বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮
Wednesday, 16 May, 2018 12:59:56 am
No icon No icon No icon

গাজা হত্যাযজ্ঞের প্রতীক লায়লা আল-ঘান্দোর


গাজা হত্যাযজ্ঞের প্রতীক লায়লা আল-ঘান্দোর


টাইমস ২৪ ডটনেট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: লায়লা আনোয়ার আল-ঘান্দোর। বয়স মাত্রই আট মাস। পৃথিবীতে স্বার্থের দ্বন্দ্ব-হানাহানি সম্পর্কে বুঝার বয়স তার এখনো হয়ে ওঠেনি। কিন্তু তা বুঝার আগেই না ফেরার দেশে চলে গেছেন নিষ্পাপ এই মেয়ে শিশুটি।সোমবার গাজা সীমান্তে ইসরাইলি বাহিনীর বর্বরতার হাত থেকে রেহায় পায়নি সে। সৈন্যদের নিক্ষিপ্ত টিয়ারগ্যাস ইনহেলেশন শিশুটি মারা গেছেন।আর এই মৃত্যু তাকে ১৪ মে মুক্তিকামী ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভে হামলে পড়া হানাদার বাহিনীর বর্বরতার প্রতীকে পরিণত করেছে।প্যালেস্টাইন নেটওয়ার্ক ফর ডায়ালগের তথ্যানুযায়ী, লায়লা আল-ঘান্দোরের পরিবার পশ্চিম গাজার আল-শাতি জেলার বাসিন্দা। এটি বিচ ক্যাম্প নামেও পরিচিত।মঙ্গলবার অ্যাক্টিভিস্ট গ্রুপের পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়, আল-ঘান্দোর পরিবার নিথর লায়লাকে অশ্রুসজল চোখে চির বিদায় দিচ্ছেন।ইসরাইলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে সোমবারের বিক্ষোভে ওই শিশুটিকেও নিয়ে এসেছিলেন বয়োজ্যেষ্ঠরা। তাদের হয়তো স্বপ্ন ছিল, পরিণত বয়সে একটি মুক্ত দেশ পাবে সে। কিন্তু তার আগেই দখলদার বাহিনীর ছোড়া মুহুর্মুহু টিয়ারগ্যাসে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে শিশুটি। সোমবার বিক্ষোভে নিহতদের মধ্যে অন্তত আট জনের বয়স ১৮ এর নিচে। ওই দিনে বিক্ষোভে গুরুতর আহত ১৬ বছর বয়সী তালাল আদেল নামে এক কিশোর মঙ্গলবার মারা যান।
গাজার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তরের প্রতিবাদে গাজা সীমান্তে জড়ো হওয়া হাজার হাজার বিক্ষোভকারীর ওপর নির্বিচারে চালানো গুলিতে ৬০ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন দুই হাজারেরও বেশি লোক।
ইসরাইলি সামরিক বাহিনী এক দশকেরও বেশি সময় ধরে গাজা স্ট্রিপে ফিলিস্তিনিদের ভূমি, সমুদ্র ও আকাশপথ অবরোধ করে রেখেছে। ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডকে বাইরের জগত থেকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে এবং আল-ঘন্দোরের পরিবারসহ সেখানকার অনেক বাসিন্দাদের দারিদ্র্যপূর্ণ জীবন যাপনে বাধ্য করেছে।গত সাত সপ্তাহ ধরে গাজা স্ট্রিপের ফিলিস্তিনিরা নিজ ভূমিতে ফেরার অধিকার দাবিতে বিক্ষোভ করছেন। ১৯৪৮ সালে অবৈধ রাষ্ট্রটি প্রতিষ্ঠিত হলে প্রায় ৮ লাখ ফিলিস্তিনিকে তাদের ভূমি থেকে জোরপূর্বক উচ্ছেদ করা হয়। এর প্রতিবাদে ফিলিস্তিনিরা প্রতি বছর ‘গ্রেট রিটার্ন অব মার্চ’ পালন করে থাকেন। গত ৩০ মার্চ বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর থেকে ইসরাইলি বাহিনী অন্তত ১০৮ জন ফিলিস্তিনিকে হত্যা করেছে এবং প্রায় ১২ হাজার মানুষ আহত হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কন্যা ইভাঙ্কা এবং জামাতা জ্যারেড কুশনার, ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনজামিন নেতানিয়াহু মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধনের পরপরই গাজার এই রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। 
সূত্র: আল জাজিরা।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK