টিপাখির হৃদয়তান্ত্রিক উচ্চারণে  !! 
                
           ~কলম কথা ও বৃষ্টির দুপুর~                                                                                                                                                                                                                                                               
         
     বিপরীতে আমার চলে যাবার রাস্তা ; ওখানে কিয়দংশ আচ্ছন্ন 
     হয়ে আছে ইচ্ছা - অনিচ্ছার প্রতিটা স্বপ্ন, 
     সবকটা বৃষ্টির দুপুর ****
     আমার অন্তস্থল খুলে যতটা দেখা যায় ; সবটাই ঔদার্য —
     লিখতে - লিখতে দ্রুতগামী ওই ট্রেনটাকে ছুঁই  ! 
     ভাবি ; মৃত্যুর ডাক এলো বলে — রক্তের ভেতর থেকে নড়ে 
     ওঠে তেইশ বছরের সেই মেয়েটা , নবনীতা ।
     এসব ভেবে ভেবে আদ্যোপান্ত মরি 
    শ্রীরামপুর স্টেশনে এসে পকেট হাতড়ে ছবি খুঁজি, —
    বৃষ্টি পড়ে *** আজ আপাদমস্তক ভিজব 
    অভিভাবকহীন সূর্যহীনা কবিতার নীল ডাইরিটা 
    অস্তিত্বের সীমাবদ্ধতা মানে না 
    সে জন্য প্রতি মূহুর্তে দারিদ্র 
    সরলবক্রনির্বিশেষে মন মাতাল  !!                                                                                                                                                                                                                                                                                                     
     ===============================
   কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক 
   ৬৫ /১৭, ফিরিঙ্গি ডাঙা রোড, শ্রীরামপুর, হুগলি, 
   সূচক ৭১২২০৩ পশ্চিমবঙ্গ, ভারতবর্ষ, 
   মোবাইল নং ৬২৯০২৪৬৯৩২  // 
   ======================

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK