বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮
Saturday, 15 Sep, 2018 01:09:31 am
No icon No icon No icon
মার্কিন উপকূলে আঘাত হেনেছে ঘূর্নিঝড় ফ্লরেন্স

হ্যারিকেন ফ্লোরেন্সে বিধ্বস্ত নর্থ ক্যারোলিনা


হ্যারিকেন ফ্লোরেন্সে বিধ্বস্ত নর্থ ক্যারোলিনা


টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রলয়ঙ্করী সামুদ্রিক ঝড় ‘হ্যারিকেন ফ্লোরেন্স’ প্রচণ্ড বাতাস ও প্রবল বৃষ্টিপাতসহ শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলে আঘাত হেনেছে বলে জানিয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন। ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি জানায়, সেখানে ‘ভয়াবহ’ বন্যার আশঙ্কায় সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্র ঘণ্টায় প্রায় ৯০ মাইল গতিবেগের ঝড়ো হাওয়া নিয়ে নর্থ ক্যারোলিনার রাইটসভিল বিচে আঘাত হেনেছে। ইতোমধ্যেই ঝড়ের প্রকোপে উপকূলীয় অঞ্চল ভেসে গেছে। বহু মানুষ দুর্যোগ থেকে উদ্ধার পাওয়ার আশায় বর্তমানে নিউ বার্ন শহরে আশ্রয় নিয়েছে। প্রায় পাঁচ লাখ মানুষকে ওই অঞ্চল থেকে সরে যেতে বলেছে কর্তৃপক্ষ। রাজ্যের জরুরি অবস্থা মোকাবেলায় নিয়োজিত কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, নর্থ ক্যারোলিনাজুড়ে প্রায় পাঁচ লক্ষ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।
নর্থ ক্যারোলিনার গভর্নর র্যে কুপার বলেছেন, এই ঝড়ের মধ্যে টিকে থাকাতে হলে ‘সহনশক্তি, দলবদ্ধ হয়ে কাজ করার ক্ষমতা, কমনসেন্স, এবং ধৈর্যের’ পরীক্ষা দিতে হবে।
ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিসের পূর্বাভাসদাতা ব্র্যান্ডন লকলিয়ার বলেছেন, নর্থ ক্যারোলিনায় আট মাসে যত বৃষ্টিপাত হয়, সেই পরিমাণ বৃষ্টিপাত আগামী দুই-তিন দিনে দেখা যাবে।
হ্যারিকেন ফ্লোরেন্স থেকে কয়েক হাজার মাইল দূরে একটি বিশাল টাইফুন ঝড় ফিলিপিনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। ‘সুপার টাইফুন মাঙ্খুট’ নামের ঘূর্ণিঝড়টিতে ৫০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।


অপরদিকে, ফিলিপাইনের দিকে ধেয়ে যাচ্ছে প্রচণ্ড শক্তিশালী সামুদ্রিক ঝড় ‘সুপার টাইফুন মঙ্খুট’। ঝড়ের প্রকোপে দেশটির প্রায় এক কোটি মানুষকে বাঁচাতে সেখানে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে এবং জরুরি সেবা দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। মার্কিন বার্তা সংস্থা সিএনএন জানিয়েছে, ওই এলাকা থেকে হাজার হাজার মানুষকে সরিয়ে নেয়ার কাজ চলছে।যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলে শুক্রবার আঘাত হানা হ্যারিকেন ফ্লোরেন্সের চেয়েও কয়েক গুণ শক্তিশালী সুপার টাইফুন মঙ্খুট রোববার ভোরে ফিলিপাইনের লুজন দ্বীপে আঘাত হানবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
বর্তমানে টাইফুনের ঝড়ো বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ১৮০ মাইল। ক্যাটেগরি-৫ মাত্রার প্রলয়ঙ্করী ঝড়টির কারণে পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াজুড়ে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। টাইফুন বারিজাত নামের আরেকটি ঝড়ও ওই এলাকায় আঘাত হেনেছে।ফিলিপাইনে ২০১৩ সালে টাইফুন হাইয়ানের তাণ্ডবে ৬,০০০ মানুষ নিহত হয়। মঙ্খুটের কারণে একই পরিমাণে ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা।সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ ও যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে বলে স্থানীয়দেরকে সতর্ক করেছে কর্তৃপক্ষ। সেই সঙ্গে নিচু এলাকায় বন্যা ও পাহাড়ি এলাকায় ভূমিধসের আশঙ্কা রয়েছে।
ফিলিপাইনের রেডক্রসের চেয়ারম্যান রিচার্ড গর্ডন বলেন, ‘এই বিধ্বংসী ঝড়ের গতিপথে থাকা ফিলিপাইনের এক কোটি মানুষের জন্য আমরা শঙ্কিত। আমরা জরুরি সহায়তা ও ত্রাণ প্রস্তুত করছি। আমাদের কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের যেকোনো সময় মাঠে নামার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে।’অস্ট্রেলিয়ার আবহাওয়াবিদ গ্রেগ ব্রাউনিং জানান, মঙ্খুট এবছর পৃথিবীতে তৈরি হওয়া সবচেয়ে শক্তিশালী ঝড়।সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট পত্রিকা জানিয়েছে, দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় আঘাত হানা সবচেয়ে সর্বকালের সবচেয়ে শক্তিশালী ঝড় হয়ে উঠতে পারে ‘সুপার টাইফুন মঙ্খুট’।

বছরের ‘সবচেয়ে শক্তিশালী’ ঘূর্ণিঝড়ের গতিপথে ১ কোটি ফিলিপিনো
এদিকে, আটলান্টিক মহাসাগরে সৃষ্ট হারিকেন ফ্লোরেন্স ইতোমধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকুলে আঘাত হানতে শুরু করেছে। আর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই ঘুর্ণিঝড়টি স্থলভাগ স্পর্শ করবে। উপকূলীয় উত্তর এবং দক্ষিণ ক্যারোলিনা অঙ্গরাজ্য দু'টির ১৭ লাখ মানুষকে ইতোমধ্যেই নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।জলোচ্ছাস এবং বৃষ্টির ফলে নিউ বার্ন নামে একটি উপকূলীয় শহরের কিছু অংশ এর মধ্যেই ৯ ফুট পানির নিচে চলে গেছে। অন্তত দু'লাখ বাড়ি-ঘর বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। ঘন্টায় ১৫০ কিলোমিটার গতিবেগের এই ঝড়ে অনেক মানুষের মৃত্যুর আশংকা করা হচ্ছে।ওই এলাকাগুলো থেকে লোকজনের নিরাপদ জায়গায় সরে যাওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে, কিন্তু দক্ষিণ ক্যারোলিনায় কমপক্ষে দু'টি কারাগারের বন্দীদের নিরাপদ আশ্রয়ে নেয়া হয়নি। সেখানকার কর্মকর্তারা ইতোমধ্যেই ঘোষণা দিয়েছেন যে, কারাবন্দীদের অন্য কোনো জায়গায় নেয়া হবে না। দক্ষিণ ক্যারোলিনার কারেকশন বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে তারা মনে করছেন, অন্য কোথাও নেয়ার চেয়ে বন্দীরা কারাগারেই নিরাপদ থাকবেন।
তবে উত্তর ক্যারোলিনা এবং ভার্জিনিয়ার কিছু কারাগার থেকে বন্দীদের ইতোমধ্যেই নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নেয়া হয়েছে। দক্ষিণ ক্যারোলিনার কারগার থেকে বন্দীদের নিরাপদ আশ্রয়ে না নেয়ার বিষয়টি সামাজিক মাধ্যমে আলোচনায় এসেছে।

হ্যারিকেন ফ্লোরেন্সে বিধ্বস্ত নর্থ ক্যারোলিনার উপকূল
২০০৫ সালে ভয়াবহ ক্যাটরিনা যখন আঘাত হেনেছিল, তখন কারাগারগুলোতে হাজার হাজার কয়েদী চরম বিপদে পড়েছিল। কমপক্ষে ১ হাজার বন্দীর মৃত্যু হয়েছিল। এই তথ্য একজন পিএইচডির শিক্ষার্থী টুইট করলে তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়। ফেসবুকেও তা নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা।
সে সময় ভূমিধসে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল। এর সাথে বন্যায় ভয়াবহ অবস্থা তৈরি হয়েছিল। কমপক্ষে ২ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। হারিকেন ক্যাটরিনার আঘাতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল নিউ অরলিন্স শহরে। বন্দীরা কারাগারের সেলের ভিতরে বন্ধ অবস্থায় ছিলেন। বন্দীদের বেশিরভাগই ছিলেন বিভিন্ন অভিযোগে বিচারের অপেক্ষায় অর্থ্যাৎ তারা তখনও অপরাধের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হননি।
ঝড়ের আঘাতের সাথে সাথে বিদ্যৎ চলে যায়। কারাগারের জেনারটরগুলোও বন্ধ হয়ে যায়। সেই পরিস্থিতিতে কারাগারের সেলগুলোতে বন্ধ রাখা বৈদ্যুতিক দরজাগুলোও কাজ করছিল না। বন্দীরা পরিত্যক্ত একটি কারাগারে বন্যার পানির ভিতরে ছিলেন এবং খাবারের সংকটে ভুগছিলেন।শেষ পর্যন্ত ঝড় আঘাত হানার চারদিন পর অরলিন্স শহরের কারাগার থেকে বন্দীদের অন্য জায়গায় সরানো হয়েছিল।

মার্কিন উপকূলে আঘাত হেনেছে ঘূর্নিঝড় ফ্লরেন্স
সে সময় বন্দীদের অনেকে বলেছিলেন, তারা কারাগারের ভিতরে বহু বন্দীর মৃতদেহ দেখেছেন। মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ দাবি করেছিল যে ৫১৭জন বন্দী নিখোঁজ হয়েছে।
১৯৯৯ সালেও যখন হারিকেন আঘাত হেনেছিল তখনও দক্ষিণ ক্যারোলিনার কারগার থেকে বন্দীদের নিরাপদ আশ্রয়ে নেয়া হয়নি। স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে এমন খবর প্রকাশ করা হয়। দক্ষিণ ক্যারোলিনার কারাগারের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বন্দীদের অন্য কোনো জায়গায় সরিয়ে নেয়াটা ব্যয়বহুল এবং সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।

ঘূর্ণিঝড় ফ্লোরেন্স : বিপজ্জনক উপকূলে কারাগারেই রয়েছে বন্দীরা
এছাড়া বন্দীদের সরিয়ে নিতে অনেক লোকবল প্রয়োজন, দুর্যোগের সময় সেই লোকবল পাওয়াও কঠিন। বন্দীদের পরিবহন করাও অনেক জটিল বলে কর্তৃপক্ষ মনে করে। বন্দীদের কারাগার থেকে না সরানোর ব্যাপারে এসব যুক্তি দিয়েছে দক্ষিণ ক্যারোলিনা কর্তৃপক্ষ।

 

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK