সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮
Thursday, 13 Sep, 2018 01:24:12 am
No icon No icon No icon

কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর কবিতা নিয়ে নানান বিতর্ক নানান আলোচনা


কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর কবিতা নিয়ে নানান বিতর্ক নানান আলোচনা


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: কবি~বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর কবিতা নিয়ে নানান বিতর্ক নানান আলোচনা । এই জনপ্রিয় কবি বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর একগুচ্ছ  শ্রেষ্ঠ কবিতা "টাইমস ২৪ ডটনেট"-এ প্রকাশিত হলো  
কবি~ বিদ্যুৎ ভৌমিক-এর  একগুচ্ছ হৃদয়তান্ত্রিক ছোট কবিতা 
                  
                                ~তথাকথিত কাব্য~ 
               

একটা মৃত্যু ভোর রাত পর্যন্ত এ পংক্তি লেখাতে পারেনি 
অতলান্তের স্মৃতির মায়াটান 
ওই দিন একটা মৃত লোকের বিছানার পাশে আমার শুধু 
স্তব্ধতা ছিল  ! 
ঘুমন্ত থাকার মত নিশ্চুপ সময় মনখারাপের বসন জড়িয়ে 
আমাকে আরও নীরব রেখেছে ****
সমস্ত কম্পাউন্ড ফিনাইলের গন্ধ আর আহা - উহু বিষণ্ণ 
স্তব গানে — সকাল ছাড়িয়ে দুঃখ বোধে নির্বোধ হয়ে ছিল  ! 

আমি অভ্যন্তরে গদ্য লিখতে চাইলাম 
নদীর মত ঢেউ ভেঙে হৃদয় উৎসাহিত করেনি *****
তাই বলে শেষের কবিতা ছিঁড়ে ঝুড়ি কোদালের সঙ্গ 
এবং কালেভদ্রে সরীসৃপ হবার স্বপ্ন  ;
বড্ডো ন্যাকামী মনে হয়  ! 
প্রত্যাখ্যান কিম্বা আলিঙ্গন, এসব আর কবিতার গভীরে রাখি না , 
শুধু শিশির মানবীর যুবতী দেহে মনোকষ্টের রঙ্ বোলাই  !                                                                                                                                                                                                                                                                     
সম্মতি না থাকা চোখে স্মৃতিভূক 
পাথর মনে চরম নীরবতা ।
সেই আমি প্রপাত একলা নিছক স্বপ্নের সাথে 
স্তব্ধ রাত্রিকে বাড়াই সাদাসিধে দু’হাত ******
সম্মতি থাকতো যদি দরজা খুলে বলতাম, — চলে এসো 
অথচ গতানুগতিক বাতাসে আক্ষেপের বিষাদ গন্ধ , 
সেই শরীরীনী  ; যাকে জামগাছের নিচে প্রথম দিয়েছি চুমু   ! 
কে বলতে পারে সেদিন বসন্ত ছিল  !!                                                                                                                                                                                                                                                                                                        

                   ~আমি  তোমার  মধু  নেব~ 
          *********************
                   
            
বৃষ্টি ভেজা সেই শ্রাবণের হিমেল হাওয়া 
ওইটুকু স্বাদ অতল জুড়ে করছে ধাওয়া 
কী কারণে চাইছো তুমি ওষ্ঠ ভরা উষ্ণতাকে , —
কলিংবেলের শব্দ ডোবায় আমার প্রিয় সখ্যতাকে মধ্যরাতে  ! 

সেই যে দেখা জলার ধারে নীল দাঁড়কাক রক্তমাখা 
গাছগাছালীর অন্ধকারে ভিন্ন স্বাদের তীব্র ধাঁধা —
এবং শুধু চাঁদ ডুবেছে ওই বুকেতে , 
ভূত ভৈরব দীর্ঘকালের নজর কাড়া সোনালী পাখা  ! 

এরপরেতে স্বপ্নে আমার মনন জুড়ে সেই যে নারী 
বাসর ঘরের দরজা ভেঙে উড়িয়ে দিল জংলা শাড়ি ****
সিদ্ধিপাতার রস মেখেছে দুই স্তনেতে 
চড়া খিদের বান ডাকিয়ে প্রবেশ করবে সেই বনেতে মধুমাসে  ! 

আমি তোমার মধু নেব বলতে - বলতে কোথায় এলাম 
স্বপ্নে বোনা স্মৃতির প্রীতি এই কবিতায় খুঁজে পেলাম —
দু'চোখের এই ধারাস্নানে আমি ও আমি বড্ডো দুখী , 
সেই শ্রাবণের মেঘচ্ছায়ায় তোমার কবি ভীষণ সুখী  ! 

                        ~পুনশ্চ কথোপকথন~ 
              ********************
                           
            
জলরঙের তুলিতে দুর্ভেদ্য তিমির 
প্রতিদিন জ্বলন্ত শ্মশানে দেখি নিষিদ্ধ শরীর 
সোনামুখী রেল স্টেশনে রাতের ভাদুরে জ্যোৎস্না  ; যেন শ্বেতপদ্মের বিপন্ন বিস্ময় ~~ তবু বুকের তোলপাড় ভেঙে কোথায় 
কামড়ায় প্রিয় ভালোবাসা  ! 
এরই মধ্যে স্মৃতি ভ্রমণে দুরন্ত মনের মনান্তর ঠেলে 
পুনশ্চ কথোপকথন  ! 
সেখান থেকে নিরুদ্দেশের চিহ্ন আগুনে পুড়ুক 
ওই বন্যা রোদের খসে পড়া প্রবীণ বয়সী সেই নারীর 
আঁচল একদিন আমার চোখের জল মুছে দিয়ে স্নেহস্পর্শে 
বলেছিল, — তোর ইচ্ছাতেই প্রতিটা গ্রীষ্মের দুপুর আমি ডাকঘরের জানলার পাশে দাঁড়িয়ে থাকব , চিঠি দিস কিন্তু  '—
পরে আমায় ভুলে যাবিনা তো খোকা '  ? 
তারপর ফিরে এলাম সোনামুখী স্টেশনমাষ্টারের চাকরী নিয়ে , 
স্বতন্ত্র জীবনের হাজার ধ্বনির ভিতর  ! 
অথচ কোথায় তুমি মা ,  জল রঙের তুলিতে দুর্ভেদ্য তিমির 
স্তব্ধ হয়ে আছে — সেখানে জ্বলছে ব্যর্থ জিজ্ঞাসায় একটাই চিতা , 
তবে কি জন্মান্তরের প্রতিজ্ঞা তৈরী করতে মা আমার ব্যঞ্জনাময় 
আগুনে পুড়ছে কি ভীষণ জ্বালায়  !! 

                     ~এবং কথোপকথন~ 
            ********************************
                 
              
শূন্য ঘরটায় আরও শূন্য মনে হচ্ছিল নিজেকে 
তখন বৃষ্টির প্রত্যন্ত অসম সাহসী এক অলৌকিক অন্ধকার 
ঝিমিয়ে পড়েছিল রক্তময় নিঃসঙ্গ বিছানায় ****
এরপর টেলিফোনের সেই নারী  ; মধুশ্রী স্বপ্নে দিল দেখা  ! 
ও তোমাকে কিছু ব'লেছে —
সমর্পণের মন বুকের আর্শি ভেঙে বেরিয়ে এসে মৃদু লজ্জায় 
গোলাপ কুঁড়ির মতো ওষ্ঠ মেলে ব'লেছে — আমি তো ভালোবাসি, 
তবে এ্যাত চিন্তা কিসের বিদ্যুৎ  ? 
এরপর কি দেখলে কবি — ' দেখলাম ; মধুশ্রীর অসহিষ্ণু চোখের 
পাতায় শহরতলির বৃষ্টি আর কলকাতার সমস্ত দিন রোদ্দুর পোড়া 
গোড়ালিতে একটা কৃষ্ণকালো তিল **** 
হৃদয় অবাধ্য ছিলো তাই দেখে ।
ইস্ তুমি কি অসভ্য কবি !  এরপর কি হোলো  ? 
কি আবার হবে **** তার শ্বেত বাষ্পে ঘেরা রাতের দুরন্ত পোশাকে 
এক সমুদ্র উথাল - পাথাল । থাক ওসব কথা ।
কবি তুমি ডাক্তার দেখাও ; মাথাটা দেখছি একেবারে গেছে  ! 
তারপর কথোপকথন শেষে দুপুরের বৃষ্টি - বৃষ্টি মেঘলা 
আকাশটার দিকে তাকিয়ে আমার বান্ধবীটি বলে উঠলো, দেখো 
তো চিনতে পার কিনা  ? 
অঙ্কটা মিলে গেল আমাদের চোখে - চোখে                                                                                                                                                                                                                                                                              
******************************
কবি~ বিদ্যুৎ ভৌমিক 
৬৫ /১৭, ফিরিঙ্গি ডাঙা রোড, শ্রীরামপুর, হুগলি, সূচক ৭১২২০৩ 
পশ্চিমবঙ্গ, ভারতবর্ষ, মোবাইল~ ৬২৯০২৪৬৯৩২                                                                                                                                                                                                                                                      ********************************      

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK