বৃহস্পতিবার, ০৯ আগস্ট ২০১৮
Wednesday, 18 Apr, 2018 01:19:48 pm
No icon No icon No icon

বগুড়ায় নৌকার প্রচারণায় আহছানুল হক, টার্গেট তৃনমূল


বগুড়ায় নৌকার প্রচারণায় আহছানুল হক, টার্গেট তৃনমূল


এম নজরুল ইসলাম, টাইমস ২৪ ডটনেট, বগুড়া থেকে: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন-প্রত্যাশীদের প্রচারণায় চাঙা হয়ে উঠেছে দলটির তৃণমূল। ৩৯ বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনের আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী অধ্যাপক এ এন এম আহছানুল হক নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন। তার সহযোগীতা ও তৃনমূলে নিয়মিত যোগাযোগ রাখার কারণে উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠান, ধর্মীয় সমাবেশ ও রাজনৈতিক কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন তিনি। প্রত্যেকটি ইউনিয়ন পর্যায়সহ ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে তৃনমূল আওয়ামীলীগ নেতাকর্মী ও সর্বসাধারণের সাথে মতবিনিময়, উঠান বৈঠক এবং নিয়মিত নৌকার পক্ষে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন অধ্যাপক আহছানুল হক। ফলে চাঙাভাব দেখা দিয়েছে তৃণমূলের রাজনীতিতে। বাড়ছে নৌকার প্রচার-প্রচারণাও। শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন জনতার কাছে তুলে ধরছেন তিনি। পাশাপাশি এলাকার অসহায়-গরিব মানুষকে সহযোগিতা করা ছাড়াও রাস্তার মোড়ে মোড়ে, হাট-বাজার, বাসস্ট্যান্ডসহ বগুড়া-৪ আসনের প্রায় প্রত্যেকটি ছোট-বড় রাস্তা এবং বিভিন্ন মহল্যার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে ডিজিটাল ব্যানার, পোস্টার ও ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে।
জানা গেছে, বগুড়া-৪ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন চান আলহাজ্ব অধ্যাপক এ এন এম আহছানুল হক। কাহালুর শীতলাই গ্রামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এক-নিষ্ঠ অনুসারি, সাবেক আওয়ামীলীগ নেতা ও সাবেক প্রধান শিক্ষক মরহুম এ কে এম আমীর আলী ও পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মাজেদা খাতুনের কোলজুড়ে ১৯৭২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহন করেন আহছানুল হক। তার পিতা আমীর আলী ১৯৫৪ সাল থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এক-নিষ্ঠ অনুসারি হয়ে সারাটি জীবন আওয়ামীলীগের ও এলাকার জনগণের সেবা করে গেছেন। যা কখনই ভোলার নয়। সরকারি চাকুরি করার কারণে তিনি দলের কোনো হেবিওয়েট পদে থাকতে পারেননি। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী অধ্যাপক এ এন এম আহছানুল হক ১৯৮৮ সালে কাহালু উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি’র প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ, ১৯৯০ সালে সরকারি আজিজুল হক কলেজ থেকে এইচএসসি’র প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ, ১৯৯৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) থেকে বিএ অনার্স (ইংরেজী) দ্বিতীয় শ্রেণীতে উত্তীর্ণ, ১৯৯৫ সালে ঢাবি থেকে এমএ (ইংরেজী) দ্বিতীয় শ্রেণীতে উত্তীর্ণ, ১৯৯৩ সালে জুনিয়র সার্টিফিকেট কোর্স (মিলিটারী সাইন্স) উত্তীর্ণ ও ১৯৯৪ সালে সিনিয়র সার্টিফিকেট কোর্স (মিলিটারী সাইন্স) উত্তীর্ণ হন। আহছানুল হক ২০১০ সালে শিক্ষক প্রশিক্ষণ করেন নেপালে। তিনি ঢাকার ধানমন্ডি অক্রফোর্ড ইংলিশ স্কুলের সাবেক ইংরেজী শিক্ষক, ঢাকা সরকারি পল্লবী কলেজের সাবেক প্রভাষক শ্রী সেতি দেবী মাধ্যমিক স্কুল, ফারাপিং, কাঠমুন্ডু, নেপালের সাবেক ইংরেজী শিক্ষক, , অরুণদয় একাডেমি (উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়), কাঠমন্ডু, নেপালের সাবেক গেষ্ট লেকচারার ও ঢাকার দক্ষিণখান সরদার সুরুজ্জামান মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ইংরেজী বিভাগের সহকারি অধ্যাপক হিসেবে তিনি কর্মরত। ১৯৮৮ সালে ছাত্রলীগের প্রাথমিক সদস্য কুপণ পূরণের মাধ্যমে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন আহছানুল হক। ১৯৯১ সাল ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হলের ছাত্রলীগের এক-নিষ্ঠ সক্রিয় কর্মী ছিলেন। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের মাধমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বোর্ড পরীক্ষক ছিলেন, ২০০৫ সালে নেপাল, ২০০৬ সালে ভারত ও ভূটান, ২০০৮ সালে থাইল্যান্ড, ২০১০ সালে নেপাল, ২০১২ সালে সৌদি আরব ভ্রমণ করেন তিনি। ২০১২ সালে তিনি তার মাতার সাথে সৌদি আরবে পবিত্র হজ্ব ও উমরা পালন করেন। ২০১৪ সালে উমরা হজ্ব করার জন্য তিনি সৌদি আরবে যান। ঢাকার দক্ষিণখান আন্মাহ্ ইন্টারন্যঅশন্যাল স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এই আওয়ামীলীগ নেতা।

 

 

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 149/A Dit Extension Road, Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK