শনিবার, ১৪ জুলাই ২০১৮
Sunday, 17 Jun, 2018 12:31:09 pm
No icon No icon No icon

খিলক্ষেতে ১৩ দিনেও গ্রেফতার হয়নি হত্যা মামলার প্রধান আসামী


খিলক্ষেতে ১৩ দিনেও গ্রেফতার হয়নি হত্যা মামলার প্রধান আসামী


এস.এম.নাহিদ,বিশেষ প্রতিনিধি, টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা : রাজধানী খিলক্ষেতে আলোচিত রাকিব হত্যার মূল আসামী ইকবাল দেওয়ানকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এখনো আটক করতে পারেনি। গত সোমবার ০৪/০৬/২০১৮ ইং তারিখ দিবাগত রাত আনুমানিক ৩টার সময়ে রাজধানীর খিলক্ষেতে রাকিব (২৫) নামেরএক যুবককে পিটিয়ে এবং ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়। পাশাপাশি উক্ত এলাকার বাসিন্দা মিলন (২৬) কে হাত-পা বেধে হাতুড়ি ও ছুরি দিয়ে গুরুতর জখম করা হয়। অনুসন্ধানে জানা যায়, খিলক্ষেত থানাধীন বরুয়া লঞ্জনীপাড়া এলাকার হবি মিয়ার ছেলে রাজ মিস্ত্রি রাকিব মাছ ধরতে রাতে বাড়ী থেকে বের হলে মিলনের উপর ইকবাল বাহিনীর ন‌ির্যাতনের কর্মকান্ড দেখে ফেলায় সকালে বাড়ীর কাছে খেলার মাঠে ইকবাল বাহিনী খুন করে হতভাগা রকিবকে। 
এদিকে গুরুতর আহত মিলনের সাথে আলাপকালে জানা যায় - একই এলাকার বাসিন্দা মুনসুর দেওয়ানের ছেলে ইকবাল দেওয়ানের (মোবাইল নং- ০১৯১৪১২৯১২০) নেতৃত্বে ৮/৯ জন মুখোশ পরা ব্যাক্তিরা রাত ৩টার পরে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে ঘাড়ে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছুরিকাঘাত করে। পরে মৃত্যু নিশ্চিত করণে ইকবাল দেওয়ান মিলনের ডান হাতে সিগারেটের আগুন দিয়ে ছ্যাঁকা দেয়। কোন নড়াচড়া না পেয়ে ইকবাল ও তার সংীরা রুমে তালা মেরে পালিয়ে যায়। সকালে মিলনের স্বজনেরা তাকে উদ্ধার করে কুর্মিটোলা মেডিকেলে নিয়ে যায়।
এলাকাবাসীর সংগে আলাপকালে জানা যায় - এলাকাতে থানা পুলিশের আসা যাওয়া কম থাকায় এখানকার স্থানীয় মাদক ব্যাবসায়ীরা চরম বেপরোয়া। শাহজালাল বালুর মাঠে জাহাঙ্গীর ওরফে কোটিপতি জাহাংগীর,গাঁজা জামির এবং কথিত ছাত্রলীগ সমর্থক হায়দার আলীর ছেলে মাহাবুব দীর্ঘদিন থেকে এলাকার ইয়াবা ও জুয়া খেলা পরিচালনা করে। অজানা কারনে তারা প্রশাসনের ধরাছোঁয়ার বাহিরে থাকে সর্বক্ষণ। কারণ বরুয়া ব্যাংকের ম‌োড় থেকে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙিয়ে কথিত এক ব্যক্তি ওই এলাকার মাদক,জুয়া সহ বিভিন্ন অনৈতিক ও অসামাজিক কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রন করে থাকে। 
আগেও এই মিলনের সাথে একই এলাকার সদ্য মাদক মামলায় জামিনে আসা ঠোট কাটা এমদাদুল,গাঁজা ব্যবসায়ী পারুলের স্বামী মরজুন দেওয়ান,নিজামের ছেলে নাঈম,নাসিরুদ্দিনের ২ ছেলে বাবু ও সেতু,হাফিজ উদ্দিনের ছেলে সুজন এবং মন্তাজুদ্দীনের ছেলে মাহাবুর এর সাথে বিরোধ ছিল। বিভিন্ন সময়ে প্রশাসনকে এইসব ইয়াবার ডিলারদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গণমাধ্যম কর্মীদের তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করায় এমনটা ঘটেছে বলে জানিয়েছে মিলন। ইতিপূর্বে এই ইকবাল বাহিনী মিলনের কাছ থেকে একাধিকবার টাকাও ছিনিয়ে নিয়েছে। ভয়ংকর এই ইকবাল বাহিনী প্রধান ইকবাল দেওয়ান উক্ত এলাকাজুড়ে  একটি আতঙ্কিত নাম। আর এই বাহিনীর সব'শেষ টার্গেট ছিল মিলন।
ইতিমধ্যে এই মামলার এজাহার ভূক্ত আসামী ২জন গ্রেফতার হলেও প্রধান আসামী এখনো ধরাছোয়ার বাহিরে।এদিকে এই মামলাটি থানাপুলিশকে ম্যানেজ করে একটি মহল ধামাচাপা দেবার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে সূত্রে জানা যায়।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK