বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৭
Monday, 23 Jan, 2017 05:46:59 pm
No icon No icon No icon
মানবতাবিরোধী অপরাধ

ফুলবাড়িয়ার এমপিসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

 ফুলবাড়িয়ার এমপিসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা


টাইমস ২৪ ডটনেট, ফুলবাড়িয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ৭১’এ মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে ময়মনসিং-৬ (ফুলবাড়িয়া) আসনের এমপি এডভোকেট মোসলেম উদ্দিনসহ ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ২০/২৫ বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা জালাল উদ্দিন সোমবার (২৩ জানুয়ারি)দুপুরে ময়মনসিংহের ২নং আমলী আদালতে এ মামলাটি দায়ের করেন। আদালতের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মাহবুবুল হক মামলাটি আমলে নিয়ে মানবতাবিরোধী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে প্রেরণের নির্দেশ দেন। মামলার প্রধান সাক্ষী হয়েছেন বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী।মামলার অপর আসামিরা হলেন-ফুলবাড়ীয়া সদরের ফয়জুল বারী (৬৫), চৌদার গ্রামের আ. ছামাদ মাস্টার ওরফে টিক্কা খান (৭৮), আব্দুল মন্ডল (৮২), কুশমাইল গ্রামের মফিজ উদ্দিন ওরফে মফে (৮২), ভালুকজান গ্রামের রিয়াজ উদ্দিন ফকির (৮২), পুটিজান গ্রামের মোকসেদ আলী (৭০), এবাদুল্লাহ (৭২), কুশমাইল গ্রামের মোকসেদ আলী (৮০), ওয়াহেদ আলী মুন্সী (৮০) ও ছুরহাব আলী (৮০), কালাদহের আবুল হোসেন (৮০) ও মুছা (৭৫), পাটুলি গ্রামের আব্দুল হালিম (৬৫), আছিম তিতারচালা গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস (৬৫) এবং আছম টানপাড়া গ্রামের গিয়াস উদ্দিন (৬২)।মামলার বিবরণে বলা হয়েছে, মামলার আসামিগণ ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের বিরোধিতাকারী, রাজাকার, আলবদর, আলশামস, দালাল, জঙ্গি, দেশদ্রোহী ও আইন অমান্যকারী লোক। বর্তমান সংসদ সদস্য মোসলেম উদ্দিন ১৯৭১ সালেও এমপি নির্বাচিত হন। এমপি হয়েও তিনি পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সাথে হাত মিলিয়ে রাজাকার কমান্ডে যোগ দেন এবং জেলা রাজাকার কমান্ড প্রধান আব্দুল হান্নানের সাথে বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার শান্তি কমিটির কোষাধ্যক্ষ নিয়োজিত ছিলেন। এসময় তিনি ফুলবাড়ীয়ায় বেশ কয়েকটি এলাকায় হত্যা, ধর্ষণ, লুন্ঠন এবং অগ্নিসংযোগসহ নানা অপরাধ কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন।এতে আরও বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২৭ জুন তারিখে জোড়বাড়ীয়া গ্রামের বাদীর বাড়ীসহ আবু বক্কর সিদ্দিক, আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুস সালামসহ ভালুকজানের পাল বাড়ি ও ঋষি বাড়িঘর লুন্ঠন করে পুড়িয়ে দেয়। এরপর ৩৩ পাঞ্জাব রেজিমেন্ট অফিসার ও রাজাকারদের মোসলেম এমপিসহ অন্যান্য বিবাদীগণের সক্রিয় সহযোগিতায় সংশ্লিষ্ট গ্রামের নিরীহ জনগণের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ, ধর্ষণ, খুন-জখম এবং পাক বাহিনীর সাথে হাত মিলিয়ে ফুলবাড়ীয়া থানার কৈয়ারচালা গ্রামের মালেকা খাতুনকে ধর্ষনের পর হত্যা করে। ৭১ সালের ২০ জুন কুশমাইলের বসু চৌধুরীকে, ১২ জুন মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদকে এবং ফুলবাড়ীয়া বাজারে ৮জন ঋষিকে হত্যা করে। ২৯ নভেম্বর তালেব আলী, সেকান্দর আলী, আলতাব আলীকে হত্যা করে ভালুকজান নদীতে ভাসিয়ে দেয়। এ ছাড়াও সাধারণ মানুষকে হত্যা করে বধ্যভূমিতে ফেলে দেয়। এসব কর্মকাণ্ডে এডভোকেট মোসলেম উদ্দিনসহ উল্লেখিত আসামিরা প্রত্যক্ষভাবে জড়িত ছিলেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

 

এই রকম আরও খবর




Editor: Habibur Rahman
Dhaka Office : 11 Banga Bandhu Avenue (2nd Floor), Dhaka-1000
Email: [email protected], Cell : 01733135505
[email protected] by BDTASK