রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯
Wednesday, 06 Feb, 2019 11:20:53 am
No icon No icon No icon

আখ চাষিরা পাওনা টাকা থেকে বঞ্চিত বার-বার, এর দায়ভার কে বহন করবে!

//

আখ চাষিরা পাওনা টাকা থেকে বঞ্চিত বার-বার, এর দায়ভার কে বহন করবে!


আব্দুল হান্নান, টাইমস ২৪ ডটনেট, পাবনা থেকে: দেশের খাদ্যের চাহিদা মিটিয়ে থাকেন চাষিরা কিন্তু চাষিদের দুঃখ দুর-দশা এমনকি চাষিদের কৃষিক্ষেত্রে যে উপকরণ তা যথা সময় পাওয়া থেকে বঞ্চিত। এতে করে সরকারের অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলবে। অনেক চাষিরা এখন থেকে আখ চাষ ও উৎপাদন না করার ঘোষনা দেন। এমনটি ঘটেছে লক্ষীকুন্ডো ঈশ্বরদী উপজেলার বিলকাদের গ্রামে আখ চাষি আকতার হোসেন তিনি বলে পাবনা সুগার মিলকে আখ সরবরাহ করি ১০ লক্ষ টাকার কিন্তু ১০ লক্ষ পাওনা টাকা দীর্ঘ দিন ধরে টাকা না দিয়ে টাল বাহানা করেন কর্তৃপক্ষ। ফলে পুনরায় আখ চাষ করার জন্য টাকা প্রয়োজন শ্রমিকদের। অনেক শ্রমিকরা বকেয়া টাকা না পাওয়া পর্যন্ত উক্ত শ্রমিকরা এক ধরনের অবরোধ করেছে। তিনি আরও বলেন প্রায় ১৫ কোটি টাকা পাবেন চাষিরা মিলের কর্তৃপক্ষের কাছে। অনেক চাষিরা টাকার জন্য ঋণগ্রস্থ হয়ে পরেছে এমনকি টাকার জন্য নতুন ফসল আখ চাষ করতে পারছেন না এর দায় ভার কে বহন করবেন এমনি প্রশ্নবিদ্ধ করেছে জনগণ। আকতার আরও বলেন ডিপার্টমেন্টের ম্যানেজমেন্টের অবহেলায় কৃষিরা আজ পাওনা টাকা থেকে বঞ্চিত, পাশাপাশি এর খেসারত দিতে হচ্ছে আখ চাষিদের এতে শুভলক্ষন প্রতিয়মান হয় না বরং অশুভ ইঙ্গিতে বহন করে। এই সেক্টরকে পূর্নরুদ্ধার করতে হলে সঠিক সময় পাওনা টাকা চাষিদের পরিশোধ না করা হল আবারও মিল বন্ধ হয়ে যাবে এর দায় ভার ডিপাটমেন্টের বহন করতে হবে বলে চাষিরা জানান। 

এছাড়া যারা টাকা পাবেন তাদের মধ্যে আখ চাষি রাকিব ১০ লক্ষ টাকা মাহাবুল প্রামানিক ৪০ লক্ষ, আয়নুল প্রামানিক ১০ লক্ষ লক্ষীকুন্ডা ইউনিয়ন বিলকাদের ঈশ্বরদী। এরা পাবনা সুগার মিল ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাহেদ আলা আনছারী কাছে ১০/১৫ বার পাওনা টাকার জন্য আসলেও খালি হাতে যেতে হয়েছে। এ ব্যাপারে মাহাবুল বলেন আনছারী সাহেবের চেষ্টা ক্রুটি নেই এবং আপ্রাণ চেষ্টা করেন তিনি বরং প্রধান কার্যালয় খাম খেয়ালিপনে আজ আখ চাষিরা নিরুৎসাহিত হয়ে যাবে আর থামানো যাবে না বলে দীপ্ত কন্ঠে ঘোষনা দেন। তাছাড়া বড় মাঝারী হত সাধারণ চাষিরা সর্ব সার্কেলে বিনিয়োগ করেছেন লাভের আশায় তা ধূলায় মিশিয়ে যায়। ফলে সাধারণ চাষিরা নিঃস্ব জীবন যাপন এখন কি টাকার জন্য দারে-দারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন, তবুও কর্তৃপক্ষের মন গলেনী এখন সময় আসবে এর বিস্ফোরণে বন্ধ হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে এমনটি মনে করে অজ্ঞিজনরা। এবং ন্যায্য প্রাপ্য টাকা থেকে বার বার বঞ্চিত হচ্ছে চাষিরা, তবে সরবরাহকৃত ২০ হাজার চাষিরা পাওনা টাকা প্রায় ১ কোটি ৮৫ লক্ষ টাকা দেন। এখন পর্যন্ত ১৪ কোটি টাকা প্রাপ্য চাষিরা তিন মাস মাড়াই ও সরবরাহ চালু তারপর আবার পুনরায় বন্ধ। বীজ তলা অর্জন ৫৭৩.৮৩ একর পাবনা সুগার মিল হাল হাকিকত। উপ মহাব্যবস্থাপক (সম্প্রসারণ) বিমান কৃষ্ণ রায়, তিনি ন্যায়-নিষ্ঠভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। তারপরেও কৃষকের বকেয়া পাওনা টাকা না দিতে পেরে কুরে কুরে খাচ্ছে আমার জীবন। দায়িত্ব থাকলেও তাদের জন্য কিছু করতে পারছি না। (সূত্রমতে জানা যায়)।          

 

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK