বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯
Wednesday, 16 Jan, 2019 12:30:34 pm
No icon No icon No icon

পরিশ্রম ই আমায় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিতে সহায়তা করেছে: আরিফ রহমান


পরিশ্রম ই আমায় আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিতে সহায়তা করেছে: আরিফ রহমান


টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা: ২০০৭ এর আগ থেকে মাইক্রোফোন হাতে রক ভয়েজে কাপিয়েছেন অনেক কনসার্ট এরপর একুশে টিভির সাবেক সি,ই,ও সায়মন ড্রিংক এর হাত ধরে টিভি মিডিয়ায়।তার ব্যাতিক্রমী কাজ,সমাজসেবা,দেশপ্রেম,টিভি অনুষ্ঠান বানানো তাকে অল্পসময়ের মাঝে নিয়ে আসে লাইমলাইটে। লিংকিন পার্ক ব্যান্ডের বায়োগ্রাফি তৈরি করে যেমন সুনাম কুড়িয়েছেন নিজ দেশে তেমনি এই জনপ্রিয় ব্যান্ডের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে স্থান করে পেয়েছেন রাতারাতি  আন্তর্জাতিক পরিচিতি। আজকের সাক্ষাৎকার অংশে থাকছে এখনকার শিশু, কিশোর, তরুন-তরুনীদের আইকন খ্যাত "এ আর কিডস মিডিয়ার " নির্বাহী প্রধান আরিফ রহমান শিবলী। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: কেমন আছেন?
আরিফ : আলহামদুলিল্লাহ ভালো। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: এখন কি নিয়ে ব্যাস্ততা কাটছে?
আরিফ রহমান : আপাতত মা কে নিয়ে ঘুরতে এসেছি নোয়াখালী। বোনের বাসায় নতুন ভাগ্নীকে নিয়ে ভালো ই কাটছে আলহামদুলিল্লাহ। আর যদি বলেন অফিসিয়াল ব্যাস্ততা আমি বলবো এরমধ্যে লোগো তৈরি হয়ে গেছে, ওয়েবসাইট তৈরিও প্রায় শেষদিকে,অফিসের নতুনকিছু জনবল নিয়োগের পরীক্ষার জন্য প্রাথমিকভাবে বাছাই করা হয়ে গেছে,আর এইতো বেড়াতে এসেও অফিসের কাজগুলো এগিয়ে নিচ্ছি।

টাইমস ২৪ ডটনেট: সংসার কেমন কাটছে?
আরিফ রহমান : আলহামদুলিল্লাহ। এইটা আমার কাছে ইবাদতের মত ই। সবমিলিয়ে বলবো হুম দুজনেই ভালো আছি। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: এখন অনেকে ই টিভিতে এসে হারিয়ে যাচ্ছে এরপ্রধান কারন কি মনে করেন?
আরিফ রহমান : এইটার একটার উত্তর রাতারাতি মানুষ তারকা হওয়ার পথ খুজে। আজ বিপাশা হায়াত,শমী কায়সার,জাহিদ হাসান, মোশারফ করিমের দিকে দেখুন এখনও জনপ্রিয় এবং মানুষ চিনে।কারন!ব্যাকগ্রাউন্ড শক্ত থাকা লাগে কাজ শিখা লাগে। এই দেখুন একুশে টিভি থেকে মুন্নি সাহা,জ ই মামুন,শাহনাজ মুন্নি,হাসনাইন খুরশিদ, ইলিয়াস হোসেন,কনক সারওয়ার সহ স্বনামধন্য অনেকে  ই উঠে এসেছিলেন টিভি সাংবাদিকতায় এখন সেভাবে উঠে আসছে না ক্যান?কারন! মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে ক্যামেরার সামনে দাড়ালেই সাংবাদিক হয়না। মানুষকে বুঝতে হয় আর শিখতে হয় প্রচুর,যেটার অভাব এখন চারিদিকে। সংবাদ উপস্থাপনাও তেমন মিথিলা ফারজানা,সামিয়া জামান,সামিয়া রাহমান এরা এখনো জনপ্রিয় কিন্তু কেন?তারা তারকা হওয়ার চেয়ে শিখার চেস্টা করেছেন অনেক এবং মানুষের মন বুঝতেন যেটা এখন খুব কম সংবাদ উপস্থাপক,উপস্থাপিকা করেন। তবে! এখন অনেকে ই ভালো করার চেস্টা করছেন। আমি মনে করি, কাজ শিখাটা সবচেয়ে জরুরী।দেশের চেয়ে আন্তর্জাতিক কোর্স বেশী করেছি শুধু জানার জন্য। যদি চিন্তা থাকতো তারকা হতে হবে তাহলে এতোদুর আশা হতো না। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: ক্যারিয়ার আন্তর্জাতিক দিকে নেওয়াটা কিভাবে সম্ভব হলও? 
আরিফ রহমান : ধন্যবাদ! মুল্যবান প্রশ্নের জন্য। যদি একদম সত্যিটা বলি মহান আল্লাহর ইবাদত আমাকে এতোদুর নিয়ে এসেছে।

টাইমস ২৪ ডটনেট: সারাদিনে কত ঘন্টা কাজ করেন?
আরিফ রহমান : উম এইটা কাজের উপর নির্ভরশীল।
আর বেশীরভাগ সময় ই রাত জেগে বিদেশী বন্ধু,সাংবাদিকদের সাথে কথা বলে কাটে। আন্তর্জাতিক যদি নিজেকে নিয়ে ভাবি অবশ্যই বাইরের 
নাগরিক,সাংবাদিকদের নিজেকে চিনাতে হবে সেইসাথে নিজের কাজকে চিনাতে হবে। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: সহধর্মিণী সহায়তা করে?
আরিফ রহমান : আমি এতো স্মার্ট ছিলাম না বিগত দিনে এমনকি ছবি তুলার আগ্রহ ছিলো না বললেই চলে। আমার সবকিছুতে ই পরিবর্তন এনে দিয়েছে।
এমনকি আমার সারাদিনের কি কি কাজ, কার কার সাথে মিটিং, কি পোশাক পড়া উচিৎ, কি কি নোট নিয়ে
মিটিং করা দরকার সব ই বুঝিয়ে দেন। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: কিডস মিডিয়ার দায়িত্ব পাচ্ছেন সহধর্মিণী? 
আরিফ রহমান : তিনি পরিচালক হিসেবে থাকবেন। আমি চাই পড়াশোনার পাশাপাশি নিজেকে সে তুলে ধরুক।আর কিডস মিডিয়া কে আমি আশা করি তার সহায়তা, বুদ্ধি নিয়ে আমি আরও অনেকদূর নিতে পারবো। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: তরুন সেলিব্রিটি হিসেবে অনেক মেয়ের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু এখন আরিফ তা সংসারে প্রভাব ফেলে?
আরিফ রহমান : নাহ! আমরা নিজেদের মাঝে সবকিছু ই শেয়ার করি। নিজেদের কে আমরা ভালো বন্ধু হিসেবে পেতে ই পছন্দ করি। 

টাইমস ২৪ ডটনেট: গতবছরের প্রাপ্তি কেমন?
আরিফ রহমান : আলহামদুলিল্লাহ অনেক। এই যেমন
বিয়ে করেছি ভালোবাসার মানুষটিকে,দেশটিভি নিউজরুমে অভিজ্ঞতা নিয়েছি,ব্রান্ডিং সম্পর্কে ভালো অভিজ্ঞতা নিয়েছি বেসরকারি একটি অফিসে উচ্চপদে কাজ করে আর সবচেয়ে বড় সাফল্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ঈদ শুভেচ্ছা কার্ড পেয়ে।

টাইমস ২৪ ডটনেট: যে সকল ছেলে যৌতুক নিয়ে বিয়ে করেন তাদের কিভাবে মুল্যায়ন করেন?

আরিফ রহমান : প্রথমত একজন বাবা যে বিশটি বছর লালনপালন করেন নিজের মেয়েকে, পড়াশোনা করান সেইটাকা কি আমরা পুরুষ গন দিতে পারবো?যদি দিতে পারি তার পরিমাণ কত হতে পারে?আর যদি না দিতে পারি মেয়ের বাবাকে, তাহলে কোনমুখ নিয়ে যৌতুকের কথা বলবো? এইকিছু ছেলের জন্য সবার অপমান হতে হয়। আমি তো একটাকাও যৌতুক নিয়ে বিয়ে করিনি কই আমার কি কোথাও কমে গেছে! নাহ বরং শশুড়বাড়ি তে, নিজ স্ত্রীর কাছে দাম বেড়েছে সেইসাথে বেড়েছে সম্মান। 


টাইমস ২৪ ডটনেট: ধন্যবাদ আপনাকে। 
আরিফ রহমান : আপনাকেও ধন্যবাদ

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK