মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯
Saturday, 12 Jan, 2019 07:54:30 pm
No icon No icon No icon

পাবনা ঈশ্বরদী ৫০শয্যা হাসাপাতাল চিকিৎসা জগতে দৃষ্টান্ত রেখেছেন!

//

পাবনা ঈশ্বরদী ৫০শয্যা হাসাপাতাল চিকিৎসা জগতে দৃষ্টান্ত রেখেছেন!


আব্দুল হান্নান, বিশেষ প্রতিনিধি, টাইমস ২৪ ডটনেট, পাবনা থেকে: অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ৫টি মৌলিক মানুষের প্রয়োজন। তার মধ্যে চিকিৎসা প্রদান অন্যতম। তারই ধারাবাহিকতার রূপদান করেছেন। চিকিৎসা জগতের পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর প্রধান ডাঃ এফ.এ আসমা খান, (প.প), ৫০ শয্যা হাসপাতাল প্রায় ৩ লক্ষ ৬০ হাজার জনসংখ্যা নিয়ে কার্যক্রম। মেডিকেল অফিসার ৬ জন, নার্স ২৭ জন, ষ্টাফ ৮০ জন। পর্যাপ্ত পরিমাণ ঔষধ স্যালাইন না থাকায় চিকিৎসা প্রদানে বেগ পেতে হয়। পরিসংখ্যানবিদ নাজনীন আফরোজ তিনি জানান, সিজার রোগী ৩৪৩, নরমাল ডেলিভারী ১ হাজার ৪ শ রোগীদের এক মাসের রিপোর্ট প্রদান করেন এবং নাজনীন যোগ্য ব্যাক্তি পরিসংখ্যানবিদ হিসাবে কাজ করে যাচ্ছে। আর এম ও শামীম ডাক্তার হিসাবে যেটুকু করার তিনি চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। ফলে বাংলাদেশের মধ্যে উক্ত স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত লক্ষ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন বলে তিনি জানান। তবে খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, ঈশ্বরদীবাসীর কাছে প্রিয় ব্যাক্তি কেননা তারমত ব্যাক্তি অত্র এলাকাতে নেই বললেই চলে। তিনি মানুষের হৃদয়ের মনি কোঠায় পোঁছাতে সক্ষম হয় শামীম।   

ডাঃ আসমা খান দীর্ঘ কয়েক বছরের অভিজ্ঞতার আলোকে ঈশ্বরদী উপজেলার কিঞ্চিত ব্যাক্ত করেন চিকিৎসা ক্ষেত্রে যে সকল যন্ত্রপাতি তা নেই। যার কারণে সাধারণ জনগণ আমাদের সেবার মান নিয়ে ভুলভ্রান্তি প্রচার করে থাকেন। কেননা তারা জানে না সরকারি স্বাস্থ্য নীতি মালার আলোকে উপজেলা পর্যায়ে বরাদ্দ হয়ে থাকে। তিনি বলেন, আমাদের ডাক্তার ও ষ্টাফরা অপ্রাণ চেষ্টা করেন রোগীরা সঠিক চিকিৎসা পান। এই নিরীক্ষে আসমা খান প্রাণপন চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। কেননা যোগ্যতা সম্পূর্ণ ব্যাক্তির মূল্যায়ন চিরদিন অ¤øান হয়ে থাকে। তারই স্বাক্ষীর কাল ঈশ্বরদীবাসী। ডাঃ শামীম এক প্রশ্নে তিনি বলেন, রাশিয়া ট্রেনিং এর জন্য যাই দীর্ঘ ৭ বছরের রাশিয়ার জনগণের কথা তুলে ধরেন সভ্যতা কৃষ্টিকালচার যা বুঝায় সেই সবগুণাবলী তাদের মধ্যে আছে। তবে তারা যদি ঈমান আনতো তা আমাদের থেকে আল্লাহর কাছে প্রিয় ব্যাক্তি হিসেবে গণ্য হতেন। সরেজমিনে গিয়ে খোজ খবর নিয়ে তথ্য উপাত্ত পাওয়া যায়। ডাঃ আসমা খানের কারণে সঠিকভাবে অত্র এলাকার মানুষ চিকিৎসা পাচ্ছেন তানাহলে ডিপার্টমেন্টের জন্য কলঙ্কের কালি লোপন হতে হতো। যোগ্যতার সম্পূর্ণ সুবাদে এখন পর্যন্ত কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে রয়েছে  স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।  

অপরদিকে স্যানেটারী পরিদর্শক সানোয়ার হোসেন এর সাথে কথা বলে তিনি বলেন, প্রিমিসেন্স লাইসেন্স ১৩৯, মোবাইল কোর্ট অভিযান ১২, মামলা ২২টি, জরিমানা ২ লক্ষ ৩৯ হাজার টাকা। জনবলের অভাবে কার্যক্রমের বিঘ্ন হচ্ছে। তবে ট্রেনিং প্রাপ্ত স্যানেটারী প্রায় কয়েক হাজার ষ্ট্যান্ড বাই রয়েছে। ডিপার্টমেন্ট মনে করেন যদি তাহলে ঈশ্বরদী উপজেলার জন্য দিতে পারেন। তিনি আরও বলেন ২২শ নিরাপদ খাদ্য নিয়ে কার্যক্রম চালু আছে। একই ব্যাক্তি ৩টি পদের দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে। ১৪/২৫ বয়সের যুবক যুবতী যুব বান্ধব চালু রয়েছে। তিনি বলেন, ভেজাল খাদ্য দ্রব্যের ব্যাপারে আরও কঠোর আইনের প্রয়োজন। তবে যে সব আইন আছে তাতে করে ভেজালকারী ব্যবসায়ীরা সতর্ক না হয়ে ভেজাল খাদ্য উৎপাদন করায় আজকে রোগী সংখ্যা দিনকে দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমান সরকার ভেজালের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার জন্য মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ প্রদান করেছে। এ ব্যাপারে খাদ্য নিরাপদ কর্র্র্তৃপক্ষ একটি ডিপার্টমেন্ট হয়েছে যা জাতির জন্য ইতিবাচক। আশাকরি উক্ত ডিপার্টমেন্ট যথাযথ দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করবেন বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।          

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK