রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯
Sunday, 21 Jul, 2019 04:27:39 pm
No icon No icon No icon

চিকিৎসা সেবার নামে ভোগান্তির শিকার সাধরণ জনগণ

//

চিকিৎসা সেবার নামে ভোগান্তির শিকার সাধরণ জনগণ


শামিম চৌধুরী, টাইমস ২৪ ডটনেট, ঢাকা:  "শিক্ষার জন্য এসো সেবার জন্য বের হও" মানব সেবা সমাজের মহৎ কাজ। তেমনি এই সমাজে চিকিৎসক একজন মানব সেবক আর চিকিৎসা কেন্দ্র সমাজের নিপীড়িত মানব সেবার স্থান।  একজন চিকিৎসক ও হাসপাতালে সর্ব শ্রেনির মানুষ সেবা নিতে যাবে এটা সাভাবি। কিন্তু বর্তমান সেই মানব সেবক চিকিৎসদের থেকে মানব সেবা কি পাচ্ছে এবং চিকিৎসালয় (হাসপাতাল) নামে প্রতিষ্ঠানে কি হচ্ছে দেশে? সরেজমিনে রাজধানির কয়েকটা হাসপাতালে তথ্য নিয়ে জানা গেছে, বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিক। কিন্তু সে সব হাসপাতাল গুলো ডাক্ততারদে সেবার মান অত্যান্ত নাজুক অবস্থা। এদিকে সরেজমিনে তথ্য পাওয়া যায় আমাদের দেশে ৯০ শতাংশ গর্ভবতি নারীদের ও তার আত্নিস্বজনদেকে সিজারে সন্তান প্রসবে পরামর্শ দিয়ে থাকেন এসব হাসপাতাল গুলোর ডাক্তাররা। এ কারন সিজারে গর্ভবতি মাকে সন্তান প্রসব করাতে পারলে মোটা অংকের টাকা চলে আসে এ সব ডাক্তারদের পকেটে আর সেই মহাউৎাবে মেতে উঠেছেন হাসপাতাল গুলোর অধিকাংশ ডাক্তাররা,শুধু সেটা করে এ ধরনে ডাক্তার ক্ষান্ত হননি, এমনও তথ্য মেলে অনেক সময় ডাক্তাররা গর্ভবতি মহিলাকে সিজার করেন এবরো থেবরো অবস্থা এবং সিজার অপারেশনের পর সেলাই করার আগে অপারেশনের যন্ত্রাংশ (গজ কাপড়,কেচি) পেটের ভিতরে রেখেই অনেক ক্ষেত্রে তাঁরা সেলাই করে ফেলে এবং পরবর্তিতে ঐ সব রোগিদের শরীরে নানা ধরনে সমস্যা দেখা দেয়, আরো জানা গেছে গর্ভবতি রোগি বা অন্যান্য অপারেশনের রোগিদের অপারেশনে সময় ডাক্তারদের অসর্তকতার কারনে অপারেশনে যন্ত্রাংশ দিয়ে কিডনি,হার্ট,ভাল্ব ও ফুসফুসেতে আঘাত লাগলে পরবর্তিতে শরীরের ঐ আঘাত জনিত স্থথান যেমন কিডনি,হার্ট,ভাল্ব ও ফুসফিসে নষ্ট হয়ে যাওয়া ঘটনা। অথচো এই সব হাসপাতল গুলোতে অপারেশনে পূর্ব রোগিদের নিকট থেকে মোটা অংকের টাকাও নিয়ে নেওয়া হয়। এমনকি অনেক সময় ডাক্তাররা সন্তান পরিবর্তনও করার ঘটনাও শোনা যায়। যার কারনে পরবর্তিতে ঐ ভুমিস্ট সন্তানে রক্তের গ্রুপ (ডিএনএ টেস্ট) পরিক্ষা করে ঐ সন্তানে রক্তের গ্রুপের সাথে জন্মদাতা পিতা,মাতার রক্তের গ্রুপ না মিললে তখন নেমে আসে একটি পরিবারের মধ্যে অশান্তি।
এদিকে সরকারি হাসপাতাল বা প্রাইভেট ক্লিনিকে যে সব ডাক্তাররা রোগি দেখেন তাদের প্রত্যেকের আলাদা আলাদা চেম্বারও আছে যা কারনে রোগিদে রোগ সম্পর্কে ভালো ভাবে শোনেন না এবং তাদেরকে ঐ সব অসাধু ডাক্তাররা তাদের চেম্বারে যাওয়া জন্য রোগিদের পরামর্শও দিয়ে থাকতে শোনা যায়। এ দিকে রাজধানির কয়েকটা সরকারি (ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল,টঙ্গি মেডিকেল সহ অন্যান্য সরকারি হাসপাতাল) ও বেসরকারি(ধানমন্ডিতে বাংলাদেশ মেডিকেল,উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল,দক্ষিণখান কেসি হাসপাতাল,চাঁদের হাসি মেডিকেল, পারিবারিক স্বাস্থ্য সেবা হাসপাতাল(প্রাঃ),  প্রেমবাগান সংলগ্ন তারেক মেডিকেল এন্ড ডায়েগনিস্ট সেন্টার,  উত্তরা ৭নম্বর সেক্টরে আরএমসি হাসপাতাল লিঃ,ক্রিসেন্ট হাসপাতাল সহ অন্যান্য প্রাইভেট ক্লিনিক) গুলোতে মহিলা রোগিরা চিকিৎসকদের কাছে চিকিৎসা নিতে গেলে নিরবে যৌন নির্যাতনের মত জঘন্য ঘটনায় শিকার হওয়ার মত কথাও জানতে পারা যায় যা নিরবে ধামা চাপা পড়ে যায়। রোগি ও তাদের আত্নিয় স্বজনদের ক্ষোভ আমরা টাকা দিয়ে চিকিৎসা সেব নিবো আবার নির্যাতের শিকার হবো কেনো?  তারা আরো জানায়  বলেন বাংলাদেশ মেডিকেল এ্যাশোসিশন,প্রশাসন,স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় তারাও বা কি করছেন?  এ ধরনে দূর্নীতিবাজ ডাক্তারদে বিরুদ্ধে  কঠোর ব্যবস্থ নিচ্ছেন না কেনো? এমন ধরনে ঘটনা শুধু রাজধানি ঢাকা শহরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক গুলো নয় ঢাকার বাহিরেও চিকিৎসক ও চিকিৎসা কেন্দ্রেও এমন ঘটনা দেখা যায়। তাহলে কোথায় থাকলো চিকিৎসা সেবার নামে মানব সেবা আর হাসপাতাল গুলোতে রোগি ও আত্নিয়দের নিরব নির্যাতন? আজ কিছু অসাধু ডাক্তারদের কাছে থমকে আছে মানব সেবা। কে করবে প্রতিবাদ? হাসপাতাল ও ডাক্তার এ দুটোর সাথে সব ধর্মে ও সব পেশার মানুষ সমপ্রিক্ত। এ ধরনে অর্থ লোভি,দূর্ষ চরিত্র ডাক্তারদের চিহ্নিত করে সমাজের সামনে এনে ডাক্তার নামক মুখোশ ধারিদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি আশা করে সেবা কেন্দ্রে নিরাপত্তাও আশা করে সুশিল সমাজ।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK