সোমবার, ২১ জানুয়ারী ২০১৯
Tuesday, 25 Dec, 2018 01:08:55 am
No icon No icon No icon

ভোট কিনতে টাকা: আটক ৩


ভোট কিনতে টাকা: আটক ৩


খন্দকার হানিফ রাজা, বিশেষ প্রতিনিধি, টাইমস ২৪ ডটনেট: ভোট প্রদান নৈতিক অধিকার, তবে প্রার্থীর পক্ষ থেকে ভোটারদের ভোট কিনতে অর্থ প্রদানের কার্যটি সম্পূর্ণ অনৈতিক। তারপরও ভোট কিনতে ভোটারদের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যায় টাকা। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও এর ব্যত্যয় ঘটেনি। ইতোমধ্যে ভোটারদের ভোটের বিনিময়ে অর্থ প্রদান শুরু করেছেন প্রার্থীর সমর্থকরা। আর ভোট কেনার টাকা দেয়ার সময় রাজধানী ঢাকা ও হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলা থেকে ৩ জনকে হাতেনাতে আটক করেছে পুলিশ।
জানা যায়, ভোটারদে ভোট কেনার জন্য মোটা অংকের টাকার ছড়াছড়ির প্রবণতা বেড়েছে প্রার্থী ও তাদের পক্ষে নিয়োজিত প্রতিনিধিদের মধ্যে। সারাদেশব্যাপী এ ধরণের অভিযোগ থাকলেও ইতোমধ্যে রাজধানী ঢাকা ও হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় টাকাসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা জাতীয়পার্টির নেতাসহ ৩ ব্যক্তিকে আটক করেছে। তাদের মধ্যে নবীগঞ্জ থেকে আটক হওয়া জাতীয় পার্টির নেতাকে ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে কারাগারে পাঠিয়েছেন। অপরদিকে, রাজধানী থেকে টাকাসহ গ্রেফতার হওয়া দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।
আরো জানা যায়, ২৪ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে টাকা ভোট কেনার টাকার বিতরণের সময় রাজধানীর শাহজাহানপুর এলাকা থেকে নগদ ৪ লাখ টাকাসহ ২ জনকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। আটককৃতরা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী মির্জা আব্বাসের কর্মী বলে পুলিশ জানিয়ে।

আটক ব্যক্তিরা হলেন, শহীদুল ইসলাম ও আব্দুল মুহিত। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা নিজেদের ঢাকা-৮ আসনে বিএনপি তথা ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী মির্জা আব্বাসের কর্মী বলে স্বীকার করেছেন বলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অতিরিক্ত কমিশনার জুয়েল রানা জানান, রাত থেকেই তাদের পরিকল্পনা চলছিলো টাকা দিয়ে ভোট কেনার। তারা রাজারবাগ এলাকার আল বারাকাহ মেডিকেল কলেজের সামনে পূর্ব-পরিকল্পনা অনুযায়ী টাকা বিতরণ করছিলেন। প্রযুক্তির মাধ্যমে টাকা লেনদেনের তথ্য পূর্ব থেকেই জেনে ওঁৎ পেতে ছিলো ডিবি পুলিশ সদস্যরা। পরে দুপুর আড়াইটার দিকে শহীদুল ও মুহিতকে হাতেনাতে টাকাসহ আটক করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা নিজেদের ঢাকা-৮ আসনের বিএনপির প্রার্থী মির্জা আব্বাসের কর্মী বলে স্বীকার করেছেন। এদের মধ্যে শহীদ মির্জা আব্বাসের ভাই মির্জা খোকনের বন্ধু। নির্বাচন উপলক্ষে মালয়েশিয়া থেকে এই টাকা এসেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছে।
এদিকে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে রোববার মধ্যরাতে টাকা বিতরণের সময় জাতীয় পার্টির নবীগঞ্জ পৌর কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুরাদ আহমদকে নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন ও অবৈধভাবে ভোটারদের মাঝে টাকা প্রদানের দায়ে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। সোমবার ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল গণি ওসমানী তাকে এক মাসের কারাদন্ড দিয়ে কারাগারে পাঠান।
নবীগঞ্জ থানা পুলিশ জানায়, গভীর রাতে জাপা প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিকের পক্ষে নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করে নানা অপতৎপরতা ও ভোটারদের মাঝে টাকা বিতরণের অভিযোগে রোববার রাতে নবীগঞ্জ শহরের নতুন বাজার মোড় থেকে মুরাদকে আটক করা হয়। তাকে সোমবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে হাজির করা হলে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে এক মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে কারাগারে পাঠায়।
এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল গণি ওসমানী বলেন, নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করে রাত দেড়টায় নির্বাচনি লিফলেটের সঙ্গে অবৈধভাবে টাকা বিতরণ করে প্রচারণা চালানোর দায়ে মুরাদকে কারাদন্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয় বলে জানান তিনি।
অপরদিকে, কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ঝলম বাজারে ভোটারদের মাঝে টাকা বিতরণের সময় বিএনপির প্রার্থী জাকারিয়া সুমনের কর্মী আবুল বাশারকে আটক করে স্থানীয়রা। ওই রাতেই তাকে গণধোলাই দিয়ে মুচলেখা রেখে ছেড়ে দেন স্থানীয় মাতব্বররা। এই ঘটনার পর থেকে আবুল বাশারকে খুঁজেও পাচ্ছেন না গণমাধ্যম কর্মীরা। 
এ প্রসঙ্গে বরুড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলী আজম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তারা বাশারকে খুঁজে পাচ্ছে না। তাকে পাওয়া গেলেই বিস্তারিত জানা যাবে।

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK